শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - গাড়ি চালাতে এবার থেকে আর কোনও চাবির প্রয়োজন নেই! | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - বিজয়ী কাস্টমারদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে সিম্ফনি ঈদ অফার | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - বিশ্বব্যাপী সাইবার হামলায় ৬ মাসেই ক্ষতি ৪০০ কোটি ডলার | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - এইচটিসি স্মার্টফোন ব্যবসা কিনতে গুগলকে গুনতে হবে ১১০ কোটি ডলার | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - টাকা না পেলে টেলিটক মারা যাবে : ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - ইউনিক বিজনেস সিস্টেমস লিমিটেড পরিদর্শনে হিটাচি এক্সক্লুসিভ টিম | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী’র ‘অ্যাসোসিও ডিজিটাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ গ্রহণ | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে এয়ারটেল’র ‘ইয়োলো ফেস্ট’ | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তায় নতুন দেশি অ্যাপ | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 21, 2017 - ড্যাফোডিলে ‘সমন্বিত শিক্ষণ পদ্ধতিতে গুগল ক্লাসরুমের ব্যবহার’ শীর্ষক লেকচার সেমিনার অনুষ্ঠিত |
প্রথম পাতা / টেলিকম / অ্যান্ড্রয়েড ট্যাব কেনার পর প্রথমেই যে ৬টি কাজ করবেন
অ্যান্ড্রয়েড ট্যাব কেনার পর প্রথমেই যে ৬টি কাজ করবেন

অ্যান্ড্রয়েড ট্যাব কেনার পর প্রথমেই যে ৬টি কাজ করবেন

অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম চালিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের তৈরি ট্যাবলেট ডিভাইস বাজারে পাওয়া যায়। এ ধরনের ট্যাবলেট প্রাথমিক সেটআপ দেওয়ার পর ব্যবহার শুরুর আগেই যেসব  কাজ করলে ব্যবহার সহজ হবে ও পারফর্মেন্স বাড়বে, সে ধরনের ছয়টি কাজ নিয়েই এ নিবন্ধ।

androied-tab

১. লম্বা ব্যাটারি লাইফের জন্য
ট্যাবলেটের ব্যাটারি লাইফ বেশ কয়েকটা বিষয়ের উপর নির্ভর করে। এর মধ্যে যেসব সেটিং আপনার হাতে আছে সেগুলো পরিবর্তন করে নেয়াই ভালো। সবচেয়ে বেশি ব্যাটারি ক্ষয় হয় ডিসপ্লে দিয়ে। তাই একে যথাসম্ভব অনুজ্জ্বল করে রাখুন। এটি যদি সরাসরি সূর্যালোকে ব্যবহার করা না হয়, তাহলে উজ্জ্বলতা ৫০ ভাগে রাখতে পারেন। সম্পূর্ণ অন্ধকার কক্ষে এর উজ্জ্বলতা শূন্যতে রাখলেও এর কাজ চলবে।
এরপর নজর দিবেন অব্যবহৃত সেবাগুলো বন্ধ করার দিকে। সবগুলোই সেটিংস-এ পাওয়া যাবে। যোগাযোগের ব্যবস্থাগুলো ব্যবহার না করলে এটি এয়ারপ্লেন মোডে রাখতে পারেন। এছাড়া বন্ধ রাখতে পারেন ব্লুটুথ, লোকেশন এক্সেস, এনএফসি ও সেলুলার নেটওয়ার্ক। এর সবগুলোই ব্যাটারির চার্জ কমিয়ে দেয়।

২. ফাইল ম্যানেজার ইনস্টল করুন

অ্যাপলের আইওএস চালিত অপারেটিং সিস্টেমের তুলনায় অ্যান্ড্রয়েডের অন্যতম সুবিধা হচ্ছে, আপনি ফাইল সিস্টেমে সরাসরি প্রবেশ করতে পারবেন। এ কাজটি করতে পারবেন ইএস ফাইল এক্সপ্লোরারের সাহায্যে। অ্যাপটি প্রত্যেক ফাইল, ফোল্ডার ও মেমোরি কার্ডে সংরক্ষিত তথ্য প্রদর্শন করতে সক্ষম। এছাড়া এর মাধ্যমে ফাইলগুলো সাজিয়ে রাখা যায়। ফাইল ম্যানেজার আপনি ব্যবহার করতে পারেন আপনার ট্যাবের সব অ্যাপ ছাড়াও মুভি, টিভি শো ও ডকুমেন্টসসহ সবধরনের ফাইলের ক্ষেত্রেই।

