শিরোনাম

মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - প্রতিশ্রুতিশীল প্রযুক্তি বিষয়ক স্টার্টআপের খোঁজে সিডস্টারস ওয়ার্ল্ড | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ফেইসবুকে কাউকে বন্ধু করার ক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা জরুরি | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ম্যার্শম্যালো এখনো শীর্ষে | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - দীর্ঘক্ষণ ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে ওয়ালটনের নতুন ফোন | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - হ্যাকারের হানায় ঝুঁকিতে সিক্লিনার ব্যবহারকারীদের ডিভাইস | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল রিয়ালিটি শো “বাংলালিংক নেক্সট টিউবার” | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ড্যফোডিল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের বৃত্তিপ্রাপ্তদের সংবর্ধনা | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - এইচপি’র মাল্টিফাংশন কপিয়ার বাজারে | সোমবার, সেপ্টেম্বর 18, 2017 - টিভি বাংলাদেশ নিয়ে এসেছে সনির আকর্ষণীয় সব নতুন মডেলের টেলিভিশন | সোমবার, সেপ্টেম্বর 18, 2017 - স্মার্টফোনের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে যেসব গ্যাজেট |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে ১৬ কোটি ইউরোর ঋণ দেবে এইচএসবিসি
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে ১৬ কোটি ইউরোর ঋণ দেবে এইচএসবিসি

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে ১৬ কোটি ইউরোর ঋণ দেবে এইচএসবিসি

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের খরচ যোগাতে বহুজাতিক হংকং সাংহাই ব্যাংকের কাছে থেকে ১৫ কোটি ৭০ লাখ ইউরোর ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি।

শুক্রবার বিটিআরসি’র কার্যালয়ে দুই পক্ষের এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ এবং এইচএসবিসি বাংলাদেশের ডেপুটি সিইও মাহবুবুর রহমান।

ঋণ শোধ করার জন্যে সরকার ২০ বছর সময় পাবে। আর ঋণের সুদের হার হবে লন্ডনের আন্ত: ব্যাংকের রেটের চেয়ে ১ দশমিক ৫১ বেশি। বেশ কয়েক মাস থেকেই এই চুক্তি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নানা জটিলতায় বিলম্ব হয়। জুলাইয়ের শেষ দিকে বিটিআরসি সব কিছু চূড়ান্ত করে এ বিষয়ে সরকারের অনুমোদন চাইলে কয়েক দিন আগেই তা পেয়েছে।

এদিকে ঋণ পেতে বিলম্ব হওয়ার কারণে বিটিআরসি স্থানীয় ব্যাংক থেকে প্রায় ৪৩০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে স্যাটেলাইটের নির্মাতা কোম্পানি থ্যালাস অ্যালেনিয়া স্পেসকে তা পরিশোধ করে।

hsbc-banga-bandhuগত বছর নভেম্বরে ফ্রান্সের থ্যালাসের সঙ্গে বিটিআরসি ২৪ দশমিক ৮ কোটি ডলারের চুক্তি হয়। চুক্তি অনুসারে তারা বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের বিভিন্ন অংশ তৈরির কাজ শুরু করেছে। বিভিন্ন দেশে স্যাটেলাইটের বিভিন্ন অংশের কাজ হবে। পরে তা আগামী নভেম্বরে এক সঙ্গে জোড়া দিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা থেকে উৎক্ষেপণ করা হবে।

আগামী বছরের নভেম্বরে বাংলাদেশের স্বপ্নের স্যাটেলাইট বাস্তব রূপ পাবে এবং পরের মাসে বিজয় দিবসে কয়েক টন ওজন নিয়ে তা ছুটে যাবে মহাকাশে।

সব মিলে স্যাটেলাইটটি মহাকাশে ওড়াতে খরচ হবে আড়াই হাজার কোটি টাকার মতো। তবে ২০১৩ সালে ব্যয় হিসাব করা হয়েছিল দুই হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। তবে কাজ শেষে তা কমে আসবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আগামী বছর ১৬ ডিসেম্বর মার্কিন কোম্পানি মহাকাশে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

দুর্যোগপ্রবণ বাংলাদেশে নিরবিচ্ছিন্ন টেলিযোগাযোগ সেবা দিতে ভূমিকা রাখবে এ কৃত্রিম উপগ্রহ। এটি চালু হলে বিদেশি স্যাটেলাইট ছাড়াই দেশের প্রত্যক্ত অঞ্চলে কমমূল্যে সম্প্রচার সেবা দেওয়া যাবে।

এ ছাড়া টেলিমেডিসিন, ই-লার্নিং, ই-গবেষণা, ভিডিও কনফারেন্সিংয়সহ তথ্যপ্রযুক্তির বিভিন্ন খাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এটি।

প্রস্তাবিত স্যাটেলাইটে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার ক্যাপাসিটির মধ্যে ২০টি বিক্রি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা যাবে, যার পুরো বিষয়টি স্যাটেলাইট কোম্পানি দেখবে।

অন্যদিকে বর্তমানে দেশে টিভি চ্যানেল, ইন্টারনেট সেবা দাতা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন কাজে বিদেশি স্যাটেলাইট ব্যবহার করায় বছরে এক কোটি ৪০ লাখ ডলার ব্যয় হয়। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট আকাশে উড়লে এ অর্থ সাশ্রয় হবে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top