শিরোনাম

শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধিতে একত্রে কাজ করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও এটুআই | শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে রবি’র ক্যারিয়ার কার্নিভাল | শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - ‘শান্তি’র জন্য প্রযুক্তি পরিচয়ের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত | শনিবার, নভেম্বর 18, 2017 - নতুন ফিচার নিয়ে ফুডপান্ডা | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় পরিচালিত হবে জীবন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - বিশবছর পূর্তি উদযাপন করলো এরিকসন বাংলাদেশ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - ফেসবুক হ্যাক হওয়া থেকে বাঁচতে পারেন যে উপায়ে | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - স্মার্টফোনে আসছে আরও শক্তিশালী জুম ক্যামেরা | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - বাজারে এল স্যামসাং এর নতুন ফোন | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 16, 2017 - প্রথম“সিরামিক এক্সপো বাংলাদেশ– ২০১৭” শুরু হচ্ছে ৩০ নভেম্বর |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / ল্যাপটপের বাজারে শীর্ষে যেতে চায় ফুজিৎসু

ল্যাপটপের বাজারে শীর্ষে যেতে চায় ফুজিৎসু

ল্যাপটপ আর নোটবুকের নতুন সংস্করণ হিসেবে ইন্টেল ‘আল্ট্রাবুক’ প্রোটোটাইপের ধারণা প্রদর্শনের পরেই এখন বড় বড় সব ল্যাপটপ ও নোটবুক নির্মাতারাই এখন ‘আল্ট্রাবুক’ তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। ব্যতিক্রম নয় ফুজিৎসুও। ইতিমধ্যেই তারা বিশ্ববাজারে অবমুক্ত করেছে তাদের আল্ট্রাবুক। এবার দেশের বাজারেও তারা প্রদর্শন করল এই নতুন আল্ট্রাবুক। বাংলাদেশের বাজারে ফুজিৎসু’র একমাত্র পরিবেশক কম্পিউটার সোর্স আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ফুজিৎসু’র কয়েকটি মডেলের লাইফবুকের পাশাপাশি এই আল্ট্রাবুক পরিচয় করিয়ে দিতে উপস্থিত ছিলেন ফুজিৎসু’র বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার অলসন সং এবং ফুজিৎসু এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রোডাক্ট মার্কেটিং ম্যানেজার এডমন্ড লিম।
আল্ট্রাবুক ইউএইচ ৫৭২
দেশের বাজারে কম্পিউটার সোর্স ফুজিৎসুর যে আল্ট্রাবুকটি অবমুক্ত করেছে, তার মডেল ‘ইউএইচ ৫৭২’। ইন্টেলের আল্ট্রাবুক ধারণার সাথে তালমিলিয়েই তৈরি হয়েছে এই আল্ট্রাবুক। স্বাভাবিকভাবেই এতে প্রসেসর হিসেবে ব্যবহƒত হয়েছে ইন্টেলের তৃতীয় প্রজšে§র আইভি ব্রিজ প্রসেসর। ১৩.৩ ইঞ্চি আকৃতির হাইডেফিনেশন সুপার ফাইন এলসিডি এই ডিসপ্লে’র রেজ্যুলেশন ১৩৬৬ বাই ৭৬৮ পিক্সেল এবং এর আসপেক্ট রেশিও ১৬.৯। এর পুরুত্ব মাত্র ১৮ মিলিমিটার। আর ৪ সেল ব্যাটারিসহ এর ওজনও মাত্র ১.