শিরোনাম

শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধিতে একত্রে কাজ করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও এটুআই | শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে রবি’র ক্যারিয়ার কার্নিভাল | শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - ‘শান্তি’র জন্য প্রযুক্তি পরিচয়ের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত | শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - নতুন ফিচার নিয়ে ফুডপান্ডা | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় পরিচালিত হবে জীবন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - বিশবছর পূর্তি উদযাপন করলো এরিকসন বাংলাদেশ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - ফেসবুক হ্যাক হওয়া থেকে বাঁচতে পারেন যে উপায়ে | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - স্মার্টফোনে আসছে আরও শক্তিশালী জুম ক্যামেরা | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - বাজারে এল স্যামসাং এর নতুন ফোন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - প্রথম“সিরামিক এক্সপো বাংলাদেশ– ২০১৭” শুরু হচ্ছে ৩০ নভেম্বর |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / নতুন পণ্যে বিমোহিত প্রযুক্তি বিশ্ব
নতুন পণ্যে বিমোহিত প্রযুক্তি বিশ্ব

নতুন পণ্যে বিমোহিত প্রযুক্তি বিশ্ব

গভীর রাতে টাইগার এয়ারওয়েজের ছোট বিমানে উঠে দেখলাম অনেক পরিচিত জন।শিরভাগই যাচ্ছেন সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিতব্য কমিউনিক এশিয়া ২০১২ দেখতে। ঢাকার তথ্যপ্রযুক্তির মিলনমেলার পর সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত কমিউনিক এশিয়াতেই বাংলাদেশিরা বেশি বেশি ভীর করেন নতুন নতুন পণ্য সামগ্রীর চমৎকৃত উদ্ভাবন দেখতে আর প্রবাসী বাংলাদেশী তথ্যপ্রযুক্তি প্রফেশনালদের মিলনমেলায় অংশগ্রহণ করতে।
গত ১৯ জুন থেকে ২২ জুন সিঙ্গাপুরের মেরিনাবে স্যান্ডস ও সানটেক সিটিতে অনুষ্ঠিত হলো এ অঞ্চলের সবচেয়ে আকর্ষণীয় তথ্যপ্রযুক্তি মেলা কমিউনিক এশিয়া/এন্টারপ্রাইজ এশিয়া/ব্রডকাস্ট এশিয়া ২০১২।
communicasia-2009-sexy-samsung-models
কমিউনিক এশিয়া/এন্টারপ্রাইজ এশিয়া
এবারের মেলা অনেক বড় এবং নতুন নতুন প্রযুক্তি পণ্যের সমারোহে সমৃদ্ধ। ৫৬টি দেশসহ ১,৯৫৭টি (৮৩% অভারসিজ) আন্তর্জাতিক মানের প্রতিষ্ঠান  তাদের  নতুন উদ্ভাবিত প্রযুক্তি নিয়ে মেলায় অংশগ্রহণ করেছে। তার মধ্যে কমিউনিক এশিয়ার ৪৩,০০০ স্কয়ার মিটার এলাকাজুড়ে ৪৮টি দেশের ১২১৮টি প্রতিষ্ঠানের  মধ্যে ২০০টিরও বেশি নতুন প্রতিষ্ঠান এসেছিল তাদের পণ্যসামগ্রী নিয়ে। ১৯ জুন উদ্বোধনের পর পর মেলায় প্রবেশ করতে হলো ডেটাবেজ সিস্টেমে নাম পরিচয় এন্ট্রি করে। যদিও আমি প্রি রেজিস্ট্রেশন করেই এসেছিলাম।
