শিরোনাম

শনিবার, ফেব্রুয়ারী 24, 2018 - কুমিল্লায় আনুষ্ঠানিকভাবে ৪জি চালু করলো গ্রামীণফোন | শনিবার, ফেব্রুয়ারী 24, 2018 - ট্রাভেল বুকিং এ যুক্ত হলেন সাকিব আল হাসান | শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী 23, 2018 - অনলাইন পোর্টালের গুঞ্জনে ক্ষুব্ধ তাসকিন | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - দর্শনার্থী নেই বেসিস সফটএক্সপোতে ! | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - বিসিএস নির্বাচনে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - ২০১৭ সালে রবি’র লোকসান ২৮০ কোটি টাকা | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - বাংলাদেশের গ্রাহকদের জন্য অপো স্মার্টফোনসমূহ ৪জি সেবা দিতে প্রস্তুত | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - বিইউপিবিজিএ-এর বার্ষিক বনভোজন সম্পন্ন | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - উদ্বোধন হলো বেসিস সফটএক্সপো ২০১৮’র | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 22, 2018 - এলো টোটেলিংক এর হাই স্পীড ওয়াইফাই রাউটার |
প্রথম পাতা / অর্থনীতি / পরিবেশ সংরক্ষণে সবুজ ব্যাংকিং
পরিবেশ সংরক্ষণে সবুজ ব্যাংকিং

পরিবেশ সংরক্ষণে সবুজ ব্যাংকিং

উন্নত ব্যাংকিং ব্যবস্থা অর্থনৈতিক উন্নতির সোপান হলেও আমাদেও দেশে ব্যাংকিং ব্যবস্থা এখনও মান্ধাতার আমলের এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই।যদিও বেসরকারী ব্যাংকিং পদ্ধতিতে কিছুটা আধুনিক প্রযুক্তির হাওয়া লেগেছে। আমাদের দেশের ব্যাংকিং সেক্টরে ২০০০ সালের পর প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু হলে অনেকে বলতে শুরু করেছেন যে, ব্যাংকিং খাতে প্রযুক্তির ব্যবহারে বড় ধরণের বিপ্লব ঘটে গেল। আসলে কি তাই। একটি উন্নয়নকামী দেশের ব্যাংকিং পদ্ধতি এমন হতে পারে না।

green banking

 

যারা উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গিয়েছেন তাদের অভিজ্ঞতা থাকার কথা। সে যাই হোক আমরা এগিয়ে যাচ্ছি ধীরে ধীরে হলেও এও বা কম কিসের। বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কাজ শুরু করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় সরকারী ব্যাংকগুলোতেও অটোমেশনের কাজ শুরু হয়ে গেছে। অক্টোবর থেকে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায় চেক ক্লিয়ারিং শুরু হবে। এর পর ক্লিয়ারিংয়ের পরে আসছে ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে তহবিল স্থানান্তর। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়োগ ও দরপত্রের আবেদন প্রক্রিয়া অনলাইনের আওতায় এনেছে। এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সিআইবি অনলাইনের পথে। সরকারী ও বেসরকারী অনেক ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করেছে। আর এর সুফলও পেতে শুরু করেছে গ্রাহক। ব্যাংকিং পদ্ধতিতে যত বেশি প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়বে ততই অর্থনীতি গতিশীল হবে।

