শিরোনাম

মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ফোরজির কার্যক্রম শুরু হচ্ছে মার্চে | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ড্যাফোডিলে জিডিজি বাংলার বাংলা চ্যালেঞ্জ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - বাগেরহাটে আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে হুয়াওয়ের ‘লাভ ইন ফোকাস’ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - অনলাইনে কেনাবেচায় প্রতারণা রোধে বিক্রয় ডটকমের পদক্ষেপ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারে গ্রামীণফোনের সাশ্রয়ী ডাটা প্যাক | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - ‘গ্রীন অফিস’ স্বীকৃতি পেল বাংলালিংক | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - পেইজা ব্যবহারকারীদের জন্য ২১% মূল্য ছাড় | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী 21, 2017 - মাইক্রোম্যাক্সের নতুন স্মার্টফোন কিউ৩৯৮ |
প্রথম পাতা / টেলিকম / টেলিকম পলিসি / সিটিসেল খুলল না কেন, জানতে চাইল আপিল বিভাগ
সিটিসেল খুলল না কেন, জানতে চাইল আপিল বিভাগ

সিটিসেল খুলল না কেন, জানতে চাইল আপিল বিভাগ

spectramআদালতের নির্দেশনার পরও সিটিসেলকে কেন তরঙ্গ বরাদ্দ দেয়া হয়নি তার ব্যাখ্যা রোববার (৬ নভেম্বর) দুপুরের মধ্যে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থার (বিটিআরসির) কাছে জানতে চেয়েছেন আপিল বিভাগ।

রোববার (৬ নভেম্বর) সকালে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এ সময় আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল খোন্দকার দিলিরুজ্জামান। সিটিসেলের পক্ষে ছিলেন এ এম আমিনুদ্দিন।

এর আগে গত ৩ নভেম্বর সেলফোন অপারেটর সিটিসেলের তরঙ্গ বরাদ্দ খুলে দেয়ার নির্দেশ দেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। তবে শর্ত ছিলো আগামী ১৯ নভেম্বরের মধ্যে সেলফোন অপারেটরটিকে পরিশোধ করতে হবে ১০০ কোটি টাকা।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন।

প্রসঙ্গত, তরঙ্গ বরাদ্দ বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত বা পুনরায় তরঙ্গ বরাদ্দের নির্দেশনা চেয়ে গত ২৪ অক্টোবর আবেদন করে সিটিসেল।

বারবার তাগাদা দেয়ার পরও সরকারের পাওনা প্রায় ৪৭৭ কোটি ৫১ লাখ টাকা পরিশোধ করতে না পারায় সিটিসেলের কার্যক্রম বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছিল বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (বিটিআরসি)। পরের মাসে তাদের নোটিসও দেয়া হয়। এর পর ৯ আগস্ট সিটিসেলের আবেদনে সাড়া দিয়ে টাকা পরিশোধসাপেক্ষে কার্যক্রম চালিয়ে যেতে দুই মাস সময় দেয় আপিল বিভাগ।

সিটিসেলের তরঙ্গ স্থগিত করার পর ওই দিন সন্ধ্যায় বিটিআরসির কর্মকর্তারা র‌্যাব-পুলিশ নিয়ে মহাখালীতে সিটিসেলের প্রধান কার্যালয়ে ঢুকে তরঙ্গ বন্ধের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেন গত ২০ অক্টোবর।

গত ২৫ অক্টোবর তরঙ্গ বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত বা পুনরায় তরঙ্গের সংযোগ দেয়ার নির্দেশ চেয়ে সিটিসেলের আবেদন শুনে চেম্বার আদালত তা ৩১ অক্টোবর পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠিয়ে দেন।

এর আগে বকেয়া পরিশোধে ব্যর্থতার কারণে গত ৩১ জুলাই প্রতিষ্ঠানটির গ্রাহকদের বিকল্প কোনো সেবা গ্রহণের নির্দেশনা দেয় বিটিআরসি। ওই নির্দেশনায় বলা হয়, সরকারের প্রাপ্য রাজস্ব পরিশোধ না করে অপারেশনাল কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার মাধ্যমে লাইসেন্সের শর্ত ও টেলিযোগাযোগ আইন, ২০০১-এর বিধান লঙ্ঘন করেছে সিটিসেল। এ অবস্থায় প্রতিষ্ঠানটির সেলুলার মোবাইল ফোন অপারেটর লাইসেন্স ও রেডিও কমিউনিকেশন্স ইকুইপমেন্ট লাইসেন্স বাতিল করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top