মেলায় ঢুকেই বিশাল আয়াতন আর সুদৃশ্য  রঙ-বেরঙয়ের বিশালাকৃতির প্যাভিলিয়ন দেখে এর চমৎকারিত্বে বিমোহিত হয়ে গেলাম। এবারের কমিউনিক এশিয়ায় বেশ কয়েকটি জোনে প্রদর্শকরা তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করছেন। জোনগুলো হলোÑ হট টেকনোলজিস, টেকজোনস, নেক্সট জেনারেশন সার্ভিসেস, এন্টারপ্রাইজ সলিউশন, মোবাইল  ইনোভেশন, ক্লাউড কমপিউটিং, স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন, ক্লাউড ব্রডকাস্টিং, মোবাইল ব্রডকাস্টিং জোন।
মেলায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছে রিভ্ সিস্টেমস ও প্লেক্সষ্টার। রিভ্ সিস্টেম অন্যান্য বছরের চেয়েও বিশাল প্যাভিলিয়ন নিয়ে তাদের উৎপাদিত বিভিন্ন নতুন মোবাইল বায়ালাডসহ অন্যান্য নতুন নতুন পণ্যসামগ্রী যেমন: আইটেল মোবাইল ডায়ালার এক্সপ্রেস, আইটেল কলব্যাক ডায়ালার এক্সপ্রেস, পিন প্রটেক্টর, আইটেল সুইচ প্লাস, কোডেক কনভার্টার, আইটেল পিসি ডায়ালার এবং টেল বিলিং আগ্রহীদের কাছে প্রদর্শন করছে। রিভ্ সিস্টেমসের সিইও রেজাউল হাসান তাদের প্যাভিলিয়নে স্বাগত জানিয়ে বল্লেন, এবার আমরা নবমবার এ মেলায় অংশ নিচ্ছি। আমাদের বিশ্বব্যাপী যে কাস্টমাররা রয়েছেন তাদের অনেকেই এ মেলায় আসেন এবং নতুন পণ্য দেখেন। তাছাড়াও এতদ্বাঞ্চলের অন্যতম আকর্ষণীয় প্রযুক্তি মেলা হওয়ায় এখানে প্রচুর নতুন কাস্টমারও আসেন। তাদের সব ধরনের আগ্রহের জন্য আমরা প্রতিবছরই নতুন নতুন পণ্য ও সেবা নিয়ে মেলায় অংশগ্রহণ করছি। তাদের থেকে আমরা প্রচুর রেসপন্সও পাই।
বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষ প্রতিষ্ঠান রিভ্ সিস্টেম বিশ্বের একটি শীর্ষ পর্যায়ের সফটওয়্যার সলিউশন প্রোভাইডার। যারা এবারের কমিউনিক এশিয়ায় আইপি ডোমেইনকে কেন্দ্র করে  নেটওয়ার্কিং গেট টুগেদার টুডে’র আয়োজন করে।
সিঙ্গাপুরে অনু®িঠত কমিউনিক এশিয়া ২০১২-এর  তৃতীয় দিনে  তাদের এ  আয়োজনে অংশগ্রহণ করে  ১৫০-এরও বেশি লোক যাদের মধ্যে ছিলেন, টেলিকম সার্ভিস প্রোভাইডার, ইন্টারনেট প্রতিষ্ঠানগুলোর ও টাটা কমিউনিকেশনসের রিপ্রেজেন্টিটিভ, বিভিন্ন স্বনামখ্যাত প্রতিষ্ঠানের সিইও এবং বিশ্বেও  টেলিকমিউনিকেশনস শিল্পের স্বনামখ্যাত ব্যক্তিবর্গ। সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনার এইচ.