শিরোনাম

সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - গুগলের এই এয়ারপড হেডফোন যখন ট্রান্সলেটর | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - কম্পিউটার গেমের আসক্তিতে হতে পারে ভয়াবহ পরিণতি | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ওটিসি ড্রাগ বিষয়ে সচেতনতা জরুরি | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ইউরোপ ও আমেরিকায় মেডিক্যাল পড়াশোনা | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ইউরোপ সাইপ্রাসে পড়াশোনা ও কাজ | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - আসুসের নতুন অষ্টম প্রজন্মের মাদারর্বোড বাজারে | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ক্লাউড কম্পিউটিং মেলায় অংশ গ্রহন করছে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল | রবিবার, অক্টোবর 15, 2017 - পাতায়া ভ্রমনের স্বপ্ন পূরণ | রবিবার, অক্টোবর 15, 2017 - বৃৃটিশ কাউন্সিল আয়োজিত বই পড়া প্রতিযোগিতার চুড়ান্ত পরীক্ষা সম্পন্ন | রবিবার, অক্টোবর 15, 2017 - ঢাকায় অনুষ্ঠিত হলো ডিজিটাল মার্কেটিং সামিট ও অ্যাওয়ার্ড ২০১৭ |
প্রথম পাতা / অফবিট / যে সব রিফারবিশড ইলেকট্রনিক পণ্য কেনা উচিত নয়
যে সব রিফারবিশড ইলেকট্রনিক পণ্য কেনা উচিত নয়

যে সব রিফারবিশড ইলেকট্রনিক পণ্য কেনা উচিত নয়

electronicsঅনেকেই রিফারবিশড প্রযুক্তি পণ্য কিনতে আগ্রহী থাকেন। প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ফ্ল্যাগশিপ পণ্যের ত্রুটি থাকায় সেগুলো সারিয়ে কমমূল্যে বিক্রি করে থাকে। আর যাদের ফ্রেশ পণ্যটি অধিক দামে কেনার সামর্থ্য থাকে না কিন্তু ওই পণ্যটি ভালো লাগে তারাই রিফারবিশদ ইলেকট্রনিক ডিভাইস কিনে থাকেন।

২০১১ সালের এক জরিপে দেখা গেছে ত্রুটির কারণে শুধুমাত্র ৫ শতাংশ প্রযুক্তি ফেরত নিতে হয়। আর ত্রুটিপুর্ন ডিভাইস প্রতিষ্ঠান ফেরত নিয়ে রিপেয়ার করে পুনরায় অপেক্ষাকৃত কমমূল্যে বিক্রি করে থাকে। আর প্রযুক্তি বিষয়ক সাইট সিনেট এমন কয়েকটি পন্যের কথা বলছে যেগুলো রিফারবিশড কেনা উচিত নয়।

  • হার্ড ড্রাইভ
  • মোবাইল ফোন। (উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, রিফারবিশড আইফোনে আপনি পুরোনো ব্যাটারি পাচ্ছেন। কেননা এই ফোনের ব্যাটারি নন-রিমুভ্যাবল। তাই ত্রুটি সারালেও দেখা যায়, ব্যাটারি ব্যবহৃত অবস্থায়ই রয়েছে। )
  • প্রিন্টার
  • এবং টিভি

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top