শিরোনাম

সোমবার, ডিসেম্বর 18, 2017 - মোবাইল ডেটা ব্যবহারে এগিয়ে গ্রামীণফোন | সোমবার, ডিসেম্বর 18, 2017 - বিদেশ থেকে এখন ৮টি মোবাইল ফোন আনা যাবে | রবিবার, ডিসেম্বর 17, 2017 - গুগল-ফেসবুকের বিজ্ঞাপনে ডলার পাচার-রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার | রবিবার, ডিসেম্বর 17, 2017 - রাইড শেয়ারিং সার্ভিস ‘ডাকো’র প্রথম যাত্রী আশরাফুল | রবিবার, ডিসেম্বর 17, 2017 - বাংলাদেশে এলো মোবাইল এ্যাপস ‘ফ্ল্যাশট্যাগ’ | রবিবার, ডিসেম্বর 17, 2017 - আগামী বছর ঢাকায় আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলা : রাশেদ খান মেনন | রবিবার, ডিসেম্বর 17, 2017 - ‘ল্যাপটপ ফর অল’ ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নে এটুআই ও সিঙ্গারের মধ্যে সমঝোতা স্মারক | শুক্রবার, ডিসেম্বর 15, 2017 - শুরু হলো আসুস আরওজি জেফ্রাস গেমিং ল্যাপটপের প্রি-বুকিং | শুক্রবার, ডিসেম্বর 15, 2017 - বাজারে এলো স্বল্পবাজেটের এসার ল্যাপটপ | শুক্রবার, ডিসেম্বর 15, 2017 - ছুটির দিনের শুরুতেই ক্রেতা মুখর ল্যাপটপ মেলা ২০১৭ |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসরায় ৫৭ ধারা বাতিলের সুপারিশ
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসরায় ৫৭ ধারা বাতিলের সুপারিশ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসরায় ৫৭ ধারা বাতিলের সুপারিশ

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের আলোচিত ৫৭ ধারা বাতিলের সুপারিশ এসেছে নতুন ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৫’ এর খসড়ায়। সাইবার দুনিয়ার নিরাপত্তার নিয়ে নতুন এই আইনটিতে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের শাস্তির বিধান রেখে বিভিন্ন অপরাধের মাত্রা অনুয়ায়ী সবচেয়ে কম শাস্তিরও উল্লেখ থাকছে।

cyber-security-Lawতথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের তৈরি এই আইনের খসড়া নিয়ে রোববার আইন মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠক হয়। বৈঠকে সহকারি সচিব ও খসড়া প্রস্তুত কমিটির সদস্য সচিব আরএইচএম আলাওল কবির আইনটির খসড়া উপস্থাপন করেন।

বৈঠকের পর আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সাংবাদিকদের জানান, নতুন আইনে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের শাস্তির বিধান থাকছে। বাতিলের সুপরিশ করা হয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারাসহ কয়েকটি ধারা।

আইনমন্ত্রী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি আইনের সঙ্গে নতুন আইনের যেন কোনো অসামঞ্জস্য না থাকে, সেজন্য খসড়াটি চূড়ান্ত করার আগে আরও আলোচনা করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক সাংবাদিকদের বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় অপরাধের যে ধরন-সংজ্ঞা ছিল, নতুন আইনে তা আরও স্পষ্ট। আইসিটি আইনের ৫৪, ৫৫, ৫৬, ৫৭ ধারা সম্পর্কে নতুন আইনে আরও ব্যাখ্যা রয়েছে।

আইনটির নামকরণ ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন’ করার প্রথম প্রস্তাব দিয়েছিলেন তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার। যিনি খসড়া প্রস্তুত কমিটির সদস্য এবং আইনটির খসড়া পর্যালোচনা কমিটির সদস্য সচিবও।

সাইবার নিরাপত্তা আইনে সাইবার অপরাধের সর্বোচ্চ সাজার মেয়াদ ২০ বছর কারাদণ্ড, সন্দেহজনক কোনো কম্পিউটার জব্দ করতে প্রয়োজনে দরজা-জানালা ভেঙে প্রবেশ করাসহ যেকোনো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণসহ বিভিন্ন বিষয় সংশোধন ও বাতিলের সুপারিশ এনে আইনটির কাঠামোই বদলে ফেলা হয়েছে।

আইনমন্ত্রীর লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘প্রস্তাবিত আইনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন-২০০৬ (সংশোধিত-২০০৯ ও ২০১৩) এর ধারা-৫৪, ৫৫, ৫৬ ও ৫৭ বাতিলের সুপারিশ করা হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের উপযুর্ক্ত ধারাগুলো পুনর্গঠন ও পরিমার্জন করে এবং বাংলাদেশ দন্ডবিধি, ১৮৬০ এর রেফারেন্স উদ্ধৃত করে প্রস্তাবিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৫ এর ধারা-১৯, ধারা-২০ ও ধারা-২১ এ সন্নিবেশিত করা হয়েছে।’

প্রস্তাবিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসড়ায় মোট ৭ টি অধ্যায় ও ৪৪ টি ধারা রয়েছে।

‘এর মধ্যে অধ্যায়-১ এ প্রারম্ভিক (ধারা ০১-০৪), অধ্যায়-২ এ ডিজিটাল নিরাপত্তা এজেন্সি (ধারা ০৫-০৬), অধ্যায়-৩ এ অত্যাবশ্যকীয় তথ্য পরিকাঠামো (ধারা ০৭-০৮), অধ্যায়-৪ এ অপরাধ ও দণ্ড(ধারা ০৯-২৩), অধ্যায়-৫ এ তদন্ত ও তল্লাশি (ধারা ২৪-৩৮), অধ্যায়-৬ এ আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক সহযোগিতা (ধারা ৩৯) ও অধ্যায়-৭ এ বিবিধ (ধারা ৪০-৪৪) রয়েছে।’

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top