শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, জুলাই 20, 2017 - উইপ্রোর সঙ্গে চুক্তির কথা স্বীকার করল গ্রামীণফোন | বৃহস্পতিবার, জুলাই 20, 2017 - লেনোভোর নতুন আর্কষন – আইডিয়াপ্যাড ৩২০ | বৃহস্পতিবার, জুলাই 20, 2017 - হজ্ব রোমিং প্যাকেজ চালু করল রবি | বৃহস্পতিবার, জুলাই 20, 2017 - অনলাইন প্রশিক্ষণ সেবা চালু করলো ক্রিয়েটিভ-ই-স্কুল | বৃহস্পতিবার, জুলাই 20, 2017 - ল্যাপটপের চার্জ বাড়ানোর উপায় সমূহ | বৃহস্পতিবার, জুলাই 20, 2017 - যেসব তথ্য ফেইসবুকে গোপন রাখা উচিত | বৃহস্পতিবার, জুলাই 20, 2017 - গুগলের মোবাইল সার্চ অ্যাপে পরিবর্তন | বুধবার, জুলাই 19, 2017 - আমারি ঢাকাতে ফ্রাইডে ব্রাঞ্চ | বুধবার, জুলাই 19, 2017 - ঢাকায় বিজনেস ইনোভেশন সামিট ও আইডিয়া চ্যালেঞ্জ | বুধবার, জুলাই 19, 2017 - আসুস নিয়ে এলো বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী গেমিং ল্যাপটপ |
প্রথম পাতা / টেলিকম / বাংলাদেশে টেলিকম খাতে ‘কর’ নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে: জিএসএমএ
বাংলাদেশে টেলিকম খাতে ‘কর’ নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে: জিএসএমএ

বাংলাদেশে টেলিকম খাতে ‘কর’ নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে: জিএসএমএ

mobile-economy-asia-pacific-2016

বাংলাদেশে স্বল্প আয়ের মানুষের মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর ‘কর’ নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। মোবাইলে খরচ বৃদ্ধির ফলে দেশের সাধারণ মানুষ ডিজিটাল প্রযুক্তিগত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়নও পিছিয়ে যাচ্ছে। মোবাইল ফোন অপারেটরদের আন্তর্জাতিক সংগঠন জিএসএমএ-এর ‘মোবাইল ইকোনমি এশিয়া প্যাসিফিক ২০১৬’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদনে এসব তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

বাংলাদেশে বিদ্যমান উচ্চ কর হার একক মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হচ্ছে, আগামী ২০২০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে মোবাইল ফোনের বাজার বৃদ্ধিতে যে সম্ভাবনা রয়েছে, সেটি এই কর বৃদ্ধির ফলে অনিশ্চিতার পথে রয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, একটি দেশে কর নীতি তৈরি করা হয় মূলত দীর্ঘ মেয়াদে সর্বোচ্চ রাজস্ব প্রাপ্তির বিষয়টি বিবেচনা করে। তবে বাংলাদেশে স্বল্প মেয়াদে বেশি কর প্রাপ্তির বিষয়টিকে সরকার গুরুত্ব দিচ্ছে। এসব কর নীতি স্বল্প আয়ের মানুষের মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধিকতা সৃষ্টি করছে। প্রতিবেদনে বাংলাদেশে টেলিকম খাতে মাত্রাতিরিক্ত কর বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের সমালোচনা করা হয়।

প্রতিবেদনে টেলিযোগাযোগ সেবায় কর তুলে নেওয়ার ইতিবাচক প্রভাবের একটি চিত্র তুলে ধরেছে জিএসএমএ। ভিয়েতনামের কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, দেশটিতে ২০১৪ সাল থেকে মোবাইল ফোন আমদানি ও সিম বিক্রির ওপর আরোপিত কর সম্পূর্ণ তুলে দেওয়া হয়। এর এক বছরের ব্যবধানে ভিয়েতনামে স্মার্টফোন ও মোবাইল ফোনে ইন্টারনেটের ব্যবহার ৪৫ শতাংশের বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। কর তুলে দেওয়ায় সাময়িক রাজস্ব আদায়ে ক্ষতি হলেও স্মার্টফোন ও ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটির ডিজিটাল অন্তর্ভুক্তি বাড়ানোর লক্ষ্য অর্জিত হয়েছে।

জিএসএমএর গবেষণায় আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত ও পাকিস্তানে মোবাইল ফোনভিত্তিক আর্থিক লেনদেন-সংক্রান্ত হিসাবের সংখ্যা ২০১৫ সালে ৪৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ সময়ে এজেন্টের মাধ্যমে আর্থিক লেনদেনের প্রবণতা আগের চেয়ে কমে এসেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবমতে, চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত দেশে সক্রিয় মোবাইল ফোনভিত্তিক আর্থিক হিসাবের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ২৮ লাখ। তবে পূর্ণাঙ্গ নীতিমালা ও নিয়ন্ত্রণব্যবস্থার দুর্বলতার কারণে বাংলাদেশের মোবাইল ফোনভিত্তিক আর্থিক লেনদেনের বাজার অনেকটা একতরফাভাবে চলছে বলে মনে করে জিএসএমএ।

জিএসএমএ-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশে ২০১৫ সাল পর্যন্ত একক মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭ কোটি; যা ২০২০ সাল নাগাদ আরও ২ কোটি ৫০ লাখ বৃদ্ধি পেয়ে হবে ৯ কোটি ৫০ লাখ। একই সময়ে বাংলাদেশসহ এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোতে ২০১৫ সাল পর্যন্ত একক মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৫০ কোটি; যা ২০২০ সাল নাগাদ আরও ৬০ কোটি বৃদ্ধি পেয়ে হবে ৩১০ কোটি।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top