ই কামরুল আহসানও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তাঁর মতে, এ ধরণের বড় কোনো আয়োজনে রিভ সিস্টেম বেশ ভালো করেছে এবং তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য  কমিউনিক এশিয়ায়  বিরাট নেটওয়াকিং পার্টির আয়োজন। ওয়ান এশিয়া, যে প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ শিগগিরই আইজিডব্লিউ নিয়ে তাদের কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে এ প্রতিষ্ঠানের সিইও সিরাজী বলেন, রিভ সিস্টেমের বিশ্বে শীর্ষ অবস্থান আছে এবং সারা বিশ্বব্যাপী তাদের বড় একটি কাস্টমার বেইজ আছে। এ জন্যই বাংলাদেশে আমাদের আইজিডব্লিউ অপারেশনের জন্য তাঁদের বিলিং সলিউশন বেছে নিয়েছি।
নেটওয়ার্কিং গেট টুগেদার এ আসা বাংলাদেশের শীর্ষ আইএসপি অগ্নি সিস্টেমের এমডি মো. আব্দুস সালাম বলেন, গত কয়েকবছর ধরে রিভ্ সিস্টেমের এ সম্মিলনিতে থাকতে পেরে আমার খুবই ভাল লাগে। এটা বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত প্রবাসী বাংলাদেশী তথ্যপ্রযুক্তিবিদের মহামিলনমেলায় পরিণত হয়েছেÑ যা সত্যিই অভূতপূর্ব।
ফ্লোরা টেলিকমের এমডি মোস্তফা রফিকুল ইসলাম ডিউক বলেন, রিভ সিস্টেম বিশ্বে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করছে তাদের আন্তর্জাতিক মানের পণ্য দিয়ে। যা দেশের জন্য গর্বের।
রিভ সিস্টেমের সিইও রেজাউল হাসান বলেন, এখানে দেশের ও প্রবাসী প্রযুক্তিবিদেরা আসেন। তাদের নতুন পণ্য, গবেষণা, উদ্যোগ নিয়ে আলাপচারিতায় সময় কাটানÑ এটাই আমাদের প্রেরণা। আমরা সর্বোতভাবেই দেশের তরুণ প্রোগ্রামারদের জন্য কিছু করতে আগ্রহী। অচিরেই তা দেশবাসী জানতে পারবেন।
প্লেক্সষ্টারের এমডি আনিসুর রহমান কল্লোল জানান যে, তার প্রতিষ্ঠান মেলায় অংশগ্রহণ করেছে কয়েকটি নতুন পণ্য নিয়ে। যেমন:  প্লেক্সষ্টার এডিএম৪০০, প্লেক্সষ্টার ওটিএন ৬৪০০, প্লেক্সষ্টার এক্সসি ১৬০০ ফ্লায়ার, প্লেক্সষ্টার এমএক্স ৫১, প্লেক্সষ্টার এমএক্স ১৫৫ ইত্যাদি। তিনি আরও বলেন যে, গত কয়েক বছর ধরে এ মেলায় অংশ নিয়ে তারা বেশ ভালোই সাড়া পাচ্ছেন গ্রাহকদের কাছ থেকে।
প্রদর্শিত প্রযুক্তির ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে এবারের কমিউনিক এশিয়ায় তা হলো:
* ক্লাউড কমপিউটিং; * ই-গভর্নমেন্ট; * এফটিটিএক্স; * আইপিটিভি; * এলটিই; * মোবাইল ব্রডব্র্যান্ড; * মোবাইল কমার্স অ্যান্ড ইনোভেশনস; * নেক্সট জেনারেশন সার্ভিসেস; * স্যাটেলাইট কমিউনিকেশনস; * স্মার্টফোন অ্যান্ড ডিভাইসেস।
কমিউনিক এশিয়াতে ২০১২-তে বিশ্বের সকল প্রান্ত হতে নিয়ে আসা আকর্ষণীয় সব প্রযুক্তির সমাহার দেখা যায়। যেখানে ২১টি গ্র“প প্যাভিলিয়ন বিভিন্ন শীর্ষ দেশগুলোর নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন ও চমক এক্সিবিশন হলগুলোতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল। অংশগ্রহণকারী ৪৮ টি  দেশের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল অস্ট্রেলিয়া, কোরিয়া, বেলজিয়াম, মালেয়শিয়া, নরওয়ে, কানাড, ফিলিপাইনস, চীন, সিঙ্গাপুর, ফ্র্যান্স, তাইওয়ান, জার্মানী, থাইল্যান্ড, ভারত, ইংল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, আমেরিকা, ইসরাইল ইত্যাদি।
