শিরোনাম

সোমবার, জানুয়ারী 16, 2017 - নতুন নম্বর সিরিজ ০১৩ পাচ্ছে না জিপি | সোমবার, জানুয়ারী 16, 2017 - সিওরক্যাশের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করতে পারবে পেইজা গ্রাহকেরা | সোমবার, জানুয়ারী 16, 2017 - সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফ্রি ওয়াই-ফাই দেওয়া হবে : পলক | সোমবার, জানুয়ারী 16, 2017 - ডিজিটাল শিক্ষা বিস্তারে কাজ করবে টেন মিনিট স্কুল | সোমবার, জানুয়ারী 16, 2017 - ডিজিটাল এন্টারপ্রেনারশিপ ইকোসিস্টেম সম্পর্কিত কর্মশালা অনুষ্ঠিত | বুধবার, জানুয়ারী 11, 2017 - আফতাব-উল-ইসলাম বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন পরিচালক | বুধবার, জানুয়ারী 11, 2017 - কিশোর-কিশোরীদের মেধা বিকাশে আসছে কানেক্ট ডটবাংলা | বুধবার, জানুয়ারী 11, 2017 - ডয়েচে ভেলের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিভিত্তিক অনুষ্ঠান আরটিভিতে | বুধবার, জানুয়ারী 11, 2017 - ‘র‍্যাংকসটেলের ইন্টারনেটের জন্য চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে বিটিসিএল’ | বুধবার, জানুয়ারী 11, 2017 - এবার ভিডিওতে বিজ্ঞাপন আনছে ফেসবুক |
প্রথম পাতা / টেলিকম / কল-ড্রপে ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে না মোবাইল অপারেটরগুলো
কল-ড্রপে ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে না মোবাইল অপারেটরগুলো

কল-ড্রপে ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে না মোবাইল অপারেটরগুলো

Call-drop news

দেশের টেলিকম অপারেটরগুলো এখনও তাদের গ্রাহকদের কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণ দেওয়া শুরু করেনি। অথচ টেলিকম রেগুলেটরের নির্দেশনা অনুযায়ী ১ জুলাই থেকে এ ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ছিল সকল মোবাইল অপারেটরের। তা সত্ত্বেও এখনও নির্দেশনা অগ্রাহ্য করে অপারেটরগুলো এ সুবিধা চালু করেনি।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর জনা কয়েক কর্মকর্তা জানান যে, অপারেটরগুলো কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে ৩০ জুন বিটিআরসি (বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন) থেকে লিখিত নির্দেশ পেলেও এ ব্যাপারে তারা সম্মত হননি।

বিটিআরসি’র নির্দেশ অনুযায়ী, টেলিকম মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক দিনের দ্বিতীয় কল-ড্রপ থেকে মোবাইল অপারেটরদের গ্রাহককে ১ মিনিট ফ্রি টক-টাইম দিতে হবে এবং গ্রাহককে মেসেজের মাধ্যমে তা অবগত করতে হবে। বাংলাদেশ মোবাইল টেলিফোন অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন ৩০ জুন বিটিআরসিকে একটি চিঠির মাধ্যমে কল-ড্রপজনিত সিদ্ধান্তটি অপারেটরদের সাথে আলোচনা না হওয়া পর্যন্ত স্থগিত রাখার জন্য অনুরোধ করে।

এর আগে বিটিআরসি ১৯ জানুয়ারী সকল মোবাইল অপারেটরের জন্য ১ মিনিট কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণ দেওয়া বাধ্যতামূলক করে কিন্তু অপারেটরগুলো এ নির্দেশে সম্মত হয়নি। তবে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো তাদের প্রচারণার উদ্দেশ্যে কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণ প্রদানে ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে থাকে। মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো ২১ জুন বিটিআরসি’র সাথে এক বৈঠকে দাবি করেছিল যে, কারিগরীভাবে কল-ড্রপ ধরার কোন সরঞ্জাম নেই।

তারা বলেন, কাস্টমাররা বিটিআরসি’র কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণের নির্দেশনাটি কাজে লাগিয়ে নিজেরা কল কেটে দিয়ে অপারেটরদের কাছে ফ্রি কল মিনিট চেয়ে বসতে পারে। অপারেটরা বিটিআরসিকে প্রত্যেক ইউজারের জন্য সর্বোচ্চ ক্ষতিপূরণ সীমা বেঁধে দেওয়ার দাবি করে। তারা আরও বলেন, অফ-নেট কল ড্রপের সময় কোথায় ঘটনাটি ঘটছে তা খুঁজে বের করা কঠিন হয়ে পড়ে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশের প্রথিতযশা মোবাইল ফোন অপারেটরের এক জ্যৈষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, ‘কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণের সাথে সম্পর্কিত সমস্যাগুলো সমাধান না করেই বিটিআরসি নির্দেশনাটি প্রদান করেছে। পরবর্তী আলোচনা না হওয়া পর্যন্ত বিটিআরসিকে ব্যাপারটি স্থগিত রাখার অনুরোধ করেছি আমরা। এখন, বিটিআরসি যদি আমাদের সার্ভিসটি চালু করতে বলে, তাহলে ব্যাপারটি নিয়ে আদালতে যেতে হবে আমাদের।’

অন্য এক মোবাইল ফোন অপারেটরের জ্যৈষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, বিটিআরসি কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে বল প্রয়োগ করতে পারে না কেননা অপারেটরগুলোর কল-ড্রপের হার বিটিআরসির মঞ্জুরিযোগ্য পরীসীমার ভেতরে অবস্থান করছে।

অপারেটরগুলোর গুণগত পরিষেবার ব্যাপারে বিটিআরসি নির্দেশনা অনুযায়ী, অপারেটরগুলোকে সর্বোচ্চ ২-৩ শতাংশ কল-ড্রপসহ অন্তত ৯৫-৯৭ শতাংশ সফল কলের মাত্রা থাকতে হবে।

অপারেটরগুলোর আপত্তির ব্যাপারে বিটিআরসি’র এক জ্যৈষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, ‘মোবাইল অপারেটরগুলো প্রচারণার ক্ষেত্রে যখন কল-ড্রপজনিত ক্ষতিপূরণ চালু করেছিল তখন এ ধরণের কোন সমস্যা দেখা দেয়নি। কিন্তু আমরা যখন তাদের নির্দেশ দিলাম তখনই সব সমস্যার উদয় হলো। এর কোন মানে হয় না।’

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top