শিরোনাম

মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ফোরজির কার্যক্রম শুরু হচ্ছে মার্চে | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ড্যাফোডিলে জিডিজি বাংলার বাংলা চ্যালেঞ্জ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - বাগেরহাটে আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে হুয়াওয়ের ‘লাভ ইন ফোকাস’ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - অনলাইনে কেনাবেচায় প্রতারণা রোধে বিক্রয় ডটকমের পদক্ষেপ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারে গ্রামীণফোনের সাশ্রয়ী ডাটা প্যাক | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ‘গ্রীন অফিস’ স্বীকৃতি পেল বাংলালিংক | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - পেইজা ব্যবহারকারীদের জন্য ২১% মূল্য ছাড় | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - মাইক্রোম্যাক্সের নতুন স্মার্টফোন কিউ৩৯৮ |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / শক্তিশালী ই-গভর্নমেন্ট হচ্ছে দেশে
শক্তিশালী ই-গভর্নমেন্ট হচ্ছে দেশে

শক্তিশালী ই-গভর্নমেন্ট হচ্ছে দেশে

palakসরকারি সেবা মানুষের দোর গোড়ায় পৌঁছে দিতে দেশে ই-গভর্নমেন্ট বাস্তবায়নে সব সরকারি দপ্তর নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

সরকার তার সেবা মানুষের কাছে খুব দ্রুত ও সহজতম উপায়ে পৌঁছে দিতে যে ডিজিটাল বাংলাদেশ মাস্টারপ্ল্যান করেছিল তা এখন বাস্তবায়ন চলছে। যা হবে একটি শক্তিশালী ই-গভর্নমেন্ট সিস্টেম বলে বলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বুধবার রাজধানীর ফার্মগেটের কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য ই-গভর্নমেন্ট মাস্টারপ্ল্যান’ নামের দিনব্যাপী এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, এমন একটি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে গেলে অবশ্যই প্রজাতন্ত্রের কর্মীদের দক্ষতা বাড়ানো প্রয়োজন। কারণ তাদের মাধ্যমেই এসব সেবা পাবে জনগণ।

ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রণয়নে কোরিয়া সরকারের অভিজ্ঞতাকে কাজে  লাগাতে চায় বাংলাদেশ। তাই যৌথভাবে এমন আয়োজন করা হয়েছে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, দেশের প্রথম ডিজিটাল দ্বীপ হিসেবে কোরিয়া সরকারের সহায়তায় মহেশখালীকে গড়ে তোলা হচ্ছে। এটি দেশের প্রথম কোনো দ্বীপ যেখান থেকে প্রযুক্তির দক্ষযজ্ঞ সম্পন্ন হবে। এটি অন্যান্য দেশের কাছে রোল মডেল হবে বলেও জানান তিনি।

দিনব্যাপী কর্মশালা শেষে সম্মিলিত সুপারিশগুলো যাচাই-বাছাই করবে সরকারের সংশ্লিষ্টরা। পরে সেগুলো ই-গভর্নমেন্ট মাস্টারপ্ল্যানে যুক্ত করা হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশে নিযুক্ত কোরিয়ান দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন কোয়াক স্যাম-জু, কোরিয়ান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সির কান্ট্রি ম্যানেজার জো ইয়ংগুয়ে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক এসএম আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হারুনুর রশিদ, প্রকল্প পরিচালক মুহাম্মদ এনামুল কবিরসহ আরও অনেকে।

ভিশন ২০২১  বাস্তবায়ন ও দেশে একটি জবাবাদিহিতামূলক ই-গভর্নমেন্ট বাস্তবায়নে কোরিয়ান সরকারের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে একটি পাইলট প্রকল্প বাস্তাবায়নের মাধ্যমে এগিয়ে যেতে চায় সরকার। এজন্য দেশীয় আর্থ-সামাজিক অবস্থা বিবেচনায় এনে এই ই-গভর্নমেন্ট বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।  এটি বাস্তবায়ন করতে সরকার ন্যাশনাল আর্কিটেকচার ফ্রেম ওয়ার্কের অধীনে ৫২টি মন্ত্রণালয় ও ৬৮টি অধিদপ্তর ও সংস্থা একযোগে কাজ করছে।

তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের আওতাধীন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল ও উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা কোরিয়ান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সির (কোইকা) অর্থায়নে প্রকল্পটি ২০১৯ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়িত হবে। এতে ব্যয় হবে ২৮ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। যার ২৫ কোটি টাকায় দেবে কোইকা।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top