৩. স্ট্রিমিং অ্যাপ ইনস্টল করুন

ভিডিও দেখার জন্য ট্যাবলেট খুবই উপযুক্ত। ভিডিও স্ট্রিম করার জন্য ট্যাবলেটে প্রয়োজনীয় অ্যাপ ইনস্টল করুন। এর ফলে শুধু ইন্টারনেট কানেকশন দিয়েই বহু সঙ্গীত ও সিনেমা দেখতে পাবেন। আর এতে মূল্যবান ডিস্ক স্পেসও নষ্ট হবে না।
নেটফ্লিক্স ও হুলু এক্ষেত্রে হতে পারে প্রথম পছন্দ। এ ছাড়াও বিভিন্ন টিভি স্টেশনের নিজস্ব অ্যাপ আছে। এগুলো ইনস্টল করে তাদের প্রোগ্রাম দেখতে পাবেন।

৪. ইনস্টল করুন এইচডি উইজেটস

অ্যান্ড্রয়েড ওএস খুবই কাস্টমাইজেবল ও ফ্লেক্সিবল। ট্যাবলেটের পূর্ণ ব্যবহার করার জন্য উইজেট ইনস্টল করুন।
এইচডি উইজেটস ইনস্টল করে আপনি ডিজিটাল ঘড়ি ছাড়াও আবহাওয়ার খবরাখবর হোম স্ক্রিনেই পেতে পারেন। এ ছাড়াও ওয়াইফাই সেটিংস, ব্রাইটনেস, স্ক্রিন টাইম-আউট, টিল্ট ও ব্যাটারি লাইফের জন্য শর্টকাট তৈরি করা যাবে।

 

৫. ট্যাবলেটকে নিরাপদ করুন
অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের নিরাপত্তা নিয়ে সংশয় রয়েছে বিশেষজ্ঞদের। এজন্য ভাইরাস গার্ড ইনস্টল করে নিতে হবে।
ট্যাবলেটের নিরাপত্তার জন্য টাকা খরচ করতে না চাইলে আছে বিনামূল্যের অ্যান্টিভাইরাস- এভিজি। কিছু বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের বিনিময়ে এটি বিনামূল্যে চালাতে পারবেন। বিনামূল্যে পাওয়া লুকআউট অ্যান্টিভাইরাসও ব্যবহার করা যেতে পারে।
এতে একটি অ্যান্টিথেফ্ট ফিচারও আছে, যাতে এটি হারিয়ে গেলে গুগল ম্যাপে এর অবস্থান দেখা যাবে। এ ছাড়াও দূর থেকেই ট্যাবলেট লক করে দেওয়ার ও ডেটা মুছার ব্যবস্থা আছে এতে।এ ছাড়াও অ্যাপটিতে আছে টাস্ক কিলার নামে একটি ফিচার। এর মাধ্যমে ব্যাকগ্রাউন্ডে চলমান অপ্রয়োজনীয় কাজ বন্ধ করতে পারবেন আপনি। এতে ট্যাবলেটের পারফর্মেন্স অনেক বাড়বে।

৬. থ্রিডিমার্ক চালান

মোবাইল গেমস এখন অনেকেরই প্রিয়। কিছু গেম নিশ্চয়ই ট্যাবলেটটিতে ইনস্টল করে খেলতে চাইবেন আপনি। পারলে থ্রিডি গেমও ইনস্টল করবেন। কিন্তু কোন গেমটি এতে চলবে আর কোনটি চলবে না, সেটা জানবেন কীভাবে? এজন্য আছে থ্রিডিমার্ক।
থ্রিডিমার্ক-এর গ্রাফিক্স বেঞ্চমার্ক আপনাকে নির্ণয় করতে সাহায্য করবে কোন গেমটি এতে চলবে আর কোনটি চলবে না। সবচেয়ে ভালো হয় যদি থ্রিডিমার্ক আল্টিমেট টেস্ট চালান। অ্যাপটি চালিয়ে স্কোর পেয়ে গেলে সেটা নিয়ে থ্রিডিমার্কের ওয়েবসাইটে যান। এ নাম্বার যত বেশি হবে, থ্রিডি গেমিং পারফর্মেন্স তত বেশি হবে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top