শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, এপ্রিল 27, 2017 - ইন্টারনেট ছাড়াই আইপি ক্যামেরা! | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল 27, 2017 - ইন্টারনেটের দাম কমানোর বিষয়ে কাজ করছিঃতারানা | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল 27, 2017 - হিটাচির CP-AX2503 প্রজেক্টর | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল 27, 2017 - ১৫ হাজার টাকায় সিসিটিভি সার্ভেল্যান্স প্যাকেজ | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল 27, 2017 - এফঅ্যান্ডডি’র নতুন পরিবেশক কম্পিউটার সলিউশন ইনক | বুধবার, এপ্রিল 26, 2017 - অ্যান্টি র‌্যানসমওয়্যার ক্রিপটগার্ড প্রযুক্তি আনল সোফস | বুধবার, এপ্রিল 26, 2017 - মোবাইল ফোনের গতি কমে গেলে যা করবেন | বুধবার, এপ্রিল 26, 2017 - ফেসবুকে প্রতারণাঃক্যান্সার রোগী সেজে ২২ লাখ টাকার | রবিবার, এপ্রিল 23, 2017 - দেশের বাজারে হুয়াওয়ে পি১০ ও পি১০ প্লাস উন্মোচন | শুক্রবার, এপ্রিল 21, 2017 - ডিজিটাল রূপান্তরে প্রয়োজন সহজ ডিজিটাল লেনদেন |
প্রথম পাতা / অর্থনীতি / বিটিআরসিকে ৩১৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে রবি
বিটিআরসিকে ৩১৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে রবি

বিটিআরসিকে ৩১৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে রবি

robi-airtel-btrcএকীভূতকরণের ফি এবং চার্জের বড় অংশই নির্ধারিত সময়ের আগে পরিশোধ করে দিল রবি।

রোববার অপারেটরটি বিটিআরসির মোট পাওনা ৪২৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকার মধ্যে ৩১৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে।

একীভূতকরণের ফি ও অন্যান্য চার্জ পরিশোধে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত সময় রয়েছে।

রোববার বিটিআরসি কার্যালয়ে কমিশনের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদের কাছে এই টাকার চেক হস্তান্তর করেন রবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী মাহতাব উদ্দিন আহমেদ।

এ সময় রবি ও বিটিআরসির শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তখন বাকী ১০৮ কোটি ৮৩ লাখ টাকা দুই কিস্তিতে পরিশোধ করার কথা বলেছে রবি।

বিটিআরসি জানায়, রবিকে ১০০ কোটি টাকা একীভূতকরণ ফি আর ৩০৭ কোটি টাকা এয়ারটেলের স্পেকট্রাম নেয়ার ফি হিসেবে মোট ৪০৭ কোটি টাকা যা ভ্যাট-ট্যাক্স মিলে  ৪২৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকা পরিশোধ করতে বলা হয়েছে ।

১৮০০ ব্যান্ডে এয়ারটেলের ১০ মেগাহার্ডজ স্পেকট্রাম নিয়েছে রবি। আর এর জন্যেই তাদেরকে এই টাকা পরিশোধ করতে হল।
এই স্পেকট্রামের আরও চার বছর মেয়াদ আছে। কিন্তু যেহেতু ২০০৫ সালে অনেক কম দামে তখনকার ওয়ারিদ এই স্পেকট্রাম কিনেছিল তাই ২০১১ সালের সঙ্গে মূল্য সমন্বয় হিসেবেই বিটিআরসি বাড়তি টাকা চার্জ করল।

তবে ২১০০ ব্যান্ডে থাকা পাঁচ মেগাহার্ডজের জন্য অপারেটরটিকে কোনো টাকা পরিশাধ করতে হয়নি। কারণ ২০১৩ সালে সব অপারেটরই মূলত তৃতীয় প্রজন্মের সেবা দেওয়ার জন্যে একই মূল্যে এই স্পেকট্রাম কিনেছিল। ফলে এর জন্য আর বাড়তি চার্জ করেনি বিটিআরসি।

অন্যদিকে ৯০০ ব্যান্ডে থাকা এয়ারটেলের পাঁচ মেগাহার্ডজ স্পেকট্রাম বিটিআরসি নতুন একীভূত কোম্পানিকে দেয়নি। এই স্পেকট্রাম তারা ফেরত নিয়ে নিচ্ছে।

ইতোমধ্যে দুই অপারেটরের ব্যবস্থাপনা, বিপনন এবং অন্যান্য সব একীভূত করা হয়েছে।  এখন স্পেকট্রাম একীভূতিকরণের কাজ শুরু করবে তারা।

তবে সেবা একীভূতকরণের জন্যে তাদের আরও প্রায় বছর খানেক লেগে যাবে বলে জানা গেছে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top