শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় র‌্যাংকিং নিয়ে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির সংবাদ সম্মেলন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - বাংলাদেশে ডেলইএমসি এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার চালু | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - চীনে স্কাইপ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - আসছে দুই সিমের আইফোন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের জন্য অসাধারণ অ্যাপ ফেসবুক-এর | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - ইয়োন্ডার মিউজিক বাংলাদেশের এক নম্বর মিউজিক অ্যাপ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - উদিয়মান ব্রান্ড হিসেবে লিনেক্স পেল ‘গ্লোবাল ব্রান্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড ২০১৭’ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - ইউনিক বিজনেস সিস্টেমস লিমিটেড ডিলার সেলিব্রেশন ২০১৭ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - এলো ডেলের নতুন ইন্সপাইরন এন৭৩৭০ ল্যাপটপ | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - আবার স্মার্টফোনে ফিরছে ইন্টেল |
প্রথম পাতা / সাইবার ক্রাইম / ফেসবুক-সেলফোনে পুলিশি সেবা
ফেসবুক-সেলফোনে পুলিশি সেবা

ফেসবুক-সেলফোনে পুলিশি সেবা

ইমদাদুল হকঃ২০ অক্টোবার, রাত ১টা ৫৯। দাড়োয়ান বুঝতে পারেন বাড়িতে ডাকাত এসেছে। মুহূর্তেই খবরটা পৌঁছে দেন বাড়ির মালিকের কাছে। সাথে সাথে দরজা, জানলা বন্ধ আছে কি না- যাচাই করে লাইট অফ করে দেন চারতলা ভবনের মাঝবয়সী কর্তা। পরক্ষণেই পাশেই অরেকটি বাসায় থাকা সহোদরকে ফোন করেন তিনি। অনেকটা কৌতুহল নিয়ে দিন কয়েক আগে ফোনে সেটআপ করা ‘ডিএমপি উত্তরা বাংলাদেশ’ নামের অ্যাপস থেকে কল করলেন টিকটবর্তী থানায়। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে বাসার সিকিউরিটি গার্ডকে সাথে নিয়ে চারতলার ঘরে হাজির হয় একদল টহল পুলিশ। পুরো বাড়িতে তল্লাশী চালায়। ডাকাতের খোঁজে তখন ভয়ে ঘরে সিঁধিয়ে থাকা গৃহকর্তাও তাদের সাথে ছাদে উঠেন।
এটি কোনো ইংলিশ মুভির গল্প নয়। বাংলাদেশের রাজধানী খোদ ঢাকার উত্তরা ৯ নম্বর সেক্টরের। অনেকটা কল্পিত মনে হলেও ঘটনাটি বাস্তব। নিজের ফেসবুক পেজে এই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন শিহাব সিদ্দিকী। শোডাউন টেকনলজির পরিচালক তিনি।
পুলিশের ডিজিটাল সেবা