এ আয়োজনে সারা বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে থেকে আসা দক্ষ ও অভিজ্ঞ ১৮০ জন বক্তা আইসিটি শিল্পের বিভিন্ন সমাধানের জন্য করণীয় নিয়ে আগামীর প্রতিনিধিদের অবহিত করেন। এখানে অন্তর্ভুক্ত বিষয় ছিল:
* ক্লাউড কমপিউটিং; * কাস্টমার এক্সপেরিয়েন্স ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড আগ অ্যাগুমেন্টেড রিয়েলিটি; * মোবাইল কমার্স অ্যান্ড মোবাইল পেমেন্ট; * মোবাইল হেলথ; * মোবাইল মার্কেটিং অ্যান্ড মোবাইল অ্যাডভারটাইজিং; * মোবাইল সিকিউরিটি; * মোবাইল ভেলু অ্যাডেড সার্ভিসেস স্ট্রেটেজি; * এম২এম অ্যান্ড দ্য ইন্টারনেট অব থিংস; * নেক্সট জেনারেশন ব্রডব্র্যান্ড; * ওটিটি বিজনেস মডেলস।
কমিউনিক এশিয়ায় প্রধান টেকজোন ৩টি
* ফাইবার ফর নেক্সটজোন সার্ভিসেস টেকজোন: পরবর্তী প্রজšে§ও নেটওয়ার্ক এবং সার্ভিসের জন্য এখানে নতুন নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন ঘটেছিল। এ ছাড়া আধুনিক ফাইবার অপটিকের পণ্য এবং ফাইবার কমিউনিকেশনস ইত্যাদি সম্পর্কে নতুন প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন ও ধারণা দেওয়া হয় এখানে।
* ক্লাউড সার্ভিস অ্যান্ড সিকিউরিটি টেকজোন: ক্লাউড কমপিউটিংয়ের মাধ্যমে একটি বাস্তবসম্মত ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করা হয় এখানে, যেখানে ব্যবসা-বাণিজ্যের মধ্যে আইসিটির বিভিন্ন ধারাকে প্রয়োগ করানো হবে। এখানে ক্লাউড কমপিউটিং বিভিন্ন পণ্যের উৎপাদন বৃদ্ধি এবং উৎপাদন ব্যয় হ্রাসের ক্ষেত্রে কতটুক সহায়ক তা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে।
* এম ২ এম টেকজোন: এশিয়া প্যাসিফিক ২০১৩ এর মধ্যে গ২গ এর মধ্যে বিশ্বে সর্ববৃহৎ মার্কেটে পরিণত হবে এবং আশা করা হচ্ছে ২০১৬ এর মধ্যে মোট বাজারের শতকরা ৩৭ ভাগই দখল করে নিবে এশিয়া। গ২গ মূলত কমিউনিকেশনের ক্ষেত্রে পরবর্তী প্রজšে§ যোগাযোগ বিপ্লব হিসেবে পরিচিত হবে। কমিউনিক এশিয়ায় এবারের আয়োজনে গ২গ টেকজোনে নতুন সব আবিষ্কার, কমিউনিকেশন ও সেবা সম্পর্কে দর্শনার্থীদের অবহিত করা হয়।
এবারের কমিউনিক এশিয়ায় অনেকগুলো নতুন পণ্য প্রথমবারের মতো অবমুক্ত করা হয়েছে। সেগুলো হলো:
অ্যাভার ইনফরমেশনের এইচভিসি ৩৩০
