শিরোনাম

বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - ৫০০০মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি সহ বাজারে আসতে চলেছে নোকিয়া’র নতুন ফোন | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - অনলাইন শপিংয়ে সিম কার্ড | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - রেকর্ড গড়ছে বিটকয়েন | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - প্রধানমন্ত্রীর নিকট অ্যাসোসিও ডিজিটাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড হস্তান্তর | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - ‘ডাকছে থাইল্যান্ড’ নামে মেগা ক্যাম্পেইন রবি’র | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - ডিজিটালাইজেশনে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংকগুলো এখনো পিছিয়ে | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - ভলভোর ২৪,০০০ গাড়ি কিনছে উবার | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - হোয়াটসঅ্যাপে নতুন ফিচার | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - গ্রাহকদের সেবায় চালু হলো D-Link সার্ভিস সেন্টার | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - এবার নিজস্ব প্রসেসর নিয়ে আসছে অ্যাপল ম্যাক |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ম্যাসেঞ্জার, ইমো বিটিআরসির আয় কমাচ্ছে
ম্যাসেঞ্জার, ইমো বিটিআরসির আয় কমাচ্ছে

ম্যাসেঞ্জার, ইমো বিটিআরসির আয় কমাচ্ছে

btrcহোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার , ইমো, ম্যাসেঞ্জারসহ সামাজিক যোগাযোগের অন্যান্য অ্যপ্লিকেশনের ব্যবহার যতো বাড়ছে, ততই টেলিকম খাত থেকে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের রাজস্ব কমছে।গত ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বিটিআরসির কোষাগারে জমা পড়েছে তিন হাজার ৭৫৪ কোটি টাকা, যা গত ছয় বছরের মধ্যে সর্বনিন্ম। আগের বছরেও যা ছিল চার হাজার ২০৮ কোটি টাকা। মূলত টেলিফোন কল থেকে আয়ের অংশ কমে যাওয়ার প্রভাব পড়েছে এতে।

শুধু রাজস্ব ভাগাভাগির জায়গাতেই আগের বছরের তুলনায় গত অর্থবছরে ৯০৬ কোটি টাকা কমেছে। আগের বছরে যেখানে আয় ভাগাভাগি থেকে বিটিআরসি পেয়েছিল তিন হাজার ৩৬১ কোটি টাকা, সেখানে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে সেটা নেমে এসেছে দুই হাজার ৪৫৫ কোটি টাকায়।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, আন্তর্জাতিক যোগাযোগ বিশেষ করে টেলিফোন কলের ক্ষেত্রে আগের চেয়ে অনেক বেশি ব্যবহার হচ্ছে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনগুলো। সে কারণে এই খাত থেকে বিটিআরসির আয়ের অংশ কমে গেছে।

বর্তমান নিয়মানুসারেও আন্তর্জাতিক ফোন কলের আয় থেকে ৪০ শতাংশ সরাসরি বিটিআরসির কোষাগারে জমা হয়।অন্যদিকে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের ব্যবহারের ক্ষেত্রে স্থানীয় যোগাযোগেও বড় রকমের প্রভাব পড়ছে। যে কারণে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর আয় থেকে বিটিআরসি যে সাড়ে পাঁচ শতাংশ রাজস্ব আসতে, সেটিতেও ঘাটতি দেখা দিয়েছে বলে বলছেন, এক কর্মকর্তা।

তবে গত অর্থবছরে রবি ও এয়ারটেলের একীভূতিকরণ সম্পন্ন হওয়ায় এক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বড় অংকের টাকা পেয়েছে। তারপরেও সংস্থাটি সরকারের দেওয়া চার হাজার ২০৬ কোটি টাকা আয়ের লক্ষ্য পূরণ করতে পারেনি।এর আগে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বিটিআরসির রাজস্বের পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ২১৯ কোটি টাকা। আর সংস্থার ইতিহাসে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ আয় হয়েছে ১০ হাজার ৮৫ কোটি টাকা। সেবার মূলত টুজি লাইসেন্স নবায়নের এক কিস্তির টাকা এবং থ্রিজি স্পেকট্রামের নিলামের কারণেই এতো বেশি আয় হয়েছিল।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top