শিরোনাম

মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের ডিজিটাল পেমেন্ট সার্ভিস ইউপের যাত্রা শুরু | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - হুয়াওয়ে মেট ১০ এ যা আছে | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - শাওমির নতুন ফোন রেডমি ৫এ | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - ফাঁস হয়ে গেল নোকিয়া ৯ এর গোপন সমস্ত তথ্য | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - হ্যাকারদের লক্ষ্য বাংলাদেশসহ অন্যান্য এশিয়ার দেশগুলোর ব্যাংকগুলো | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - এডিএন ইডু সার্ভিসেস এর উদ্দেগে এজাইল বিষয়ক কর্মশলা অনুষ্ঠিত | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - প্রথম ডিজিটাল মার্কেটিং অ্যাওয়ার্ডসে গ্রামীণফোনের ব্যাপক সাফল্য | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - গুগলের এই এয়ারপড হেডফোন যখন ট্রান্সলেটর | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - কম্পিউটার গেমের আসক্তিতে হতে পারে ভয়াবহ পরিণতি | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ওটিসি ড্রাগ বিষয়ে সচেতনতা জরুরি |
প্রথম পাতা / ইন্টারভিউ / নিরাপত্তা নজরদারী পণ্য ও সেবায় শীর্ষ স্থানে হিক ভিশন
নিরাপত্তা নজরদারী পণ্য ও সেবায় শীর্ষ স্থানে হিক ভিশন

নিরাপত্তা নজরদারী পণ্য ও সেবায় শীর্ষ স্থানে হিক ভিশন

hik                                                     হুগো হং, ম্যানেজার সেলস, সাউথইস্ট এশিয়া, হিক ভিশন
বিগত বছরে শীর্ষ স্থানীয় এএনএস ম্যাগাজিনে বিশ্বের নিরাপত্তা নজরদারী পণ্যের তালিকায় হিক ভিশন শীর্ষ স্থানে উঠে এসছে। কোম্পানিটির সাথে সাথে আয় বেড়েছে ৪৩.৬ শতাংশে। সম্প্রতি ঢাকা সফরে এসে কোম্পানিটির সাউথইস্ট এশিয়ার সেলস ম্যানেজার হুগো হং ইত্তেফাকের সাঙ্গে বিশেষ সাক্ষাৎকারে এবিষয়ে হুগো হং জানান, ২০১৩ সালে বাংলাদেশে তাদের একমাত্র পরিবেশক এক্সেল টেকনোলজিস লি.এর মাধ্যমে হিক ভিশনের জন্য বাজারজাতকরণ শুরু হয়। প্রতিবছর দেশে নিরাপত্তা নজরদারী পণ্যের চাহিদা বাড়ছে। দেশে হোম, অফিস ব্যবহারকারীদের পাশাপাশি কর্পোরেট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বেসরকারি এনজিও, সরকারি প্রতিষ্ঠান হিক ভিশনের পণ্য ব্যবহার করছে।

সম্প্রতি বাংলাদেশের হিক ভিশন নিয়ে এসেছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির এইচডিটিভি ওয়ান ক্যামেরা ও ডিভিআর যাতে রয়েছে এইচ২৫৬ নেটওয়ার্ক কমপ্লায়েন্স। সিকিউরিটি পর্যাবেক্ষনে ২৪ ঘন্টা মনিটরে সাধারণ মনিটর বা টিভিগুলো ভাল কাজে আসে না জানিয়ে হুগো হং বলেন, ‘আমরা হিক ভিশন থেকেই ডিসপ্লে দিচ্ছি যাতে করে ভালো সার্ভিস পাবে।’

বাংলাদেশের ক্রেতারা ‘প্রাইস সেনসেটিভ’ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের পণ্যগুলো তৈরি ‘ভেল্যু ফর মানি’ হিসেব করেই।’
বর্তমানের ডিজিটাল এই যুগে এসে সবক্ষেত্রেই ডিজিটাইজেশনের ছোঁয়া লেগেছে। সিকিউরিটি বা নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। বিভিন্ন ক্ষেত্রের সিকিউরিটি সিস্টেম এতদিন পর্যন্ত অ্যানালগ প্রযুক্তিতে পরিচালিত হলেও ডিজিটাল সিকিউরিটি প্রযুক্তি নিরাপত্তার জায়গাকে আরও অনেক বেশি শক্তিশালী করে তুলেছে। এই সিকিউরিটি সিস্টেম নিয়ে যেসব প্রতিষ্ঠান বিশ্বজুড়ে কাজ করে যাচ্ছে, তাদের মধ্যে অন্যতম চীনের হিক ভিশন। বর্তমান বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় সিকিউরিটি কোম্পানি হিসেবে হিক ভিশন বলতে গেলে বিশ্বের সব দেশেই নিজেদের শক্তিশালী অবস্থান গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে। বিশ্বসেরা এই সিকিউরিটি কোম্পানির সিকিউরিটি সলিউশন আমাদের দেশে বাজারজাত হতে শুরু করে ২০১৩ সাল থেকে এক্সেল টেকনোলজিস লি.-এর হাত ধরে।

