শিরোনাম

সোমবার, সেপ্টেম্বর 25, 2017 - ডি-লিংক এর স্পেশাল অফার | সোমবার, সেপ্টেম্বর 25, 2017 - রংতা ব্র্যান্ডের নতুন পিওএস প্রিন্টার | সোমবার, সেপ্টেম্বর 25, 2017 - নারীর নিরাপত্তা ও শরনার্থীদের শিক্ষা বিষয়ক ধারণা যাচ্ছে ওসলোর টেলিনর ইয়ুথ ফোরামে | রবিবার, সেপ্টেম্বর 24, 2017 - উদ্বোধনের অপেক্ষায় শেখ হাসিনা সফটওয়্যার পার্ক | রবিবার, সেপ্টেম্বর 24, 2017 - আপনারই কিছু ভুল হয়তো অজান্তে ফোনের পারফরম্যান্স খারাপ করছে | রবিবার, সেপ্টেম্বর 24, 2017 - খুলনায় দুইদিনের বেসিক আরডুইনো কর্মশালা অনুষ্ঠিত | রবিবার, সেপ্টেম্বর 24, 2017 - ঢাকা মহিলা পলিটেকনিককে স্যামসাং এর পক্ষ থেকে অত্যাধুনিক ল্যাব হস্তান্তর  | রবিবার, সেপ্টেম্বর 24, 2017 - সিডস্টারস ঢাকায় দেশের সেরা স্টার্টআপ সিমেড হেলথ | রবিবার, সেপ্টেম্বর 24, 2017 - অ্যান্ড্রয়েড ফোনকে মডেম হিসেবে ব্যবহারের উপায় | রবিবার, সেপ্টেম্বর 24, 2017 - আসছে নকিয়ার আরও দুই ফোন |
প্রথম পাতা / টেলিকম / ওলো‘র গ্রাহক সংখ্যা ২৫ হাজার পার হল
ওলো‘র গ্রাহক সংখ্যা ২৫ হাজার পার হল

ওলো‘র গ্রাহক সংখ্যা ২৫ হাজার পার হল

দেশের অন্যতম শীর্ষ ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার ওলো তাদের গ্রাহক সংখ্যা ২৫ হাজার পার করেছে।মাত্র তিন বছরেই বাংলাদেশের ইন্টারনেট বাজারে তৃতীয় স্থান দখল করে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। আগামীতে ওয়াইম্যাক্স সেবার বিষয়েও প্রতিষ্ঠানটি চিন্তাভাবনা করছে। ওয়াইম্যাক্সের লাইসেন্সের জন্য ইতিমধ্যে বিটিআরসিতে আবেদন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ লিমিটেড’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইউলিয়া আকসুইতিনা।
27
শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ-এর মূল কোম্পানি রাশিয়ার নিউ জেনারেশন গ্রাফিকস লিমিটেড’র (এনজিজিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক সার্জি তোপালভ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ লিমিটেড ও নিউ জেনারেশন গ্রাফিকস লিমিটেড এই দুটি কোম্পানীর মিলিত সেবামুলক ব্যান্ডের নাম ‘ওলো’।
সংবাদ সম্মেলনে ইউলিয়া আকসুইতিনা জানান, ২০১১ সালে যাত্রা শুরু করলেও পরের বছরের মার্চে পূর্ণাঙ্গভাবে যাত্রা শুরু করে ‘ওলো’। আর এ অল্প সময়ের মধ্যেই ২৫ হাজার গ্রাহককে উন্নীত হওয়ায় তারা খুশি। গ্রাহকদের জন্য বিভিন্ন ধরনের ট্যারিফ চালু করেছেন, যাতে করে যে কেউ যেকোনো প্যাকেজ নিয়ে সহজেই ইন্টারনেট সেবা পেতে পারেন। তিনি আরও জানান, ভবিষ্যতে তারা ওয়াই-ম্যাক্স সেবাও চান। এজন্য ওয়াইম্যাক্স লাইসেন্সের জন্য আবেদন করছেন।
ইউলিয়া বলেন, তারা তাদের গ্রাহকদের দুটি আলাদা নেটওর্য়াকের মাধ্যমে সেবা দিচ্ছেন। যে এলাকায় যে নেটওয়ার্ক সবচেয়ে বেশি কাজ করে সেই নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হচ্ছে গ্রাহকদের। তবে সরকারি সহযোগিতা পেলে তারা আরো বড় পরিসরে তাদের সেবার পরিধি বাড়াতে চাই বলেও তিনি জানান।
বর্তমানে ‘ওলো’ রাজধানীর উত্তরা, গুলশান, মহাখালী, ধানমন্ডি, মতিঝিল ও এর আশে পাশে এলাকায় ইন্টারনেট সেবা প্রদান করছে জানিয়ে তিনি বলেন, তারা চলতি বছরে ১০০ (বিটিএস) বেইস স্টেশন করবো। এরমধ্যে ৫০ শতাংশ হবে গ্রামাঞ্চলে।
অনুষ্ঠানে এনজিজিএল কোম্পানির ওপর একটি প্রেজেন্টেশন দেন প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সার্জি তোপালভ।

 

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top