তাৎক্ষণিক পুলিশি সেবা পেতে টোল ফ্রি নম্বর আলোর মুখ দেখেনি এখনও। তবে ব্যক্তি উদ্যোগে প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ইতিমধ্যেই হাতের মুঠোয় চলে এসেছে পুলিশি সেবা। ’ফেসবুক পেজ’ থেকে সাহায্যের পোস্ট লিখলে কিংবা ফোন করলেই নগরবাসীর সমস্যা জেনে দ্রুততম সময়ে ছুটে যাচ্ছে পুলিশের ’কুইক রেসপন্স টিম’। পুলিশের বিদ্যমান ভাবমর্যাদা ছাপিয়ে ডিজিটাল পদ্ধতিতে বন্ধুর হাত বাড়িয়ে দিয়েছে টিমের সদস্যরা। সেবার ডালি নিয়ে হাজির হচ্ছেন ভূক্তভোগীর দুয়ারে। সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নিয়ে রীতিমতো তাক লাগিয়ে দিয়েছেন নগরবাসীকে। তবে আপাতত এই সুবিধা মিলছে শুধু ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগে।
’পুলিশি সেবাকে হাতের মুঠোয় আনার এ কাজটা শুরু হয়েছিলো ভার্চুয়াল সামাজিক যোগাযোগ প্লাটফর্ম ফেসবুক থেকে’ জানালেন ঢাকা মেটোপলিটন পুলিশের উত্তরা বিভাগের ডেপুটি কমিশনার মো. নিশারুল আরিফ। বললেন, ’থানার সহকারী কমিশনার (পেট্রোল) তাহসিন মাসরুফ হোসেনের উদ্যোগে ফেসবুক থেকে ২৪ ঘণ্টা সেবা দিচ্ছে কুইক রেসপন্স টিম। তার এই উদ্যোগে অভিভূত উত্তরাবাসী। গর্বিত আমরাও।’
শুরু ফেসবুক থেকে
উত্তরাবাসীকে তাৎক্ষণিক সেবা পৌঁছে দিতে গত ৮ সেপ্টেম্বর ফেসবুকে একটি পেজ খুলেন এসি মাসফি। পেজের নাম দেন ‘অংংরংঃধহঃ ঈড়সসরংংরড়হবৎ ড়ভ চড়ষরপব চধঃৎড়ষ টঃঃধৎধ’। এখানে সাহায্যের জন্য ফোন করতে সেলফোন নম্বর দেয়ার পাশাপাশি ফেসবুক পেজের স্ট্যাটাসে উত্তরার বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের পথ বাতলে দিচ্ছেন পেজের অ্যাডমিন এসি মাসফি।
মাসফি জানালেন, পেজ খোলার পরই একের পর এক সাহায্যের বার্তা আসছে। রাত দ্বি-প্রহরেও ফোন বেজে উঠছে সাহায্য চেয়ে। তাই সাহায্য প্রার্থীদের তাৎক্ষণিক সেবা দিতে গঠন করা হয়েছে ’কুইক রেসপন্স টিম’। এখন একজন উপ-পরিদর্শকের নেতৃত্বে এই কুইক রেসপন্স টিমের রয়েছে ১০ জন সদস্য। উত্তরা বিভাগের ছয়টি থানা এবং চারটি ফাঁড়ির মানুষকে পুলিশি সেবা দিতে মিনিট দশেকের মধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাচ্ছে এই দলের সদস্যরা। চারটি মোটর বাইকে করে তারা উত্তরা এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন। সার্বক্ষণিক দায়িত্বের প্রস্তুুতি নিয়ে কাজ করছেন এই টিমের সদস্যরা।
সদস্যদের ত্বরিত সহায়তায় প্রতিদিনই কমবেশি ইতিবাচক কমেন্ট যুক্ত হচ্ছে ফেসবুকের ‘ধপঢ়ধঃৎড়ষঁঃঃধৎধ’ নামের এই ফেসবুক ফ্যান পেজে। ইতিমধ্যেই ওই পেজে লাইক ১৫ শ’ অংকের কোটা। ফিচারটি লেখার দিন পর্যন্ত এর লাইকের সংখ্যা ছিলো ১৭ হাজার ৯৫৯টি। সর্বশেষ স্ট্যাটাস ছিলো আলোচিত ডেটলাইন ২৫ অক্টোবর নিয়ে।
