শিরোনাম

বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - আবার স্মার্টফোনে ফিরছে ইন্টেল | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - উবারের ৫ কোটি ৭০ লাখ গ্রাহকের তথ্য চুরি হয়েছিল | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - ৫০০০মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি সহ বাজারে আসতে চলেছে নোকিয়া’র নতুন ফোন | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - অনলাইন শপিংয়ে সিম কার্ড | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - রেকর্ড গড়ছে বিটকয়েন | বুধবার, নভেম্বর 22, 2017 - প্রধানমন্ত্রীর নিকট অ্যাসোসিও ডিজিটাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড হস্তান্তর | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - ‘ডাকছে থাইল্যান্ড’ নামে মেগা ক্যাম্পেইন রবি’র | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - ডিজিটালাইজেশনে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংকগুলো এখনো পিছিয়ে | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - ভলভোর ২৪,০০০ গাড়ি কিনছে উবার | মঙ্গলবার, নভেম্বর 21, 2017 - হোয়াটসঅ্যাপে নতুন ফিচার |
প্রথম পাতা / সাইবার ক্রাইম / হ্যাকারদের লক্ষ্য বাংলাদেশসহ অন্যান্য এশিয়ার দেশগুলোর ব্যাংকগুলো
হ্যাকারদের লক্ষ্য বাংলাদেশসহ অন্যান্য এশিয়ার দেশগুলোর ব্যাংকগুলো

হ্যাকারদের লক্ষ্য বাংলাদেশসহ অন্যান্য এশিয়ার দেশগুলোর ব্যাংকগুলো

bank-hackডাটা চুরির সাইবার গুপ্তচরবৃত্তি গ্রুপ এখন এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে আক্রমণ করছে। ১৬ অক্টোবর সোমবার সিকিউরিটি প্রতিষ্ঠান ক্যাসপারস্কি ল্যাব এক প্রতিবেদনে নতুন এই তথ্য জানিয়েছে বলে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়। ক্যাসপারস্কি গবেষকরা আবিষ্কার করেছেন, সাইবার অপরাধীরা এখন আর্থিক লাভের লক্ষ্যে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের দেশগুলোর ব্যাংকগুলিতে আক্রমণ করছে।

ক্যাসপারস্কি জানিয়েছে, দ্য অ্যাডভান্সড পারসিসট্যান্ট থ্রেট (এপিটি) গ্রুপ মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, চীন (হংকং), ভিয়েতনাম এবং বাংলাদেশের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে সফলভাবে নিরাপত্তা লঙ্ঘন করতে পেরেছে। দ্য অ্যাডভান্সড পারসিসট্যান্ট থ্রেট (এপিটি) হলো- যেকোনো সংস্থার নেটওয়ার্কে ক্ষতি করার চাইতে তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্য বেশি থাকে।

ক্যাসপারস্কি ল্যাবের গ্লোবাল রিসার্চ এবং অ্যানালাইসিস দলের প্রধান উরি নেমেস্টনিকভ বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে ডাটা হ্যাকাররা এখন প্রথাগত সাইবার গুপ্তচরবৃত্তির বাইরে চলে যাচ্ছে। এখন তারা অর্থ চুরির জন্য এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের দুর্বল নিরাপত্তার ব্যাংকগুলোকে লক্ষ্য করে আক্রমণ চালাচ্ছে।’

২০১৭ সালে ক্যাসপারস্কি ল্যাব এই অঞ্চলে কুখ্যাত ‘ল্যাজারাস’ বা ‘কোবাল্টগবলিন’ গ্রুপের সক্রিয় অ্যাডভান্স পারসিসট্যান্ট থ্রেট (এপিটি) মনিটর করতে সক্ষম হয়। আর ল্যাজারাস নামের সাইবার গ্যাংকে ২০১৪ সালে সনি পিকচার হ্যাকিং এবং ২০১৬ সালে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ৮০০ কোটি ডলার চুরির নেপথ্যের খলনায়ক ধরা হয়।

এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের আর্থিক প্রতিষ্ঠানের আক্রমণ থেকে সঠিক আর্থিক ক্ষতি এখনও অনিশ্চিত কিন্তু ক্যাসপারস্কি গবেষকরা বলছেন, তাদের এই অনুসন্ধান আর্থিক সংস্থাগুলোকে তাদের অর্থ খোয়ানোর হাত থেকে বাঁচাতে পারে।

হ্যাকার গ্রুপটি নেটওয়ার্কে ফিশিং ইমেইল অথবা ওয়ার্ড ডকুমেন্টের ত্রুটির সহায়তায় আক্রমণ করে থাকে। আর তাই বৈশ্বিক এই সাইবার সিকিউরিটি প্রতিষ্ঠানটির পরামর্শ হলো- অত্যন্ত অত্যাধুনিক সলিউশন ব্যবহার করা যাতে করে যেকোনো ম্যালশাস আক্রমণ দক্ষতার সাথে নেটওয়ার্কে মনিটর করা যায়, এমনকি ওয়েব এবং ইমেইলও যা ‘ক্যাসপারস্কি অ্যান্টি টার্গেটেড অ্যাটাক প্ল্যাটফর্ম’ এর মতো।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top