hikvisionবর্তমানে ডিজিটাল সিকিউরিটি সলিউশন ব্র্যান্ড হিসেবে বিশ্ব বাজারে হিক ভিশনের অবস্থান প্রসঙ্গে জানতে চাইলে হুগো হং বলেন, ‘বর্তমান বিশ্ব বাজারে হিক ভিশন শীর্ষস্থানীয় সিকিউরিটি ব্র্যান্ড হিসেবেই নিজেদের অবস্থানকে ধরে রেখেছে। চীন, থাইল্যান্ড, ভারত, মালয়েশিয়ার মতো অনেক দেশেই এটি সিকিউরিটি ব্র্যান্ড হিসেবে অপ্রতিদ্বন্দ্বীসময়ের সাথে সাথে হিক ভিশনের বাজার প্রসারি হয়ে চলেছে। যেমন গত বছরে চীনে ডহকভিশনের বাজার বেড়েছে শতভাগেরও বেশি। আসলে বর্তমান সময়ে যেভাবে বিশ্বব্যাপী সিকিউরিটি সলিউশনের চাহিদা বাড়ছে, তার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারছে বলেই ডহকভিশন নিজেদের অবস্থানকে ধরে রাখতে পেরেছে।’

hikvision2হিকভিশনের পণ্য ও সেবার ধরণ প্রসঙ্গে হুগো হং বলেন, ‘সিকিউরিটির সাথে সম্পর্কিত সব ধরনের পণ্য ও সেবা নিয়েই কাজ করছে হিকভিশন। আগেকার দিনে নিরাপত্তার জন্য যে অ্যানালগ ক্যামেরা ব্যবহত হতো, তার ডিজিটাইজেশন হিক ভিশনের হাত ধরেই এসেছে। এই সংক্রান্ত উদ্ভাবনের প্যাটেন্টও হিক ভিশনের নামেই রয়েছে। পরবর্তী সময়ে একদম ভোক্তা পর্যায়ের সিকিউরিটি পণ্য থেকে শুরু করে এন্টারপ্রাইজ পর্যায়ের জন্যও প্রয়োজনীয় সিকিউরিটি সলিউশন বাজারে এনেছে ডহকভিশন। শুধু তাই নয়, গোটা একটি শহরকেও সার্ভাইল্যান্স বা সিকিউরিটি নজরদারির আওতায় নিয়ে আসার মতো প্রযুক্তিও হিক ভিশনের রয়েছে। সিঙ্গাপুর সেফ সিটি প্রজেক্ট এরই প্রমাণ। আর অন্যান্য অনেক সিকিউরিটি ব্র্যান্ডই কেবল সিকিউরিটি হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করলেও হিক ভিশন সিকিউরিটির সার্বিক সলিউশন নিয়ে কাজ করে থাকে।’
সিকিউরিটি সলিউশন ব্র্যান্ড হিসেবে বিশ্বব্যাপী অনেক বড় বড় প্রকল্পে সাফল্যের সাথে সেবা প্রদান করেছে হিক ভিশন। বিশ্বব্যাপী সিকিউরিটি সলিউশন সেবার বড় বড় কিছু প্রকল্পের উদাহরণ দিয়ে হুগো হং বলেন, ‘সিঙ্গাপুর সেফ সিটির কথা আগেই বলেছি। এটিই এখন পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে বড় সিটি সার্ভাইল্যান্স প্রজেক্ট। এটি ডহকভিশন সফলভাবেই বাস্তবায়ন করেছে। বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ স্টেডিয়াম চীনের বার্ড’স নেস্টের সিকিউরিটি সলিউশনও ডহকভিশনের। তাছাড়া ২০১৪ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলের সিকিউরিটি সলিউশনের দায়িত্বও সফলভাবে পালন করেছে হিকভিশন। ফলে সিকিউরিটি সলিউশনের ক্ষেত্রে হিকভিশন এখন বিশ্বব্যাপী একটি নির্ভরযোগ্য নামে পরিণত হয়েছে।’

অন্যান্য সিকিউরিটি ব্র্যান্ডের চাইতে কোন দিক থেকে হিক ভিশন এগিয়ে রয়েছে, তা জানতে চাইলে হুগো হং বলেন, ‘আমরা দুইটি বিষয়ে খুব গুরুত্ব দিয়ে থাকি গুণগত মান এবং আর্থিক সাশ্রয়। আমরা সবসময়ই চেষ্টা করেছি যাতে যেকোনো পর্যায়ের গ্রাহকের হাতে তার সামর্থ্যরে মধ্যে সর্বোচ্চ মানের পণ্যটি তুলে দিতে পারি। সে কারণেই সিকিউরিটির জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার নিয়ে আমরা কাজ করেছি। আগেই বলেছি, আমরা টোটাল সিকিউরিটি সলিউশন নিয়ে কাজ করেছি। এটাই অন্যদের থেকে আমাদের বড় একটি পার্থক্য। তাছাড়া আমরা সময়ের চাহিদাকে মাথায় রেখে নিত্যনতুন পণ্য ও সেবা নিয়ে আসছি। চীনে পাঁচটি ভিন্ন ভিন্ন রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আরঅ্যান্ডডি) সেন্টারে চার হাজারেরও বেশি দক্ষ জনবল কাজ করে যাচ্ছে, যা বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ আরঅ্যান্ডডি হিসেবে স্বীকৃত। আরঅ্যান্ডডি সেন্টার আরও বাড়ানোর পরিকল্পনাও আমাদের রয়েছে। এই আরঅ্যান্ডডি সেন্টারগুলো থেকেই আধুনিক সময়ের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ সব সিকিউরিটি পণ্য ও সেবা প্রস্তুত হয়ে আসছে। পণ্য বা সেবার গুণগত মান নিশ্চিত করার সাথে সাথে তারা এগুলোর দামকেও হাতের নাগালে নিয়ে আসার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।’

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top