শিরোনাম

মঙ্গলবার, আগস্ট 22, 2017 - কে করবে অস্ত্রোপচার ? | মঙ্গলবার, আগস্ট 22, 2017 - আসছে স্যামসাংয়ের নতুন ট্যাব | মঙ্গলবার, আগস্ট 22, 2017 - চেক লেখার সময়ে এই ভুলগুলি করলেই ফাঁকা হবে অ্যাকাউন্ট! | মঙ্গলবার, আগস্ট 22, 2017 - জিওনির কম বাজেটের নতুন স্মার্টফোন | মঙ্গলবার, আগস্ট 22, 2017 - নিটল ইলেকট্রনিক্স এর শোরুম এখন সিলেটে | সোমবার, আগস্ট 21, 2017 - সীমান্তে অবৈধ টাওয়ার, ১৭ কোটি টাকা জরিমানা গুনতে হবে বাংলালিংককে | সোমবার, আগস্ট 21, 2017 - টাকা ওঠাতে চার্জ বেশি নিচ্ছে বিকাশ | সোমবার, আগস্ট 21, 2017 - এরিকসনে বিনা নোটিশে ৫০ কর্মী ছাঁটাই করায় অবরুদ্ধ শীর্ষ কর্মকর্তারা | সোমবার, আগস্ট 21, 2017 - যে অ্যাপ বাধ্য করবে সন্তানদের সাড়া দিতে | সোমবার, আগস্ট 21, 2017 - মোজিলা ফায়ারফক্সের প্রয়োজনীয় কিছু কীবোর্ড শর্টকাট |
প্রথম পাতা / টেলিকম / অন্য অপারেটরদের  ৩০০০ সাইট ব্যবহার করতে দিয়েছে গ্রামীণফোন
অন্য অপারেটরদের  ৩০০০ সাইট ব্যবহার করতে দিয়েছে গ্রামীণফোন

অন্য অপারেটরদের  ৩০০০ সাইট ব্যবহার করতে দিয়েছে গ্রামীণফোন

gpগ্রামীণফোন তার নিজস্ব ৩০০০ সাইট অন্য অপারেটরদের ব্যবহার করতে দিয়েছে। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি এই মাইলফলক অতিক্রম করে। বাংলাদেশের কোন মোবাইল অপারেটরের শেয়ার করা বিটিএস সাইটের মধ্যে এটাই সর্বোচ্চ।

বিটিআরসি প্যাসিভ টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো ব্যবহারের অনুমতি দিলে গ্রামীণফোন ২০০৯ এ সাইট শেয়ারিং শুরু করে এবং ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী কিউবি ছিল প্রথম গ্রাহক। গ্রামীণফোন তার উচ্চমানের নেটওয়ার্ক এবং সবচেয়ে বেশি বিটিএস সাইট নিয়ে সবাইকে অবকাঠামো ব্যবহার করতে দিতে প্রস্তুত। এর ফলে সম্পদের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত হবে।

এই উপলক্ষে বক্তব্য রাখতে গিয়ে গ্রামীণফোনের হেড অফ ইনফ্রাস্ট্রাকচার বিজনেস মাইনুর রহমান ভূইয়া বলেন,” বিটিআরসি ২০০৮ এ অবকাঠামো শেয়ারিং নীতিমালা প্রকাশ করার পর থেকে এখন পর্যন্ত অপারেটররা প্রায় ৮০০০ সাইট একে অপরকে ব্যবহার করতে দিয়েছে, যা একই সময়ে স্থাপিত হওয়া বিটিএস এর ৫০ শতাংশেরও বেশি।”

মোবাইল টাওয়ার ব্যবস্থাপনার জন্য বিটিআরসির পৃথক লাইসেন্স দেয়ার উদ্যোগ এবং তাতে মোবাইল অপারেটরদের অংশগ্রহণের সুযোগ না থাকা প্রসঙ্গে গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি বলেন,”  মোবাইল অপারেটরদের বিদ্যমান টাওয়ার নির্মান, রক্ষণাবেক্ষণ ও অন্যকে ব্যবহার করতে দেয়ার ক্ষমতা অব্যাহত রাখা উচিত, একই সাথে টাওয়ার এর লাইসেন্সধারীরাও থাকবে ফলে টেলিযোগযোগ শিল্পে একটি প্রতিযোগিতা মূলক পরিবেশ বজায় থাকবে।এছাড়া এতে গ্রাহকদের জন্য উন্নত নেটওয়ার্ক নিশ্চত হবে।”

অবকাঠামোর পারষ্পারিক ব্যবহারের ফলে অপারেটরদের বড় আকারের মূলধনী বিনিয়োগ বেচে যায়, তারা তাদের মূল ব্যবসায় মনোনিবেশ করতে পারে আর একই সাথে সরকারী কোষাগারে অর্জিত রাজস্বের একটি অংশ জমা হয়। এ ছাড়াও কম জায়গার ব্যবহার ও কম বিদ্যুত ব্যবহার নিশ্চিত করে প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ মাধ্যমে পরিবেশ রক্ষা করে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top