শিরোনাম

মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের ডিজিটাল পেমেন্ট সার্ভিস ইউপের যাত্রা শুরু | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - হুয়াওয়ে মেট ১০ এ যা আছে | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - শাওমির নতুন ফোন রেডমি ৫এ | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - ফাঁস হয়ে গেল নোকিয়া ৯ এর গোপন সমস্ত তথ্য | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - হ্যাকারদের লক্ষ্য বাংলাদেশসহ অন্যান্য এশিয়ার দেশগুলোর ব্যাংকগুলো | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - এডিএন ইডু সার্ভিসেস এর উদ্দেগে এজাইল বিষয়ক কর্মশলা অনুষ্ঠিত | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - প্রথম ডিজিটাল মার্কেটিং অ্যাওয়ার্ডসে গ্রামীণফোনের ব্যাপক সাফল্য | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - গুগলের এই এয়ারপড হেডফোন যখন ট্রান্সলেটর | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - কম্পিউটার গেমের আসক্তিতে হতে পারে ভয়াবহ পরিণতি | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ওটিসি ড্রাগ বিষয়ে সচেতনতা জরুরি |
প্রথম পাতা / ক্যারিয়ার / আইটি খাতে কর্মসংস্থান আগামী বছর আরও কমবে:নাসকম
আইটি খাতে কর্মসংস্থান আগামী বছর আরও কমবে:নাসকম

আইটি খাতে কর্মসংস্থান আগামী বছর আরও কমবে:নাসকম

it

আইটি সেক্টরে খুবই অদ্ভুত একটি সময় যাচ্ছে। ভারতের অলাভজনক সংস্থা ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড সার্ভিস কোম্পানি (নাসকম) বলছে, আইটি শিল্প চলতি অর্থবছরে তুলনায় ২০১৮ অর্থবছরে ২০ থেকে ৩৮ শতাংশ কর্মসংস্থান কমে যাবে। আগামী অর্থবছরে এই খাতে ১.৩ থেকে ১.৫ লাখ নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হতে পারে, যেখানে চলতি বছরে ১.৮ লাখ কর্মসংস্থান যোগ হয়েছিল। এই সেক্টরে একবছরে সর্বোচ্চ ২.৪০ লাখ কর্মসংস্থানও যুক্ত হয়েছিল।

নাসকম এর প্রেসিডেন্ট আর চন্দ্রশেখর বলেন, অটোমেশনের কারণেই এই খাতে চাকরি কমে যাচ্ছে। ভারতীয় আইটি শিল্প, অটোমেশন এবং  ক্লায়েন্টের ডিজিটাল চাহিদার সাথে জড়িয়ে পড়েছে। এবং তারা অটোমেশন এবং খরচ কমানোর আশায় কর্মসংস্থান পুনর্গঠন করছে।

চলতি মাসের শুরুতে টিসিএস এবং ইনফোসিস এ এপ্রিল জুন প্রান্তিকে কর্মী সংখ্যা কমে যথাক্রমে ১৮০০ এবং ১৪১৪ হয়েছে। আর এই প্রতিষ্ঠান দুটি ভারতের এক-পঞ্চমাংশ সফটওয়্যার রফতানি করে যার মূল্য ১১৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর ভারতের তৃতীয় বৃহত্তম সফটওয়্যার পরিষেবা রফতানিকারী প্রতিষ্ঠান উইপ্রোএর প্রান্তিক হিসেবে ১৩০৯ জন বেড়েছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

নাসকম প্রধান আরও জানান, আইটি সেক্টরসহ প্রযুক্তির কারণে সব সেক্টরেই চাকরি কমে আসছে। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মতো দেশগুলো প্রযুক্তি গ্রহণ করেছে এবং একই ধরনের অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে। আর এখন তাদের বেকারত্বের মাত্রা শূন্যের কাছাকাছি। ‘এখানে চাকরির ক্ষতি এবং কষ্ট থাকলেও শেষ পর্যন্ত এটি অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির একমাত্র পথ’ বলেছেন চন্দ্রশেখর।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top