৬ কেজি। বিল্ট-ইন জেনুইন উইন্ডোজ ৭সহ এতে মডেলভেদে থাকবে ২ থেকে ৪ গিগাবাইট পর্যন্ত র‌্যাম। স্টোরেজ হিসেবে থাকবে ৩২০ থেকে ৫০০ গিগাবাইট। বাড়তি সুবিধা হিসেবে থাকবে অনবোর্ড ৩২ গিগাবাইটের আইএসএসডি স্টোরেজ। গ্রাফিক্স হিসেবে রয়েছে ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স ৪০০০। আর রয়েছে রিয়েলটেকের ডিটিএস বুস্টসমৃদ্ধ এইচডি অডিও। আর আধুনিক ল্যাপটপের নানান ফিচার তো রয়েছেই। কেবল হার্ডওয়্যার হিসেবেই নয়, সফটওয়্যার আর নিরাপত্তার দিকেও বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে ফুজিৎসু’র এই আল্ট্রাবুকে। ইন্টেলের অ্যান্টি-থেফট বা আইডেনটিটি প্রটেকশন টেকনোলজি ছাড়াও ফুজিৎসু আল্ট্রাবুকে রয়েছে ‘অ্যাবসলুট’ নামের বিশেষ নিরাপত্তা ফিচার, যা আল্ট্রাবুকের সব ধরনের তথ্যকে রাখবে সুরক্ষিত।
ডিজাইন এবং বিশেষ ফিচার
ফুজিৎসু’র এই আল্ট্রাবুককে পরিচিত করিয়ে দিতে গিয়ে অলসন সং এবং এডমন্ড লিম জানান, ‘এই আল্ট্রাবুক ডিজাইন করা হয়েছে জাপানের ‘তাকুমি’ ডিজাইনের দর্শনে। এর মূল লক্ষ্যই হলো ডিজাইনের মাঝে পৃকৃতির ছোঁয়া এনে দেওয়া। ডিজাইন ছাড়াও এটি ব্যবহারে নতুন অভিজ্ঞতা প্রদান করবে এর ‘ফেস সেন্স সিকিউরিটি’ সিস্টেম। বিল্ট-ইন ৭২০ পিক্সেল ক্যামেরার মাধ্যমে এই ফিচারটি আল্ট্রাবুকের সামনে ব্যবহারকারীর উপস্থিতি সনাক্ত করতে সক্ষম। আর এতে করে একটি নির্দিষ্ট সময় ব্যবহারকারী পর্দার সামনে উপস্থিত না থাকলে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই আল্ট্রাবুকটি স্লিপ মোডে চলে যায়। আগামী আগস্টে দেশের বাজারে এটি বিক্রি শুরু হবে বলে জানিয়েছে ফুজিৎসু এবং কম্পিউটার সোর্স কর্তৃপক্ষ।
দেশের বাজারেও শীর্ষস্থানে যেতে চায় ফুজিৎসু
ফুজিৎসু’র বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার অলসন সং এবং এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রোডাক্ট মার্কেটিং ম্যানেজার এডমন্ড লিমের সাথে আলাপচারিতায় জানা যায় তাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনার কথা। তারা জানিয়েছেন, বর্তমানে বিশ্বব্যাপী নোটবুকে ফুজিৎসু’র অবস্থান তৃতীয় হলেও বাংলাদেশের বাজারে চতুর্থ বা পঞ্চম। বাংলাদেশের বাজারকে অন্যতম সম্ভাবনাময় বাজার হিসেবে মনে করেন তারা। আর তাই এখানেও তারা শীর্ষে অবস্থান করতে চান। তবে আমাদের বাজারে হাই-এন্ড পণ্যের চাইতে স্বল্পমূল্যের পণ্যের চাহিদা তাদের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ বলে উল্লেখ করেন তারা। মানের দিকে ফুজিৎসু’র মনোযোগ বেশি হওয়ায় স্বল্পমূল্যের পণ্য তাদের জন্য সবসময় তৈরি করা সম্ভব হয় না। এরপরেও তারা বাংলাদেশের বাজার নিয়ে আশাবাদী। কেননা, এখানে তাদের বাজার দ্র–ত বাড়ছে। লিম জানান, ‘এখানকার ক্রেতারা ফুজিৎসু’র পণ্য ব্যবহার করে সন্তুষ্ট। আর তাই অনেকে এই প্রযুক্তি পণ্যের ব্যাপকতার যুগে এসেও ফুজিৎসু’র পণ্যের জন্যই অপেক্ষা করে থাকেন। এটা ফুজিৎসু’র জন্য একটি বড় পাওয়া।’ অন্যদিকে গবেষণার জন্য এখানে বিনিয়োগ এবং সামাজিক দায়বদ্ধতা প্রসঙ্গে অলসন জানান, এখনই গবেষণা ও উন্নয়ন বিষয়ে এখানে বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি হয়নি। তবে বাংলাদেশের বাজারে তাদের পণ্য বিক্রয়ের পাশাপাশি এখানে শিক্ষামূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে জড়িত হওয়ার জন্যও প্রস্তুত তারা। উপযুক্ত ডাক পেলেই তারা এখানে শিক্ষামূলক কর্মকাণ্ডে বিনিয়োগ করতে প্রস্তুত। সবশেষে বাংলাদেশের বাজারেও ফুজিৎসু’র বর্তমান অবস্থানের উত্তরণ দেখার আশাবাদ ব্যক্ত করেন উভয়েই।

ল্যাপটপের বাজারে শীর্ষে যেতে চায় ফুজিৎসুল্যাপটপ আর নোটবুকের নতুন সংস্করণ হিসেবে ইন্টেল ‘আল্ট্রাবুক’ প্রোটোটাইপের ধারণা প্রদর্শনের পরেই এখন বড় বড় সব ল্যাপটপ ও নোটবুক নির্মাতারাই এখন ‘আল্ট্রাবুক’ তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। ব্যতিক্রম নয় ফুজিৎসুও। ইতিমধ্যেই তারা বিশ্ববাজারে অবমুক্ত করেছে তাদের আল্ট্রাবুক। এবার দেশের বাজারেও তারা প্রদর্শন করল এই নতুন আল্ট্রাবুক। বাংলাদেশের বাজারে ফুজিৎসু’র একমাত্র পরিবেশক কম্পিউটার সোর্স আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ফুজিৎসু’র কয়েকটি মডেলের লাইফবুকের পাশাপাশি এই আল্ট্রাবুক পরিচয় করিয়ে দিতে উপস্থিত ছিলেন ফুজিৎসু’র বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার অলসন সং এবং ফুজিৎসু এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রোডাক্ট মার্কেটিং ম্যানেজার এডমন্ড লিম।আল্ট্রাবুক ইউএইচ ৫৭২দেশের বাজারে কম্পিউটার সোর্স ফুজিৎসুর যে আল্ট্রাবুকটি অবমুক্ত করেছে, তার মডেল ‘ইউএইচ ৫৭২’। ইন্টেলের আল্ট্রাবুক ধারণার সাথে তালমিলিয়েই তৈরি হয়েছে এই আল্ট্রাবুক। স্বাভাবিকভাবেই এতে প্রসেসর হিসেবে ব্যবহƒত হয়েছে ইন্টেলের তৃতীয় প্রজšে§র আইভি ব্রিজ প্রসেসর। ১৩.৩ ইঞ্চি আকৃতির হাইডেফিনেশন সুপার ফাইন এলসিডি এই ডিসপ্লে’র রেজ্যুলেশন ১৩৬৬ বাই ৭৬৮ পিক্সেল এবং এর আসপেক্ট রেশিও ১৬.৯। এর পুরুত্ব মাত্র ১৮ মিলিমিটার। আর ৪ সেল ব্যাটারিসহ এর ওজনও মাত্র ১.৬ কেজি। বিল্ট-ইন জেনুইন উইন্ডোজ ৭সহ এতে মডেলভেদে থাকবে ২ থেকে ৪ গিগাবাইট পর্যন্ত র‌্যাম। স্টোরেজ হিসেবে থাকবে ৩২০ থেকে ৫০০ গিগাবাইট। বাড়তি সুবিধা হিসেবে থাকবে অনবোর্ড ৩২ গিগাবাইটের আইএসএসডি স্টোরেজ। গ্রাফিক্স হিসেবে রয়েছে ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স ৪০০০। আর রয়েছে রিয়েলটেকের ডিটিএস বুস্টসমৃদ্ধ এইচডি অডিও। আর আধুনিক ল্যাপটপের নানান ফিচার তো রয়েছেই। কেবল হার্ডওয়্যার হিসেবেই নয়, সফটওয়্যার আর নিরাপত্তার দিকেও বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে ফুজিৎসু’র এই আল্ট্রাবুকে। ইন্টেলের অ্যান্টি-থেফট বা আইডেনটিটি প্রটেকশন টেকনোলজি ছাড়াও ফুজিৎসু আল্ট্রাবুকে রয়েছে ‘অ্যাবসলুট’ নামের বিশেষ নিরাপত্তা ফিচার, যা আল্ট্রাবুকের সব ধরনের তথ্যকে রাখবে সুরক্ষিত।