গম্প্রতি বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) আয়োজিত ‘সবুজ ব্যাংকিং উদ্যোগ : বাংলাদেশের জন্য সুযোগ’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পিকেএসএফের চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জামান
সবুজ ব্যাংকিং বলতে এমন ব্যাংকিং প্রডাক্ট ও সার্ভিসকে বুঝানো হয়ে থাকে, যা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর নয়। উল্লেখ্য যে, বিশ্বব্যাপী পরিবেশ সংরক্ষণের আন্দোলন শুরু হয়েছে। আবাসন, শিল্পায়নসহ প্রতিটি সেক্টরে পরিবেশ সংরক্ষণের বিষয়ে সোচ্চার হচ্ছে মানুষ। ব্যাংকিং কার্যক্রমেও বিভিন্ন দেশে পরিবেশ নিয়ে কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে। বিশেষ কওে বিশ্বব্যাপী কার্বন নি:সরণ, গ্রিণহাউস গ্যাস, ওজন স্তর হ্রাস, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, পানি দূষণ, নগর দূষণ, নদী দূষণসহ জলবায়ু পরিবর্তনের যে ঝুঁকি সৃষ্টি হয়েছে এর প্রভাব মোকাবিলায় ব্যাংকিং খাতের দায়বদ্ধতা কম নয়। কারণ ব্যাংক শুধুই যে অর্থনৈতিক কার্যক্রমের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে তা কিন্তু নয়। ব্যাংকের রয়েছে সামাজিক দায়বদ্ধতা। সেই দায়বদ্ধতা থেকে গ্রিণ বা সবুজ ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিষয়টি এখন বিশ্বব্যাপী আলোচিত হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নও ড. আতিউর রহমান আরও বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক অচিরেই সবুজ ব্যাংকিংয়ের ওপর নানা পরামর্শ দিয়ে একটি সার্কুলার জারি করবে। বাংলাদেশের ব্যাংকিং সেক্টওে যে পরিবর্তন হচ্ছে তা গ্রীণ ব্যাংকিংয়ের পক্ষে। অনেক ব্যাংক এখন নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে বিনিয়োগ করছে। একটি ব্যাংক হাওর অঞ্চলে সোলার প্যানেলের একটি প্রকল্প শুরু করতে যাচ্ছে। নবায়নযোগ্য জ্বালানির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের পুন:অর্থায়ন তহবিল রয়েছে।
ড. আতিউর রহমান ব্যাংকারদেও প্রতি আহ্বান জানান, ব্যাংকগুলো তাদেও প্রধান কার্যালয়ে সৌরবিদ্যুতের ব্যবহার শুরু করতে পারে। তিনি আরও আশা প্রকাশ করেন, কোন ব্যাংক যখন নতুন শাখা খুলবে সেখানে অন্তত সোলার এনার্জিও ব্যবহার হোক। এখানে উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ ব্যাংকের মূল ভবনে ইতোমধ্যে সৌরবিদ্যুতের আওতায় আনা হয়েছে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ বলেন, পরিবেশ সংরক্ষণের  দায়িত্ব একা সরকারের হতে পাওে না। এর দায়িত্ব আমাদের সবার। পরিবেশ সংরক্ষণে ব্যাংকিং খাতের একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। ব্যাংকগুলো নিজেদের দৈনন্দিন নানাবিধ কার্যক্রমে অপচয় কমাতে পরিবেশবান্ধব বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে পারে। আবার তাদের বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নানা সবুজ উদ্যোগ থাকতে পারে। ব্যাংকগুলো স্বল্পমেয়াদে এবং কম মুনাফায় সবুজায়নে বিনিয়োগ করে পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনে ভূমিকা রাখতে পারে।  তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন আমাদের জন্য একটি মারাত্মক হুমকি। জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি বিবেচনায় আমরা বিশ্বের সবচেয়ে ঝুঁকিপ্রবণ এলাকার অন্যতম। জনসংখ্যা, ভৌগোলিক অবস্থান, দারিদ্র্যÑ সব কিছু মিলিয়ে বাংলাদেশ বড় ধরণের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন কৌশল এবং কর্মপরিকল্পনা তৈরি করেছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় উন্নত বিশ্বে প্রযুক্তি ও অর্থ সহায়তার দরকার রয়েছে।
সবুজ ব্যাংকিং উদ্যোগের জন্য কিছু সুপারিশও করা হয় ‘সবুজ ব্যাংকিং উদ্যোগ : বাংলাদেশের জন্য সুযোগ’ শীর্ষক সেমিনারে। বিশেষ করে সবুজ ব্যাংকিং নীতি প্রণয়ন ও অনুমোদনÑ প্রত্যেক ব্যাংকে আলাদা গ্রিণ ব্যাংকিং ইউনিট স্থাপন, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার মধ্যে পরিবেশ ঝুঁকির বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা প্রভৃতি।
ম  শরীফ নিজাম

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top