শিরোনাম

বুধবার, সেপ্টেম্বর 20, 2017 - ভিসা এবং এসএসএলকমার্জ শুরু করলো অনলাইন ধামাকার দ্বিতীয় রাউন্ড | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - প্রতিশ্রুতিশীল প্রযুক্তি বিষয়ক স্টার্টআপের খোঁজে সিডস্টারস ওয়ার্ল্ড | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ফেইসবুকে কাউকে বন্ধু করার ক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা জরুরি | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ম্যার্শম্যালো এখনো শীর্ষে | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - দীর্ঘক্ষণ ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে ওয়ালটনের নতুন ফোন | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - হ্যাকারের হানায় ঝুঁকিতে সিক্লিনার ব্যবহারকারীদের ডিভাইস | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল রিয়ালিটি শো “বাংলালিংক নেক্সট টিউবার” | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - ড্যফোডিল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের বৃত্তিপ্রাপ্তদের সংবর্ধনা | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 19, 2017 - এইচপি’র মাল্টিফাংশন কপিয়ার বাজারে | সোমবার, সেপ্টেম্বর 18, 2017 - টিভি বাংলাদেশ নিয়ে এসেছে সনির আকর্ষণীয় সব নতুন মডেলের টেলিভিশন |
প্রথম পাতা / অর্থনীতি / স্মার্টফোন রপ্তানীতে হুয়াওয়ের ১০০ মিলিয়নের মাইলফলক
স্মার্টফোন রপ্তানীতে হুয়াওয়ের ১০০ মিলিয়নের মাইলফলক

স্মার্টফোন রপ্তানীতে হুয়াওয়ের ১০০ মিলিয়নের মাইলফলক

চলতি বছরে সারাবিশ্বে ১০০ মিলিয়ন স্মার্টফোন রপ্তানীর মাইলফলক ছুঁয়েছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। এমন ঘোষণা দিয়েছে হুয়াওয়ে কনজিউমার বিজনেস গ্রুপ। আর এর মধ্য দিয়ে কনজিউমার ডিভাইস রপ্তানীতে তৃতীয় সর্বোচ্চ রপ্তানীকারক প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্থান করে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

Huawei-100-Million-Smartphone-Shipments-in-2015-corporateগত পাঁচ বছরে হুয়াওয়ের স্মার্টফোন রপ্তানীর হার বেড়েছে ৩০০০ শতাংশেরও বেশি। উল্লেখ্য, গত ২০১০ সালে ৩ মিলিয়ন ডিভাইস রপ্তানী করেছে প্রতিষ্ঠানটি যার পরিমাণ ২০১৫ সালে বেড়ে হয়েছে ১০০ মিলিয়নে। প্রিমিয়াম মার্কেটে হুয়াওয়ে ফ্ল্যাগশীপ ডিভাইসগুলোতে সৃজনশীলতা, ডিজাইন, ফ্যাশন, ফটোগ্রাফি এবং কর্মক্ষমতার সন্নিবেশ ঘটিয়ে নিজেদের কৃতিত্ব প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে।

হুয়াওয়ে কনজিউমার বিজনেস গ্রুপ হ্যান্ডসেট লাইনের প্রসিডেন্ট কেভিন হো বলেন, ‘আকস্মিকভাবে হুয়াওয়ের এ সফলতা আসেনি। আমাদের পণ্যের উপর ভোক্তাদের চাহিদাই এই সফলতার অন্যতম কারণ। আর আমরাও প্রিমিয়াম স্মার্টফোনগুলো সারাবিশ্বের মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পেরে গর্বিত।’

তিনি আরো জানান, ‘কর্মক্ষমতার সীমারেখার বাইরে সম্ভাব্য নতুন কিছুর প্রতি মানুষের চাহিদা বাড়ার পাশাপাশি প্রতিনিয়ত স্মার্টফোনের ধরণে পরিবর্তন আসছে। আরো উন্নত ডিভাইস বাজারে নিয়ে আসার লক্ষ্যে আগামী ২০১৬ সালে নতুন পণ্য সংযোজনের পাশাপাশি বিশ্বের সেরা কয়েকটি ব্র্যান্ডের সঙ্গে একীভূত হয়ে আমরা সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছি।’

হুয়াওয়ের গবেষণা ও উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাওয়া, স্মার্টফোন বাজারে বৈচিত্রতা, ওমনি-চ্যানেল কৌশল এবং পণ্যনির্ভর ব্র্যান্ডের উপর বিশ্বস্ততার ফলাফল হিসেবে এ সফলতা।

হুয়াওয়ে ব্যয়বহুল আরএ্যান্ডডি কনজিউমার ডিভাইসগুলোর জন্য সবচেয়ে অনন্য ও উদ্ভাবনী মান নির্ধারণ করে। যা গত বছর স্মার্টফোন বাজারে আধিপত্য বিস্তারে সহায়তা করে। এছাড়া গত বছর হুয়াওয়ে আরএ্যান্ডডি-এর জন্য মোট রাজস্বের শতকরা ১৪.২ ভাগ (৬.৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার) ব্যয় করে ৭৬,৬৮৭টি প্যাটেন্ট নিশ্চিৎ করেছে যার মধ্যে ১৮,০০০ প্যাটেন্ট হুয়াওয়ে ডিভাইসগুলোতে ব্যবহার করা হয়েছে।

বিভিন্ন দেশে হুয়াওয়ের মোট ১৬টি গবেষণাগার আছে যার উল্লেখযোগ্য দেশ হচ্ছে চীন, জার্মানী, সুইডেন, রাশিয়া এবং ভারত। একেকটি আরএ্যান্ডডি আলাদা আলাদা কৌশলগত উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ করে যেমন, জাপানের গবেষণাগার ডিভাইস তৈরীর উপাদান ও প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে যেখানে জাপানের উৎকর্ষতাকে কাজে লাগানো হয়।

ব্যাতিক্রমী কিছু তৈরীর লক্ষ্যে হুয়াওয়ে উন্নতমান বজায় রেখে বিশ্বের সেরা প্রকৌশলী ও ডেভেলপারদের নিয়ে নিয়মিত কাজ করছে। এছাড়া হুয়াওয়ে টিম অভিজাত পণ্যগুলোর ব্যাপারে কনজিউমারদের সেরা অভিজ্ঞতা দেয়ার লক্ষ্য নিয়ে নিরলসভাবে কাজ করছে যা সত্যিই অনুসরণীয়।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top