সারা বিশ্বের জন্য প্রথম এ মেলায় অবমুক্ত হয়েছে অ্যাভার ইনফরমেশন অল ইন ওয়ান ভিডিও কনফারেন্সিং সলিউশন। ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের জন্য যা যা করা প্রয়োজন সব সুবিধাই দিবে এ যন্ত্রটি। যে কেউ যন্ত্রটির সঙ্গে নিজের ল্যাপটপ, আইপ্যাড, স্মার্টফোন সংযুক্ত করে সহজেই স্কাইপিতে ভিডিও কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। এটি দর্শকদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়।
উইনম্যাট কমিউনিকেশনের ই৪৩০টি
প্রযুক্তিটি এবার প্রথম সারা বিশ্বের জন্য অবমুক্ত হয়েছে। এ জন্য অপারেটিং সিস্টেম হলো অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেম। ওজন মাত্র ২২০ গ্রাম। ওজনে বেশ হালকা এটি ওয়াই-ফাই, ব্ল–টুথ, জিপিএস এবং থ্রিজি সমর্থন করে। এতে একটি ডুয়াল ক্যামেরার ব্যবস্থাও আছে যাতে ব্যবহারকারী একে অন্যকে দেখে সরাসরি কথা বলার সুবিধা পাবেন।
জেনসোরিয়ামের তিনকি টিএম
সর্বপ্রথম এশিয়ার বাজারে অবমুক্ত হওয়া তিনকি টিএমের সাহায্যে মানুষ রক্তে অক্সিজেনের পরিমাণ নির্ণয়ের পাশাপাশি হার্ট বিট রেট সম্পর্কেও সুস্পষ্ট পরিমাপ করতে পারবে। মূলত: এটি আইফোনের সঙ্গেও সংযুক্ত করে ব্যবহার করা যাবে।
সিকিউর অ্যাজ টেকনোলজির সিকিউর ডেটা
সারা বিশ্বে প্রথমবারের মতো অবমুক্ত করা এ প্রযুক্তি নিরাপত্তার বিষয় নিশ্চিত করে। মূলত: গুরুত্বপূর্ণ তথ্য/ফাইল রক্ষা করার জন্য এতে রয়েছে থ্রিডি ডেটা প্রটেকশন সর্বাধুনিক নিরাপদ প্রযুক্তি। এটি ব্যবহারকারীর তথ্য/ফাইলগুলোকে সব সময়ের জন্য নিরাপদ রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করে। এ প্রযুক্তি কোনো অপরিচিত ম্যালওয়্যারকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাধা দেয় এবং নিষ্ক্রিয় করে ফেলে।
থিঙ্ক কিউবের ক্রোনাস
বিশ্বে প্রথমবারের মতো অবমুক্ত হওয়া থিঙ্ক কিউব প্রধানত ক্লাউড কমপিউটিং সমাধানের জন্য এন্ট্রারপ্রাইজ ও ইউজার লেভেলে ব্যবহƒত হতে পারে। এ পণ্যটির মাধ্যমে ব্যবহারকারী অত্যাধুনিক মানসম্পন্ন ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারবেন। ভবিষ্যতে এটি ওপেনসোর্স পণ্য হিসেবে উন্নত হবে এবং টেকনিক্যাল কমিউনিটির সঙ্গে যুক্ত হবে।
ইন্সপায়ার-টেকের ইজি শেয়ার
বিভিন্ন সরকারি কিংবা বেসরকারি সংস্থাগুলোতে প্রয়োজনে নেটওয়ার্কিং পদ্ধতিতে তথ্য আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে এশিয়ায় প্রথমবারের মতো অবমুক্ত করা এ যন্ত্রটি বেশ কার্যকর হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আইফোন, আইপ্যাড এবং অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর যন্ত্রপাতির পাশাপাশি উইন্ডোজনির্ভর প্লাটফর্মেও তথ্য শেয়ার এবং তথ্যের নিরাপত্তা প্রদানের ক্ষেত্রে যন্ত্রটি  কাজ করবে।
শেনঝেন নিউমি ডিজিটাল টেকের