ফেসবুক পেজের স্ট্যাটাসে ’যে কোনো প্রতিকূল পরিস্থিতিতে বিভিন্ন মোবাইল পেট্রল টিমের সমন্বয়ে একটি কুইক রেসপন্স টিম (ছঁরপশ ৎবংঢ়ড়হংব ঞবধস) গঠনের কথা জানিয়ে এসি মাসফি তাদের প্রত্যেকের সেলফোন নম্বর জানিয়ে দিয়েছেন। সাবলীল বাংলায় লিখেছেন, ’২৫ অক্টোবর এবং তদপরবর্তী যে কোনও ধরণের পরিস্থিতি মোকাবেলা করার সম্পুর্ণ প্রস্তুতি আমাদের আছে। কাজেই আপনাদেরকে কোন ধরনের গুজবে বিভ্রান্ত না হতে আমরা বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি। উত্তরা এলাকায় কোনও ব্যক্তি যদি কোন প্রকার নাশকতামূলক কার্যক্রম চালানোর চেষ্টা করে সেক্ষেত্রে তার বিরূদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমাদের কুইক রেস্পন্স টিম ৫ থেকে ১০ মিনিটের মধ্যে উত্তরার যে কোনও এলাকায় সরাসরি পৌঁছে আপনাদেরকে সহায়তা প্রদান করতে সম্পুর্ণ প্রস্তুত। যে কোনও ধরণের বিপদে আপনারা এই টিমের কমান্ডার এস আই রোকনুজ্জামান সাহেবকে(০১৭১১০৬৩১৯৫) ফোন করতে পারেন। ’
তবে এই সুবিধার অপব্যবহার করা হলে অর্থাৎ ’অসত্য/গুরুত্বহীন খবর দিয়ে সরকারী শ্রম ও অর্থ অপব্যয় করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে ফুটনোটে লেখা হয়েছে ’এধরণের অপচেষ্টা কেউ করলে তার মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে আইনগত ব্যবস্থা নিতে আমরা বাধ্য হব।’
অপর একটি স্ট্যাটাসে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সুবিধার্থে উত্তরা জোনের ম্যাপ থানা ও ফাঁড়িওয়ারী দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে দেওয়া হয়েছে প্রত্যেকটি থানার ওসির ফোন নম্বর। অভিনব এই উদ্যোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে এসি মাসফি জানান, উত্তরা এলাকার ছয় লাখ বাসিন্দার মধ্যে অন্তত এক লাখ লোক ফেসবুক ব্যবহার করেন। যেসব মানুষ থানায় এসে পুলিশি সেবা নিতে ভয় পান তাদের ধারণা ভেঙে দিয়ে আস্থা অর্জনের জন্যই এই উদ্যোগ নিয়েছি। উত্তরা বিভাগের উপ-কমিশনার নিশারুল আরিফের সহযোগিতা এবং ডিএমপি কমিশনার বেনজির আহমেদের সম্মতি নিয়ে তিনি এ পুলিশি সেবা দেওয়ার কাজ শুরু করেছি। অতিরিক্ত কোনো বরাদ্দ ছাড়াই আমরা এ কাজটি করে যাচ্ছি।’ তিনি বলেন, শুধু ফেসবুক নয় সেলফোন থেকেও এই সেবা চালু করেছি। এ জন্য ইতিমধ্যেই অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম চালিত স্মার্টফোনের জন্য একটি অ্যাপস উন্নয়ন করা হয়েছে। একেবারেই স্বেচ্ছা প্রণোদিত হয়ে এই অ্যাপসটি উন্নয়ন করেছেন দুই বুয়েটিয়ান ক্যাডেট।

যুথবদ্ধ চার ক্যাডেট
পুলিশি সেবার ধরন এবং এই সংস্থাটির ওপর নাগরিকদের প্রচলিত ধারণা পাল্টে দেয়ার তিন কারিগরই ’এক্স ক্যাডেট।’ এদের মধ্যে উত্তরা থানার এসি তাহসিন মাসরুফ হোসেন পড়েছেন ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজে। আর অ্যাপস নির্র্মাতাদের মধ্যে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার তারিক মাহমুদ ছিলেন বরিশাল ক্যাডেট কলেজের ছাত্র এবং মনসুর হোসেন তন্ময় পড়েছে মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে। এক্সক্যাডেট ফোরামের মাধ্যমেই অভিনব এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে যুথবদ্ধ হন এই তিন দামাল। তাদের নিরলস শ্রম আর নিষ্ঠায় এখন অ্যান্ড্রয়েড ফোন থেকেই মিলছে পুলিশি সহায়তা। আর এ কাজে শুরু থেকেই পাশে ছিলেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উত্তরা বিভাগের ডেপুটি কমিশনার মো. নিশারুল আরিফ। তিনিও ছাত্রজীবন পার করেছেন ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজে।
ডিএমপি উত্তরা ও কারিগরদের কথা
গুগল অ্যাপস্টোর থেকে ’ডিএমপি উত্তরা’ নামে পুলিশি সহায়তার দেশের প্রথম এই অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপসটি বিনামূল্যেই ব্যবহার করতে পারছেন ব্যবহারকারীরা। এর মাধ্যমে সহজেই নিকটবর্তী থানার লোকেশন খুঁজে পাচ্ছেন তারা। প্রয়োজনে যে কোনো সময় এই পুলিশ স্টেশনের ওসি অথবা দায়িত্বরত অফিসারকে সরাসরি ফোন করছেন।’
গত ৮ অক্টোবর অ্যাপসটি সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার তারিক মাহমুদ এবং মনসুর হোসেন তন্ময়। ইতিমধ্যেই কেবল উত্তরা থেকেই ২০০০ জন এই অ্যাপসটি ব্যবহার করছেন বলে জানালেন তারিক মাহমুদ। বললেন, ’প্রতি সাপ্তাহিক ছুটিতে দুই বন্ধু মিলে অ্যাপসটি তৈরি করতে সময় লেগেছে দেড় মাসের মতো। জাভা ল্যাঙ্গুজে ডেভলপ করা এই প্রোগামটির সাথে সন্নিবেশ করা হয়েছে গুগল’র জিপিএস প্রযুক্তি। অ্যাপসটি পুরোনো থেকে শুরু করে হালনাগাদ সংস্করণের সব অ্যান্ড্রয়েড ফোনেই চলবে। নতুন বছরে এর উইন্ডোজ ও আইওএস ভার্সন উপহার দেয়ার আশা করছি।’
অ্যাপসটির কার্যকারিতা সম্পর্কে তারিক মাহমুদ বললেন, অ্যাপসটির সাহায্যে নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনের সঙ্গে যোগাযোগ করার পাশাপাশি রাস্তায় বিপদে-আপদে, আগুন লাগার মতো দুর্ঘটনায় মাত্র এক ক্লিকেই ফোন করতে পারবেন ব্যবহাকারীরা। এ জন্য আর কষ্ট করে থানায় আসতে হবে না। কষ্ট করে পুলিশ স্টেশনের ফোন নম্বর মুখস্ত রাখার প্রয়োজন নেই। ফোন করার অবস্থা না থাকলে খুদেবার্তাও পাঠানো যাবে। তিনি জানান, অ্যাপসটি ব্যবাহার করে বিভিন্ন ধরনের পুলিশি সেবা এবং সেগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে । পাশাপাশি পুলিশকে বিভিন্ন পরামর্শও দেয়া যাবে এই অ্যাপসটির মাধ্যমে।
অ্যাপসটি ব্যবহার করে দেখা গেছে, যে কোনো ধরনের সমস্যায় পুলিশ স্টেশনের কার সাথে কথা বলতে হবে সে নির্দেশনাও রয়েছে অ্যাপটিতে। ঢাকা মেট্রোপলিটান এলাকার যেকোনো প্রান্তে দাঁড়িয়ে নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনের ম্যাপ দেখা যায় এতে। অ্যাপসটির মাধ্যমে জেনে নেয়া যাচ্ছে নিজের অবস্থান থেকে সবচাইতে কাছের পুলিশ স্টেশনে যাবার তে সহজ রাস্তাটিও।