ডিজাইন এবং বিশেষ ফিচারফুজিৎসু’র এই আল্ট্রাবুককে পরিচিত করিয়ে দিতে গিয়ে অলসন সং এবং এডমন্ড লিম জানান, ‘এই আল্ট্রাবুক ডিজাইন করা হয়েছে জাপানের ‘তাকুমি’ ডিজাইনের দর্শনে। এর মূল লক্ষ্যই হলো ডিজাইনের মাঝে পৃকৃতির ছোঁয়া এনে দেওয়া। ডিজাইন ছাড়াও এটি ব্যবহারে নতুন অভিজ্ঞতা প্রদান করবে এর ‘ফেস সেন্স সিকিউরিটি’ সিস্টেম। বিল্ট-ইন ৭২০ পিক্সেল ক্যামেরার মাধ্যমে এই ফিচারটি আল্ট্রাবুকের সামনে ব্যবহারকারীর উপস্থিতি সনাক্ত করতে সক্ষম। আর এতে করে একটি নির্দিষ্ট সময় ব্যবহারকারী পর্দার সামনে উপস্থিত না থাকলে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই আল্ট্রাবুকটি স্লিপ মোডে চলে যায়। আগামী আগস্টে দেশের বাজারে এটি বিক্রি শুরু হবে বলে জানিয়েছে ফুজিৎসু এবং কম্পিউটার সোর্স কর্তৃপক্ষ।দেশের বাজারেও শীর্ষস্থানে যেতে চায় ফুজিৎসুফুজিৎসু’র বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার অলসন সং এবং এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রোডাক্ট মার্কেটিং ম্যানেজার এডমন্ড লিমের সাথে আলাপচারিতায় জানা যায় তাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনার কথা। তারা জানিয়েছেন, বর্তমানে বিশ্বব্যাপী নোটবুকে ফুজিৎসু’র অবস্থান তৃতীয় হলেও বাংলাদেশের বাজারে চতুর্থ বা পঞ্চম। বাংলাদেশের বাজারকে অন্যতম সম্ভাবনাময় বাজার হিসেবে মনে করেন তারা। আর তাই এখানেও তারা শীর্ষে অবস্থান করতে চান। তবে আমাদের বাজারে হাই-এন্ড পণ্যের চাইতে স্বল্পমূল্যের পণ্যের চাহিদা তাদের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ বলে উল্লেখ করেন তারা। মানের দিকে ফুজিৎসু’র মনোযোগ বেশি হওয়ায় স্বল্পমূল্যের পণ্য তাদের জন্য সবসময় তৈরি করা সম্ভব হয় না। এরপরেও তারা বাংলাদেশের বাজার নিয়ে আশাবাদী। কেননা, এখানে তাদের বাজার দ্র–ত বাড়ছে। লিম জানান, ‘এখানকার ক্রেতারা ফুজিৎসু’র পণ্য ব্যবহার করে সন্তুষ্ট। আর তাই অনেকে এই প্রযুক্তি পণ্যের ব্যাপকতার যুগে এসেও ফুজিৎসু’র পণ্যের জন্যই অপেক্ষা করে থাকেন। এটা ফুজিৎসু’র জন্য একটি বড় পাওয়া।’ অন্যদিকে গবেষণার জন্য এখানে বিনিয়োগ এবং সামাজিক দায়বদ্ধতা প্রসঙ্গে অলসন জানান, এখনই গবেষণা ও উন্নয়ন বিষয়ে এখানে বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি হয়নি। তবে বাংলাদেশের বাজারে তাদের পণ্য বিক্রয়ের পাশাপাশি এখানে শিক্ষামূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে জড়িত হওয়ার জন্যও প্রস্তুত তারা। উপযুক্ত ডাক পেলেই তারা এখানে শিক্ষামূলক কর্মকাণ্ডে বিনিয়োগ করতে প্রস্তুত। সবশেষে বাংলাদেশের বাজারেও ফুজিৎসু’র বর্তমান অবস্থানের উত্তরণ দেখার আশাবাদ ব্যক্ত করেন উভয়েই।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top