শিরোনাম

মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - প্রতিশ্রুতিশীল প্রযুক্তি বিষয়ক স্টার্টআপের খোঁজে সিডস্টারস ওয়ার্ল্ড | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ফেইসবুকে কাউকে বন্ধু করার ক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা জরুরি | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ম্যার্শম্যালো এখনো শীর্ষে | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - দীর্ঘক্ষণ ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে ওয়ালটনের নতুন ফোন | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - হ্যাকারের হানায় ঝুঁকিতে সিক্লিনার ব্যবহারকারীদের ডিভাইস | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল রিয়ালিটি শো “বাংলালিংক নেক্সট টিউবার” | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ড্যফোডিল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের বৃত্তিপ্রাপ্তদের সংবর্ধনা | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - এইচপি’র মাল্টিফাংশন কপিয়ার বাজারে | সোমবার, সেপ্টেম্বর 18, 2017 - টিভি বাংলাদেশ নিয়ে এসেছে সনির আকর্ষণীয় সব নতুন মডেলের টেলিভিশন | সোমবার, সেপ্টেম্বর 18, 2017 - স্মার্টফোনের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে যেসব গ্যাজেট |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / মহাকাশ গবেষণায় নতুন প্রকল্প ‘ব্রেকথ্রু স্টারশট’
মহাকাশ গবেষণায় নতুন প্রকল্প ‘ব্রেকথ্রু স্টারশট’

মহাকাশ গবেষণায় নতুন প্রকল্প ‘ব্রেকথ্রু স্টারশট’

breakthrough-starshot

মহাকাশের গভীর থেকে আরও গভীরে কী আছে তা নিয়ে প্রতিনিয়ত চলছে নানা গবেষণা। এ গবেশনায় নতুন মাত্রা দিতে বিশ্বখ্যাত পদার্থবিদ স্টিফেন হকিং, ফেসবুকের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ এবং রুশ উদ্যোক্তা ইউরি মিলনার ‘ব্রেকথ্রু স্টারশট’ নামের একটি নতুন মহাকাশ গবেষণার প্রকল্প চালুর ঘোষণা দিয়েছেন। এই প্রকল্পের বিষয়ে স্টিফেন হকিং বলেন, ‘মহাজগতের আরও রহস্য উন্মোচন করতে আমরা আমাদের পরবর্তী মহাপদক্ষেপ নিতে যাচ্ছি। কারণ আমরা মানুষ এবং উড়ে বেড়ানো আমাদের স্বভাব।’মহাকাশ

সবচেয়ে কাছের সৌরমণ্ডল ‘আলফা সেন্টাউরি’-তে অনুসন্ধান চালানোর জন্য ১০ কোটি ডলারের ‘ন্যানোক্রাফট’ বানানোর এক প্রকল্প হাতে নিয়েছেন তারা। নাসার অ্যামস রিসার্চ সেন্টারের সাবেক পরিচালক পিট অরডেনকে প্রধান করে এই প্রকল্পে কাজ করছেন বিশ্বের সেরা বিজ্ঞানী ও প্রকৌশলীরা। এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য হলো মাত্র কয়েক গ্রাম ওজনের শত শত ক্ষুদ্রাকায় মহাকাশ যান তৈরি করা যাতে থাকবে ক্যামেরা, ফোটন ট্রাস্টারস, পাওয়ার সাপ্লাই, দিকনির্দেশক এবং যোগাযোগের যন্ত্র। একটি রকেটের মাধ্যমে একে আকাশে ছুড়ে দেওয়া হবে। তারপর পৃথিবী থেকে শক্তিশালী আলোকরশ্মি পাঠিয়ে এর বেগ ঘণ্টায় ১০ কোটি মাইলে রূপান্তর করা হবে। এই গতি আলোর চেয়েও ২০ শতাংশ বেশি এবং এখনকার যেকোনো মহাকাশ যানের চেয়ে বেশি।

ক্ষুদ্র মহাকাশ যানগুলো যাবে আলফা সেন্টাউরি, সেখান থেকে ছবি এবং তথ্য সংগ্রহ করে পৃথিবীতে পাঠাবে। গবেষকেরা মনে করছেন, গন্তব্যে পৌঁছাতে সময় লাগবে ২০ বছরের মতো। মিলনারের মতে, এই প্রকল্পে সব মিলিয়ে এক হাজার কোটি ডলারের মতো খরচ হতে পারে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top