অ্যাপসটি সম্পর্কে উত্তরার এসি মাসরুফ হোসেন বললেন, ‘ইদানীং উত্তরায় হিজরা বিড়ম্বনা বেড়েছে। তাদের যন্ত্রণা থেকে নিস্তার পেতে অ্যাপসটি ব্যবহার করে পুলিশি সহায়তা নিচ্ছেন এই এলাকার মানুষ।’ ‘অ্যাপসটি চালুর পর এক রাতেই ১৪০০ ডিভাস থেকে অ্যাপসটি ডাউনলোড করা হয়েছে’ জানিয়ে তিনি বললেন, ‘সময় যতই গড়াচ্ছে অ্যাপসটি যেনো ততই জনপ্রিয় হতে চলেছে।’ ৫১৬কে সাইজের এই অ্যাপসটি অ্যান্ড্রয়েড ২.২ ভার্সন থেকে হালনাগাদ সংস্করণের ফোনে সচল করা যায় অনায়াসে। ২৪ অক্টোবর অ্যাপসটি সর্বশেষ আপডেট করা হয়।
উত্তরার মডেলে আসছে রমনা
অ্যাপ্লিকেশনটি উন্নয়নের পর পুলিশ কমিশনার বেনজির আহমদের সাথে সাক্ষাত করেছেন। আলাপকালে তথ্য প্রযুক্তির মাধমে ডিএমপি নাগরিক সেবা বাড়াতে উত্তরা বিভাগের মতো অন্যান্য বিভাগেও এ ধরনের সেবা দেওয়ার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন তিনি। এরপর থেকেই উদ্যোগটি আরও একধাপ এগিয়ে নিতে কাজ চালিয়ে যাচেছন তারিক-তন্ময়। আগামী ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই ঢাকা মেট্রপলিটনের বাকি সাতটি থানাকেও এই অ্যাপসের অধীনে আনতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানালেন তন্ময়। বললেন, চলতি সপ্তাহেই ডিএমপিতে আনুষ্ঠানিক একটি প্রস্তাবানা জমা দিতে যাচ্ছি। তবে আমরা বসে নেই চাকরির অবসওে নিয়ম কওে প্রতিসপ্তাহের শনিবার দু’জনে মিলে কাজটি অব্যাহত রেখেছি। ইতিমধ্যেই বেসিক কোডিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে। চলতি মাসেই অ্যাপসটির পরীক্ষামূলক সংস্করণ প্রকাশের লক্ষ্যেই কাজ এগিয়ে চলছে বলে তিনি জানান। রমনা পুলিশ জোনের জন্য এই অ্যাপসটি উন্নয়ন করা হচ্ছে নতুন ওই অ্যাপসে বিদ্যমান সুবিধা ছাড়াও যুক্ত করা হচ্ছে আরও দুইটি সুবিধা। নতুন সংস্করণটি অবমুক্ত হলেই অ্যপসটির মাধ্যমে স্মার্টফোন থেকে সাধারণ ডায়েরি করার পাশাপাশি পথে নিকটবর্তী টহল পুলিশ দলকে সনাক্ত করে তাদের সরাসরি ফোন করতে পারবেন ব্যবহাকারীরা। চলতি পথেও জানতে পারবেন তিনি কোন পুলিশ জোনের মধ্যে আছেন।
নতুন বছরে হাতের মুঠোয়ে আসছে ঢাকামেট্রপলিটন
অ্যাপসটিকে পুরো ঢাকার জন্য সার্বজনীন করতে এবং প্রতিটি থানাকেই এই অ্যাপসের অধীনে আনতে ইতিমধ্যেই একটি প্রস্তাবনা তৈরি করেছে অ্যাপসটির দুই কারিগর। ডিএমপি কমিশানারের কাছ থেকে লিখিত অনুমতি পেলে আরও ব্যবহারবান্ধ করা হবে এই অ্যাপসটি। যুক্ত করা হবে অভিনব কিছু ফিচার। ইংরেজি ভাষার পাশাপাশি এতে সন্নিবেশ করা হবে মাতৃভাষা বাংলা। চেষ্টা চলছে নিরক্ষররা যেন এই অ্যাপসটিকে সহজবোধ্য ’আইকন’ এবং ভয়েস কমান্ড সংযুক্তির ব্যবস্থা নিয়ে। অ্যাপসটিকে যেন এক ক্লিকেই সচল করা যায় সেজন্য ’শর্ট-কি’ সুবিধাও জুড়ে দেয়া হবে এই সংস্করণে।

 

 

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top