শিরোনাম

মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের ডিজিটাল পেমেন্ট সার্ভিস ইউপের যাত্রা শুরু | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - হুয়াওয়ে মেট ১০ এ যা আছে | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - শাওমির নতুন ফোন রেডমি ৫এ | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - ফাঁস হয়ে গেল নোকিয়া ৯ এর গোপন সমস্ত তথ্য | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - হ্যাকারদের লক্ষ্য বাংলাদেশসহ অন্যান্য এশিয়ার দেশগুলোর ব্যাংকগুলো | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - এডিএন ইডু সার্ভিসেস এর উদ্দেগে এজাইল বিষয়ক কর্মশলা অনুষ্ঠিত | মঙ্গলবার, অক্টোবর 17, 2017 - প্রথম ডিজিটাল মার্কেটিং অ্যাওয়ার্ডসে গ্রামীণফোনের ব্যাপক সাফল্য | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - গুগলের এই এয়ারপড হেডফোন যখন ট্রান্সলেটর | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - কম্পিউটার গেমের আসক্তিতে হতে পারে ভয়াবহ পরিণতি | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ওটিসি ড্রাগ বিষয়ে সচেতনতা জরুরি |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / মোবাইল অপারেটরদের বাহারি প্যাকেজের অনুমোদন স্থগিত!
মোবাইল অপারেটরদের বাহারি প্যাকেজের অনুমোদন স্থগিত!

মোবাইল অপারেটরদের বাহারি প্যাকেজের অনুমোদন স্থগিত!

mobile-pachageভয়েস ও ডাটাভিত্তিক সেবার জন্য প্রত্যেক সেলফোন অপারেটরেরই একাধিক প্যাকেজ বিদ্যমান। প্রয়োজনাতিরিক্ত এসব প্যাকেজে এমনিতেই বিভ্রান্ত গ্রাহকরা। এর পরও নানা সুযোগ-সুবিধার কথা বলে আরো নতুন প্যাকেজ চালু করছে অপারেটররা। গ্রাহক ভোগান্তির বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অপারেটরদের নতুন প্যাকেজের অনুমোদন দেয়া স্থগিত করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

গত বছরের সেলফোন সেবা নিয়ে গ্রাহকদের অভিযোগ ও মতামত জানতে প্রথমবারের মতো গণশুনানি আয়োজন করে বিটিআরসি। এতে অপারেটরদের একই সেবার প্রয়োজনাতিরিক্ত প্যাকেজের বিষয়ে অভিযোগ করেন গ্রাহকরা। এর পরিপ্রেক্ষিতে সেলফোন অপারেটরদের নতুন প্যাকেজের অনুমোদন স্থগিত রেখেছে কমিশন।

জানা গেছে, অপারেটরদের আবেদনের ভিত্তিতে বিভিন্ন প্যাকেজের অনুমোদন দেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা। চলতি বছরের জুনের মাঝামাঝি সময় থেকে অপারেটরদের নতুন প্যাকেজের অনুমোদন দিচ্ছে না সংস্থাটি। এ সময়ে বিটিআরসির কাছে শীর্ষ তিন অপারেটরের ২০টিরও বেশি প্যাকেজের আবেদন জমা পড়েছে। এসব আবেদনের কোনোটিই অনুমোদন করেনি কমিশন।

বিটিআরসির ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা এ প্রসঙ্গে বলেন, গণশুনানিতে অপারেটরদের অতিরিক্ত প্যাকেজ থাকায় গ্রাহকদের বিভ্রান্তির বিষয়টি তুলে ধরা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্যাকেজের সংখ্যা কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। যৌক্তিক সুযোগ-সুবিধা ছাড়া একই ধরনের একাধিক প্যাকেজ বন্ধ করতে এমন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ভয়েস কলের ক্ষেত্রে পালস ও কলরেটের ভিত্তিতে অপারেটরদের বিভিন্ন নামের প্যাকেজ চালু রয়েছে। এছাড়া ডাটাভিত্তিক সেবার জন্য ডাটা ভলিউম ও মেয়াদ বিবেচনায় আলাদা আলাদা প্যাকেজ রয়েছে অপারেটরদের।

গ্রাহকদের অভিযোগ, একই ধরনের অনেক প্যাকেজ চালু করলেও তার মধ্যে নিজের প্রয়োজনীয় প্যাকেজটি পাওয়া যায় না। ফলে   বিভ্রান্তিতে পড়ছেন তারা।

উল্লেখ্য, প্রায় ১ হাজার ৩০০ জন আবেদন করলেও শুনানিতে ডাকা হয় চার শতাধিক আবেদনকারীকে। বিকাল পৌনে ৪টা থেকে সাড়ে ৫টা পর্যন্ত গণশুনানিতে অংশ নেন গণমাধ্যমকর্মীসহ বিভিন্ন পেশার প্রায় ২০০ গ্রাহক। এর মধ্যে সরাসরি অভিযোগ জানানোর সুযোগ পান ৩৪ জন। অপারেটরদের কল ও ডাটার মূল্য কমানো, গ্রাহক প্রতারণা ও হয়রানি বন্ধ, অযাচিত এসএমএস প্রদান বন্ধ করাসহ নেটওয়ার্ক সেবার মানোন্নয়নের দাবি জানান অধিকাংশই।

গণশুনানিতে সেলফোন অপারেটরদের কল ড্রপ ও বিভিন্ন প্যাকেজের (ভয়েস ডাটা, বান্ডেল) মূল্য সম্পর্কে অভিযোগ ছাড়াও বায়োমেট্রিক সিম, সাইবার অপরাধ, সেলফোনে হুমকি, ফেসবুক ব্যবহার নিরাপত্তাসহ সেলফোন সেবাসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন গ্রাহকরা।

সুত্র ঃবণিক বার্তা

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top