নিউমি অ্যানড্রয়েড টিভি বক্স
প্রথমবারের মতো এশিয়ায় অবমুক্ত হওয়া নিউমি অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্স হলো একটি এইচডি মিডিয়া প্লেযার, যা অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে কাজ করবে। বড় টিভি পর্দায় সব ধরনের প্রযুক্তিগত সুবিধা সংবলিত এইচডি মুভি দেখার জন্য এইচডিএমআই পোর্টের সঙ্গে যন্ত্রটিকে সংযুক্ত করতে হবে। এটি ২১৬০পি এবং থ্রিডি ইমেজ সমর্থন করে। এ ছাড়া কাস্টমাইজেশনের ক্ষেত্রেও কার্যকর ভূমিকা রাখতে সক্ষম এটি।
ভিডিও প্যানারোমা
এশিয়ায় প্রথমবারের মতো অবমুক্ত হওয়া এ প্রযুক্তির মাধ্যমে অনেকগুলো ভিডিওর সমন্বয় ঘটাতে একটি ঘরকে ডাইনামিকভাবে রূপান্তর করা যাবে। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির জন্য বিনিয়োগ খরচ ও শতকরা ৯০ ভাগ কমে আসবে এবং যেকোনো ব্রডব্যান্ড আইপি নেটওয়ার্কে ব্যবহারের মাধ্যমের্  কম অপারেটিং খরচে সব ধরনের ধরনের কাজ করা সম্ভব হবে।
ক্রাইমসোনলজিকের সিকিউর মেইল বক্স
প্রযুক্তিটি মেইল বক্সের নিশ্চয়তা প্রদানের মাধ্যমে  সরকারী এবং বেসরকারী সংস্থাগুলোতে ই- বিল,ক্রেডিট কার্ডের  ব্যবহার, গুরুত্বপূর্ণ মেইলের আদান প্রদানের ক্ষেত্রে ঝুঁকি মুক্ত থাকার নিশ্চয়তা প্রদান করে। উপস্থিত দর্শনার্থীদের নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর ধারণা দেওয়ার জন্য অন্তর্ভুক্ত বিষয়সমূহ ছিল ক্লাউড কমপিউটিং, মোবাইল পেমেন্টস, মোবাইল হেলথ, মোবাইল সিকিউরিটি ইত্যাদি।
সেমিনার
মেলায় অনেকগুলো সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে তথ্যপ্রযুক্তির বিষয় নিয়ে। মেলার প্রথম দিনেই ইন্দোনেশিয়ার সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠান থুরায়য়া এক সেমিনারে জানায়, তারা মেরিন মার্কেটের জন্য একটি সফটওয়্যার অবমুক্ত করেছে। সফটওয়্যারটি তারা যুগ্মভাবে তৈরি করেছে অ্যাড ভ্যালু কমিউনিকেশনকে নিয়ে। এই সফটওয়্যারটি সমুদ্রে এবং আশপাশে সকল নৌযান এবং সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করবে এবং বিপদ সংকেত জানাবে। এ ছাড়া ব্রডব্র্যান্ড ফোরাম আরেকটি সংবাদ সম্মেলনে তাদের বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত করে।
মেলার তৃতীয় দিন অনুষ্ঠিত হয় তৃতীয় প্রজম্মের ব্রডব্যান্ড ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফোকাস অন এশিয়া বিষয়ভিত্তিক সামিট। এতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আইসিটি প্রতিষ্ঠানের সিইওরা অংশগ্রহণ করেন। সামিটে ইন্টারঅ্যাক্ট গ্র“পের কনসালটেন্ট স্টুয়ার্ট শাহ স্বাগত বক্তব্য দেন। পলিসি রেগুলেশন এবং কম্পিটিশনবিষয়ক কিনোট পেপার উপস্থাপন করেন এজেএইচ কমিউনিকেশনসের প্রিন্সিপাল এন্ড্রিউজে হাইরে।
