শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় র‌্যাংকিং নিয়ে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির সংবাদ সম্মেলন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - বাংলাদেশে ডেলইএমসি এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার চালু | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - চীনে স্কাইপ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - আসছে দুই সিমের আইফোন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের জন্য অসাধারণ অ্যাপ ফেসবুক-এর | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - ইয়োন্ডার মিউজিক বাংলাদেশের এক নম্বর মিউজিক অ্যাপ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - উদিয়মান ব্রান্ড হিসেবে লিনেক্স পেল ‘গ্লোবাল ব্রান্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড ২০১৭’ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - ইউনিক বিজনেস সিস্টেমস লিমিটেড ডিলার সেলিব্রেশন ২০১৭ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 23, 2017 - এলো ডেলের নতুন ইন্সপাইরন এন৭৩৭০ ল্যাপটপ | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - আবার স্মার্টফোনে ফিরছে ইন্টেল |
প্রথম পাতা / অর্থনীতি / মোবাইল ব্যাংকিং / মোবাইল ব্যাংকিং: তিন বছরে এক কোটি গ্রাহক
মোবাইল ব্যাংকিং: তিন বছরে এক কোটি গ্রাহক

মোবাইল ব্যাংকিং: তিন বছরে এক কোটি গ্রাহক

এক কোটি ছাড়িয়েছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক। সাত মাসের ব্যবধানে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে এই গ্রাহক সংখ্যা। সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়। বাংলাদেশ ব্যাংকের ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সোমবার মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটি দুই লাখ ৩৫ হাজারে, গত এপ্রিলে যা ছিল ৫০ লাখ।

mobile-banking

এতে আরও বলা হয়, মূলত প্রবাসীদের কষ্টার্জিত অর্থ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাসরত গ্রাহকদের কাছে দ্রুত পৌঁছানোর লক্ষ্যে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস তথা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের যাত্রা শুরু হয় তিন বছর আগে। এরই মধ্যে এই সেবায় অর্থ পাঠানো, জমা ও উত্তোলন, বেতন ভাতা প্রদান, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ এবং মার্চেন্ট পেমেন্ট ইত্যাদি কার্যক্রমও চলছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিভিন্ন দেশে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা অনেক আগেই প্রচলিত। কিন্তু বাংলাদেশে ২০১০ সালে এই সেবা কার্যক্রম শুরু হয়। এ পর্যন্ত বাংলাদেশ ব্যাংক ২৮টি ব্যাংককে এ সেবা প্রদানের অনাপত্তি দিয়েছে। এর মধ্যে ১৯টি ব্যাংক ইতিমধ্যে এ সেবা চালু করেছে। ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ‘বিকাশ’ এবং ডাচ-বাংলা ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রদানে এগিয়ে রয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের মাধ্যমে লেনদেনের বিষয়ে জনগণের মধ্যে আগ্রহ ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত সেপ্টেম্বরে এ সেবা গ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল ৮৯ লাখ ৩০ হাজার, যা অক্টোবরে দাঁড়িয়েছে ৯৯ লাখ ৮০ হাজারে। এই হিসাবে এক মাসে গ্রাহক বৃদ্ধির মাসিক হার প্রায় ১১.৭৯ শতাংশ। অক্টোবরে মোট লেনদেনের সংখ্যা ছিল দুই কোটি ৩৬ লাখ, যার পরিমাণ পাঁচ হাজার ৯৬ কোটি টাকা।

মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের মধ্যে গ্রাহকদের পছন্দের সেবাগুলোর মধ্যে রয়েছে অর্থ স্থানান্তর (পিটুপি), নগদ জমা (ক্যাশ ইন) এবং নগদ উত্তোলন (ক্যাশ আউট)। এই সেবার মাধ্যমে অক্টোবরে নগদ জমা হয়েছে দুই হাজার ১৬৪ কোটি টাকা, নগদ উত্তোলন হয়েছে এক হাজার ৯৯৫ কোটি টাকা এবং স্থানান্তর হয়েছে ৭৭৮ কোটি টাকা। একই সঙ্গে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস ব্যবহার করে বেতন ভাতা প্রদান ও ইউটিলিটি বিল পরিশোধের পরিমাণও বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top