ঢাকা | বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮ |
২৬ °সে
|
বাংলা কনভার্টার

প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটি শিক্ষা ব্যবসা করে না, শিক্ষা দান করে

প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটি শিক্ষা ব্যবসা করে না, শিক্ষা দান করে
প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটি শিক্ষা ব্যবসা করে না, শিক্ষা দান করে

প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটি শিক্ষা ব্যবসা করে না, শিক্ষা দান করে বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ, গবেষক ও শিক্ষবিদ প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটিরমাননীয় উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. মেসবাহ কামাল।

বুধবার (১৪ জুলাই) বিকেলে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মেপ্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটির সামার-২০২১ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশেতিনি বলেন, “প্রাইমএশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে তোমরা সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছ। আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও করোনাকালে যথেষ্ট ভাল কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারেনি। কিন্তু প্রাইমএশিয়া বিশ্ববিদ্যালয় এই প্রাণঘাতী করোনা কালেও সঠিক পথেই আছে। করোনার মুখোমুখি হয়েও নিজেকে বিকশিত করেছে প্রাইমএশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়।এখানে শিক্ষক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম ডিজিটালাইজড করা হয়েছে। এখানে দু’শ জনের বেশি কোয়ালিটি শিক্ষক রয়েছেন। যারা দেশে স্বনামধন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সারির শিক্ষার্থী ছিলেন। তাদেরকে আবার প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। অধিকাংশ শিক্ষক বিদেশ থেকে উচ্চতর পড়াশুনা করে এসেছেন। সুতরাং কোয়ালিটির ব্যাপারে কোনো ছাড় দেয়া হয় না এখানে। যদিও ছাত্রছাত্রীদের টিউশন ফি’র ওপর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম পরিচালনা নির্ভর করে তারপরও আমি নিশ্চত করে বলতে পারি,প্রাইমএশিয়া বিশ্ববিদ্যালয় অন্য যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থীদের বেশি ছাড় দিয়ে থাকে। প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটি শিক্ষা-ব্যবসা করে না, শিক্ষা দান করে।”

ইনস্টিটিউট অব ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড কালচার এর কার্যক্রম চালু করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আমরা কমিউনিকেটিভ ইংলিশ কোর্স চালু করেছি। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ইংরেজির ওপর দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া স্বল্প খরচে আমাদের শিক্ষার্থীরা বাংলা, ইংরেজি, চাইনিজ ও জাপানিজ ভাষার উপর সার্টিফিকেট ও ডিপ্লোমা কোর্স করতে পারবে।”

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিহিসেবে উপস্থিত ছিলেনবিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান জনাব নজরুল ইসলাম। নবীন শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আমাদের অনেক স্বপ্ন আছে। কিন্তু নবীন শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন আরো বড়। আমাদের বোর্ড অব ট্রাস্টিজ, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনিক বিভাগ ও শিক্ষকদের সমন্বিত প্রচেষ্টায় তারা তাদের স্বপ্ন পূরণের অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছতে পারবে।এক্ষেত্রে বোর্ড অব ট্রাস্টিজের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহোযোগিতা করা হবে।" এসময় শিক্ষার্থীদেরও কঠোর পরিশ্রম করার পরামর্শ দেন তিনি। এছাড়া দ্রæততর সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্টদের ভ্যাক্সিনের আওতায় এনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এছাড়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে নবীন শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানান প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব রায়হান আজাদ, সদস্য জনাব নূরুল ইসলাম মোল্লা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. ইফফাত জাহান। অনুষ্ঠান আয়োজকদের পক্ষ থেকে স্বাগতবক্তব্য প্রধান করেন নবীন বরণ অনুষ্ঠান আয়োজক কমিটির আহবায়ক, স্কুল অব সায়েন্সের ডীন অধ্যাপক ড. শুভময় দত্ত।

এছাড়া স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ডিন অধ্যাপক শেখ মো. হাসানুজ্জামান, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান অধ্যাপক এম এ খালেক, ফার্মেসি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. আবদুল গনি, বেসিক সায়েন্স বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মো. সিরাজুল করিম, ল্যাঙ্গুয়েজ ও কালচার ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. আরিফাতুল কিবরিয়া, ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের পরিচালক ও সহযোগী অধ্যাপক ড. এ এস এম মাহমুদুল হক, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক জনাব রাজীব বারান রায়, আর্কিটেকচার বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক জনাব সাজ্জাদুর রহমান, মানবিক বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ড. নাসরীন আক্তার, ইন্টারন্যাশনাল ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রধান জনাব আতিকুর রহমান খান, পাবলিক হেলথ অ্যান্ড নিউট্রিশন বিভাগের প্রধান ড. মো. আবদুস সালাম মন্ডল, বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের প্রধান ড. বিধান চন্দ্র সরকার, আইন বিভাগের প্রধান জনাব শামসুদ্দোহা, ইংরেজি বিভাগের প্রধান (ভারপ্রাপ্ত) জনাব মশিউর রহমান, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক জনাব মোস্তফা হাসান, মাস্টার্স অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের পরিচালক ও সহযোগী অধ্যাপক জনাব তোফাজ্জল হোসাইন, ডেপুটি রেজিস্ট্রার ও মানব সম্পদ বিভাগের প্রধান মেজর (অব.) এ কে এম আনিস উদ দৌলা, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) সহযোগী অধ্যাপক ড. এম হাফিজুর রহমান, ডেপুটি ডিরেক্টও (প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট) জনাব সৈয়দ আবুল হাসনাত, ডেপুটি ডিরেক্টর (ফাইনেন্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস) জনাব মো. হাবিবুর রহমান, প্রশাসনিক বিভিন্ন বিভাগের প্রধানগণ ও নবীন শিক্ষার্থীরা অন্যান্যদের উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয়াংশে প্রাইমএশিয়া কালচারার ক্লাবের আয়োজনে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান “আনন্দলোকে, জ্বালো মঙ্গলালোক” ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়। ঘণ্টাব্যাপী অনুষ্ঠানে ছিল গান, নিত্য ও কবিতা আবৃত্তি। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন প্রাইমএশিয়া কালচারার ক্লাবের আহবায়ক ও মানবিক বিভাগের সভাপতি ড. নাসরীন আক্তার। অনুষ্ঠানটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসিয়াল ফেইসবুক পেইজে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটি
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়