ব্রডকাস্ট এশিয়া
২০ জুন গেলাম সিঙ্গাপুর শহরের মূল কেন্দ্রের সানটেক সিটিতে। এখানে ৮টি সুবিশাল ভবন রয়েছে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম ও প্রদর্শনীর জন্য। তারই একটি সুবিশাল অট্টালিকার কয়েকটি ফ্লোরে চলছে ব্রডব্যান্ড এশিয়া ২০১২। কমিউনিক এশিয়া মেলাটির মধ্যে প্রতিবারই আরও দুটি মেলা এন্টারপ্রাইজ এশিয়া এবং ব্রডকাস্ট এশিয়া অনুষ্ঠিত হয়। ব্রডকাস্ট এশিয়া এবারে ১৩,২০০ স্কয়ার মিটারের মধ্যে ৪১ টি দেশের প্রায় সাড়ে ৭শ (৮৭% অভারসিজের) প্রদশর্ক নতুন নতুন পণ্য প্রদর্শনের জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে এসেছেন। এখানেও অনেকগুলো দেশের গ্র“প প্যাভিলয়ন দেখা যায়।
ব্রডকাস্ট এশিয়ায় মাল্টি স্ক্রিন প্লাটফর্ম, ক্লাউড ব্রডকাস্টিং, ডিজিটাল মিডিয়ার ব্যবস্থাপনা, ডিভিবি টি ২ এবং ডিজিটাল রেডিওর সর্বশেষ প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন প্রদর্শিত হয়। বিশেষ করে থ্রিজি প্রযুক্তির সম্পাদনা ও রঙের রেজুলেশন, ব্রডকাস্ট অবকাঠামো, মোবাইল ব্রডকাস্টিং এবং সুবিধাসমূহ, প্রো অডিও প্রযুক্তি ও ডিজিটাল অডিও, আইপিটিভি  প্রোডাকশন ও পোস্ট প্রোডাকশন সফটওয়্যার, ডিজিটাল টিভি, ব্রডকাস্টিং নেটওয়ার্কিংয়ের নিরাপত্তা এবং স্যাটেলাইট ট্রান্সমিটারের নতুন নতুন চমৎকারিত্বে উদ্ভাসিত পণ্যসমূহ দেখানো হয়েছে ব্রডকাস্ট এশিয়াতে।
ব্রডকাস্ট এশিয়া ঘুরে দেখলাম আন্তর্জাতিক প্যাভিলিয়নে রয়েছে চীন, ফ্রান্স, জার্মানী, ইটালী, কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, স্পেন, আমেরিকা, কানাডা ও ইউকের  বিশাল বিশাল নব আঙ্গিকের রঙেবেরঙের অভূতপূর্ব সব প্যাভিলিয়ন।
এ মেলায় ৩টি জোনে পণ্য প্রদর্শিত হয়েছে। জোনগুলো হলোÑ সিনেমা টু গ্রাফিক্স জোন, ফিল্ম জোন ও প্রোডাকশন জোন।
মেলায় দর্শকদের এবার সবচেয়ে বেশি নজর কেড়েছে তোশিবার এশিয়ার বাজারের জন্য অবমুক্ত করে  লিকুইড ফুলড ইউএইচএফ সলিড স্প্রেড ডিজিটাল ট্রান্সমিটার।
বিশ্ববিখ্যাত ক্যানন অবমুক্ত করেছে নতুন ডিজিটাল সিনেমা ক্যামেরা ইওএসসি ৫০০। এটির পিক্সেল হলো ৪০৯৬ী২১৬০। এর আরেকটি সুবিধা হলো ইএফ এবং পিএল দুটি একসঙ্গে মাউন্ট করতে পারবে। এর ক্যাপচার রো ৪ কে ভিডিও ফুটেজ এবং এর ফ্রেম হচ্ছে ১২০ এফপিএস। যা আগের চেয়ে অনেকগুণ বেশি দ্রুতগতির এবং নির্ভরযোগ্য।
সনি একটি নতুন ক্যামকোডার অবমুক্ত করেছে, যাতে রয়েছে ১/২.৯ ইঞ্চি সিএমওএস সেন্সর। এর উঁচু মানের এমপিইজি, এইডি ৪২২ রেকর্ডিং সুবিধা রয়েছে। এতে করে রেকর্ডকৃত অনুষ্ঠানাদি অনেক বেশি মানসম্পন্ন ও নিখুঁত হবে।
