শিরোনাম

রবিবার, জুলাই 23, 2017 - ‘স্টাডি ইন ইন্ডিয়া’ এর উদ্বোধন | রবিবার, জুলাই 23, 2017 - শক্তিশালী ব্যাটারির সাশ্রয়ী স্মার্টফোন আনল ওয়ালটন | রবিবার, জুলাই 23, 2017 - তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দক্ষ জনবল তৈরী করছে বর্তমান সরকার -জুনাইদ আহমেদ পলক | রবিবার, জুলাই 23, 2017 - হুয়াওয়ে লাকি ডে | রবিবার, জুলাই 23, 2017 - দারাজে এখন সম্পূর্ণ ইন্টারেস্ট বিহীন ইএমআই পেমেন্ট | শনিবার, জুলাই 22, 2017 - লিংকসীস এর ১৯০০ এমবিপিএস গতির ডুয়াল-ব্যান্ড ওয়্যারলেস রাউটার | শনিবার, জুলাই 22, 2017 - আগামী মাসে স্যামসাং আনছে নতুন ডিভাইস | শনিবার, জুলাই 22, 2017 - আইটি খাতে কর্মসংস্থান আগামী বছর আরও কমবে:নাসকম | শনিবার, জুলাই 22, 2017 - সনির ২৩ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরার স্মার্টফোন | শনিবার, জুলাই 22, 2017 - ঢাকায় অনুষ্ঠিত হলো সিগেট ডিলার মিট |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহার করে না ১৫ কোটি মানুষ: বিশ্বব্যাংক
বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহার করে না ১৫ কোটি মানুষ: বিশ্বব্যাংক

বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহার করে না ১৫ কোটি মানুষ: বিশ্বব্যাংক

Internetবিটিআরসির হিসেব অনুযায়ী  বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যা ৬ কোটি ১২ লাখ ৮৮ হাজার। কিন্তু বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন বলছে দেশে প্রায় ১৪ কোটি ৮০ লাখ লোক ইন্টারনেট সুবিধা পান না। ইন্টারনেট সুবিধাবঞ্চিত জনসংখ্যার দিক থেকে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। এ বিপুলসংখ্যক মানুষকে ‘অফলাইন’ জনগোষ্ঠী হিসেবে চিহিত করা হয়েছে বলে দাবি করছে বিশ্বব্যাংক। প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়, বাংলাদেশে মোবাইল ফোন কলের দাম কম। কিন্তু ইন্টারনেট ব্যয় অনেক বেশি। আইসিটিখাতে ০.৫ শতাংশ কর্মসংস্থান রয়েছে। সোমবার তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের উপস্থিতিতে ঢাকার একটি হোটেলে ‘ওয়ার্ল্ড ডেভলপমেন্ট রিপোর্ট ২০১৬, ডিজিটাল ডিভিডেন্ডস’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিশ্বব্যাংক।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্টারনেট ব্যবহার সুবিধায় সবচেয়ে বঞ্চিত ভারতের জনগণ। সে দেশে ১০৬ কোটি লোকের ইন্টারনেট সুবিধা নেই। বাংলাদেশের ওপরে আরও আছে চীন, ইন্দোনেশিয়া ও পাকিস্তান। তবে প্রতিবেদনে সারা বিশ্বে এক দশকের ব্যবধানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী তিন গুণ বৃদ্ধি পাওয়ার বিষয়টিও উঠে এসেছে। সংস্থাটির হিসাবে, বিশ্বে বর্তমানে ৩২০ কোটি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। প্রতিবেদন তৈরিতে সর্বশেষ ২০১৪ সালের আগস্ট পর্যন্ত সময়ের তথ্য-উপাত্ত ব্যবহার করা হয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৩ কোটি। কিন্তু তাদের সিংহভাগের ইন্টারনেট সুবিধা নেই। এতে আরও বলা হয়েছে, বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তি খাত থেকে যে কর্মসংস্থান হয়, তা বাংলাদেশের মোট কর্মসংস্থানের আধা শতাংশেরও কম। বাংলাদেশে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করার পাশাপাশি কর্মসংস্থান ও সরকারি সেবা নিশ্চিত করতে ডিজিটাল প্রযুক্তির সুবিধা আরও বাড়াতে হবে।

 

প্রতিবেদন প্রকাশের পর ‘বাংলাদেশে ডিজিটাল বিবর্তন’ শীর্ষক একটি প্যানেল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) ভাইস চেয়ারম্যান সাদিক আহমেদের সঞ্চালনায় প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীন অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) কার্যক্রমে ই-সেবা বিভাগের প্রধান আবদুল মান্নান, বেসরকারি ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের সহকারী অধ্যাপক খান মো. আনোয়ারুস সালাম প্রমুখ। প্যানেল আলোচনায় অংশ নিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটবের মহাসচিব টি আই এম নুরুল কবীর বলেন, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি–সম্পর্কিত বিদ্যমান নীতিমালাগুলো এই খাতের এগোনোর জন্য সহায়ক নয়। উচ্চ কর হার এই খাতের বিকাশ ও নতুন বিনিয়োগ আকর্ষণে অন্যতম বাধা।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যার বিষয়টি এরিয়ে যান। তবে এ সময় তিনি বলেন, দেশের সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিতে শিগগিরই ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট (ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন) অনুমোদন দেয়া হবে। এই আইনের খসড়া অনুমোদনের জন্য শিগগিরই মন্ত্রিসভায় পাঠানো হবে। ডিজিটাল ডিভাইস বা প্রযুক্তিগত সরঞ্জাম ব্যবহার করে সংঘটিত যেকোনো ধরনের নেতিবাচক কার্যক্রম আইনের আওতায় আনতে সরকার এ আইন করছে। পলক বলেন, একটা সময় শুধু পোশাক রপ্তানি নিয়ে স্বপ্ন দেখতো বাংলাদেশ। এখন আইসিটি রপ্তানিতেও আমরা অনেক এগিয়ে গেছি। শিগগিরই রপ্তানিতে পোশাক শিল্পের পরই আইসিটির অবস্থান থাকবে।

 

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top