শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - দর্শনার্থী নেই বেসিস সফটএক্সপোতে ! | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - বিসিএস নির্বাচনে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - ২০১৭ সালে রবি’র লোকসান ২৮০ কোটি টাকা | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - বাংলাদেশের গ্রাহকদের জন্য অপো স্মার্টফোনসমূহ ৪জি সেবা দিতে প্রস্তুত | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - বিইউপিবিজিএ-এর বার্ষিক বনভোজন সম্পন্ন | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - উদ্বোধন হলো বেসিস সফটএক্সপো ২০১৮’র | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - এলো টোটেলিংক এর হাই স্পীড ওয়াইফাই রাউটার | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - সবুর খান ডব্লিউবিএএফ-এর বাংলাদেশ হাই কমিশনার নিযুক্ত | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - সিন্দাবাদ ডট কম-এর সাথে যুক্ত হলো মাই আউটসোর্সিং লিমিটেড | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - জাকারবার্গকে হারিয়ে দিলেন প্রিয়া |
প্রথম পাতা / অফবিট / অ্যামাজনকে বোকা বানালো স্বামী-স্ত্রী
অ্যামাজনকে বোকা বানালো স্বামী-স্ত্রী

অ্যামাজনকে বোকা বানালো স্বামী-স্ত্রী

amazon
বিশ্বখ্যাত অনলাইন শপিং প্রতিষ্ঠান অ্যামাজন থেকে ১২ লাখ ডলারের বেশি মূল্যের পণ্য চুরি করেছে বলে স্বীকার করেছে আমেরিকার এক দম্পতি। তারা যে পণ্যগুলো অর্ডার করেছিলো সেগুলো ভাঙ্গা কিংবা নষ্ট ছিল বলে বারবার দাবি করে এই কাজ করেছেন তারা।
ইন্ডিয়ানা রাজ্যের বাসিন্দা এরিন জোসেফ ফিন্যান (৩৮) এবং লিয়া জেনেত্তি ফিন্যান (৩৭) দম্পতি প্রতারণা এবং অর্থ পাচারের অপরাধ স্বীকার করেছে। এ দম্পতির ৫ লক্ষ মার্কিন ডলার জরিমানা এবং সর্বোচ্চ ২০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। আগামী ৯ নভেম্বর এ রায় ঘোষণা করা হবে।
স্থানীয় একটি সংবাদপত্র বলছে, ফিন্যান দম্পতি অনলাইনে শত শত ভুয়া অ্যাকাউন্ট ব্যবহারের মাধ্যমে অ্যামাজন থেকে অনলাইনে পণ্য ক্রয়ের অর্ডার দিয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী যেমন স্যামসাং স্মার্ট ওয়াচ, গোপ্রো ক্যামেরা, এক্সবক্স ভিডিও গেম কনসোল ইত্যাদি।
অর্ডার করা পণ্যগুলো হাতে পাওয়ার পর তারা অ্যামাজনের কাস্টমার সার্ভিস বিভাগে যোগাযোগ করে জানায় যে পাঠানো গেজেটগুলো ভাঙ্গা বা কাজ করছে না। অ্যামাজনের নীতি অনুযায়ী তারপর ঐ পণ্যের পরিবর্তে আরেকটি বিনামূল্যে পাঠিয়ে দেয়। তারপর এই পণ্যগুলো ফিন্যান দম্পতি আরেকজনের কাছে বিক্রি করে, যিনি আবার এই পণ্যগুলো নিউইয়র্কের এক বেনামী প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে।
পরে মার্কিন ডাক বিভাগের অনুসন্ধান বিভাগ, ইন্ডিয়ানা রাজ্য পুলিশ এবং অভ্যন্তরীণ রাজস্ব বিভাগের যৌথ তদন্তে এই দম্পতির জালিয়াতি ধরা পড়ে। এরপর সে দম্পতি তাদের সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top