প্যানাসনিক এনেছে ১০ বিটের সিনেমা রেকর্ডার এজিÑ এইচপি এক্স ৬০০।
এ ছাড়া মেলায় প্রথমবারের মতো অবমুক্ত করা হলো এভি ওয়েস্টের পকেট সাইজের থ্রিজি/ফোরজিÑএলটিই ভিডিও আপলিং পণ্যসমূহ। এটি বিভিন্নি ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকদের পাঠানো খবরগুলো বিভিন্ন শ্রেণী বিভাগ করে কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাতে সক্ষম। ফলে বার্তা সম্পাদককে খবরের শ্রেণী ভাগ করতে হবে না এবং এগুলো সরাসরি অনএয়ারের উপযুক্ত হয়েই তৈরি হয়।
এ ছাড়া এস অ্যান্ড এসসির লিম্পো ইলেকট্রনিকস বিশ্বে প্রথমবারের মতো অবমুক্ত করল এইচডি ট্রান্সমিটার এবং রিসিভার এনপিডি-১২০ টিস/আরএক্স। এটি ব্রডকাস্টিং মার্কেটসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে মাইক্রোওয়েভ সিস্টেমের জন্য যথাযথ মাইক্রোওয়েব লিঙ্ক সরবরাহের সুবিধা দিচ্ছে।
ব্ল্যাকম্যাজিক ডিজাইন একটি নতুন সিনেমা ক্যামেরা এনেছে যেটি প্রতি সেকেন্ডে  ২.৫ কে ইমেজ সেন্সর করতে সক্ষম। ফলে সম্পাদনার জন্য আর রাত জেগে কষ্ট করতে হবে না এটি ব্যবহার করলে।
ব্রডকাস্ট এশিয়াসহ সব মেলাতেই আগ্রহীদেও জন্য প্রতিটি স্টলেই রয়েছে বিভিন্ন শ্রেণীর উপস্থাপক। তারা অত্যন্ত বিনীতভাবে সব শ্রেণীর আগ্রহী দর্শকের নিজেদে পণ্য সম্পর্কে সাবলিল ও সুচারুভাবে ব্যাখ্যা করেন। প্রয়োজনে সময়ও দিয়েছেন প্রচুর।
কমিউনিক এশিয়া ও ব্রডকাস্ট এশিয়ায় ছিল সিঙ্গাপুরের বাইরে থেকে আগত আগ্রহীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা। মেলার মধ্যে প্রায় ২/৩ হাজার বর্গফুট করে জায়গা নিয়ে সাজানো হয়েছে ‘ওভারসিস’ এবং ‘ভিআইপি’ প্যাভিলিয়ন। এগুলোতে দর্শনার্থীরা ও প্রদর্শকেরা প্রয়োজনে মিটিং করেছেন।
২২ জুন ছিল কমিউনিক এশিয়া/এন্টারপ্রাইজ এশিয়া/ব্রডকাস্ট এশিয়ার শেষ দিন। ৪ দিনের মেলায় নিবন্ধিত  দর্শনার্থী সংখ্যা ছিল প্রায় ৪০ হাজার জন। এর মধ্যে শতকরা ৫৮ ভাগ ছিলেন ৫১টি দেশ থেকে আসা তথ্যপ্রযুক্তিবিদ শীর্ষ নির্বাহী এবং টেকনিক্যাল ব্যাক্তিত্বরা।
অত্যাধুনিক মিডিয়া সেন্টার
২টি মেলায়ই অত্যাধুনিক মিডিয়া সেন্টারে দেশ-বিদেশ থেকে আগত সাংবাদিকদের জন্য ছিল ল্যাপটপ, রঙিন প্রিন্টার, ফ্যাক্স এবং ইন্টারনেটে বিশ্বের যেকোনো স্থানে তাৎক্ষণিক খবর পাঠানোর প্রযুক্তিগত সব ধরনের সুবিধা। এখানে যেকোনো প্রকাশিত খবরের যত ইচ্ছা তত প্রিন্ট নেওয়ার সুযোগও ছিল। এ ছাড়া উভয় মেলাতেই সাংবাদিকদের জন্য প্রতিবারের মতো এবারও ছিল বিশাল কনফারেন্স রুমে বসে আলাপ-আলোচনা এবং বিশ্রামের ব্যবস্থা। বিস্তারিত জানতে: িি.িপড়সসঁহরপধংরধ.পড়স/পড়হভবৎবহপব-ঢ়ৎড়মৎধসসব.যঃসষ ঠিকানায়।

 

Comments

comments


Scroll To Top