ঢাকা | মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ |
৩৪ °সে
|
বাংলা কনভার্টার
walton

স্মার্ট বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২৩ পেল 'স্বাধীন ইন্টারনেট' এর উদ্যোক্তা মোবারক হোসেন

স্মার্ট বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২৩ পেল 'স্বাধীন ইন্টারনেট' এর উদ্যোক্তা মোবারক হোসেন
স্মার্ট বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২৩ পেল 'স্বাধীন ইন্টারনেট' এর উদ্যোক্তা মোবারক হোসেন

দেশের জনগণকে উন্নত সেবা নিরবিচ্ছিন্ন সংযোগ এবং দুর্দান্ত গতি গতির ইন্টারনেট সেবা দেয়ার পাশাপাশি সব ওয়াই-ফাইর এক পাসওয়ার্ড সুবিধা দিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশে সংযুক্ত করার মাধ্যমে জাতীয় পর্যায়ে 'কারিগরি বেসরকারি (শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি)' ইন্টারনেট ক্যাটাগরিতে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২৩'পুরস্কার পেল প্লেক্সাস ক্লাউড লিমিটেড এর সিইও মো.মোবারক হোসেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার ১৮ অক্টোবর সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২৩' প্রদান অনুষ্ঠানে মোবারকের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন।

স্বাধীন ইন্টারনেট প্রযুক্তি কি ?

সাধারণভাবে আমরা যারা ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহার করি তারা বাসার মধ্যে একটি ওয়াইফাই রাউটার ব্যবহার করি রাস্তায় বের হলে মোবাইলের ডাটা ব্যবহার করি এবং অফিসে গেলে অফিসের ওয়াইফাই রাউটার ব্যবহার করি। আমার রাউটারের ইন্টারনেট যাতে অন্য কেউ ব্যবহার করতে না পারে এই কারণে আমরা প্রত্যেকের রাউটারের মধ্যে পাসওয়ার্ড দিয়ে থাকি।

'স্বাধীন ইন্টারনেট' প্রযুক্তির মাধ্যমে আপনি আপনার মোবাইল নাম্বার একবার রেজিস্ট্রেশন করার মাধ্যমে আপনার বাড়িতে , রাস্তায় এবং অফিসেও যেখানে স্বাধীনের নেটওয়ার্ক রয়েছে সেখানেই আপনি ব্যবহার করতে পারবেন । স্বাধীন যেহেতু মোবাইল নাম্বারের জন্য ব্যান্ডউইথ দিয়ে থাকে তাই আপনি সব জায়গাতে একই রকম গতির ইন্টারনেট পাবেন ।

শহরে সাধারণভাবে একটি ফ্লোরে চারটি ফ্ল্যাট থাকলে চারটি পরিবার আলাদা আলাদা ভাবে চারটি রাউটার ও ব্রডব্যান্ডের সংযোগ নিয়ে থাকে। 'স্বাধীন প্রযুক্তি' ব্যবহার করলে দেখা যাবে একটি রাউটার থেকেই চারটি পরিবার ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবে এতে করে ৬০ ভাগ ওয়াইফাই রাউটার ব্যবহার করে শতভাগ কভারেজ পাওয়া যাবে। বর্তমানে ২.৪ গিগাহার্টজ ও ৫ গিগাহার্টজ এর যে রাউটারগুলি পাওয়া যায় তাতে ফ্রি ফ্রিকোয়েন্সি হওয়ার কারণে প্রত্যেকটি রাউটার এই একই ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে । আমরা বাজার থেকে যে রাউটার কিনি তার গায়ে যত মিটার দূরত্ব কভারেজ যাওয়ার কথা আমরা প্রায়ই দেখি ততটুকু কভারেজ করতে পারছে না এর অন্যতম কারণ এত বেশি ফ্রি ফ্রিকোয়েন্সির রাউটার ব্যবহার করার কারণে।স্বাধীন প্রযুক্তি ব্যবহার করলে ৬০% শতাংশ রাউটার দিয়েই ১০০% কভারেজ আনা সম্ভব।

বাজারে শীঘ্রই ওয়াইফাই সেভেন আসতে যাচ্ছে এর গতি হচ্ছে ৪০ জিবিপিএস স্বাধীন এই ওয়াইফাই সেভেন এর কথায় মাথা রেখে মাথায় রেখে তাদের নেটওয়ার্ক বৃদ্ধি করছে করছে।

কোন ধরনের ওয়াইফাই রাউটার প্রয়োজন পড়ে ?

স্বাধীন এমন একটি প্রযুক্তি উন্নয়ন করেছে যা কিনা ওপেনস্টেক ক্লাউড এর মধ্যে স্থাপন করা। তাই গ্রাহক বাজার থেকে যেকোনো ব্র্যান্ডের রাউটার কিনতে পারে এবং যেকোনো রাউটারের সাথেই স্বাধীন কাজ করে সমানভাবে তাই গ্রাহক তার প্রয়োজন অনুযায়ী কম মূল্যে অথবা বেশি মূল্যের যে কোন ধরনের রাউটারই ব্যবহার করার স্বাধীনতা গ্রাহকের রয়েছে।

স্বাধীনের নেটওয়ার্ক কোথায় কোথায় রয়েছে ?

স্বাধীন যেহেতু দেশীয় প্রতিষ্ঠান তাই দেশীয় বিনিয়োগের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত ১০০ টিরও বেশি ইউনিয়নে সাপোর্ট সেন্টার রয়েছে এর মাধ্যমে স্বাধীন পৌছতে পেরেছে হাজারো গ্রাম। স্বাধীন নেটওয়ার্কের জনপ্রিয়তার কারণে ধীরে ধীরে বাড়ছে এর নেটওয়ার্ক পরিধি । স্বাধীন বিশ্বাস করে গ্রামের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিনিয়োগ অথবা যে গ্রামে ইন্টারনেট পৌঁছে যাচ্ছে ওই গ্রামেরই কাউকে ট্রেনিং এর মাধ্যমে তৈরি করে ওই গ্রামেই তাকে কর্মের সুযোগ করে দিচ্ছে এতে করে ওই গ্রামের মানুষ খুব সহজে তার কাছ থেকে সাপোর্ট পাচ্ছে ।

স্বাধীন গ্রাহকের সাপোর্ট কিভাবে নিশ্চিত করে ?

স্বাধীনের রয়েছে নেটওয়ার্ক সেন্টার সাপোর্ট সেন্টার সেলস পয়েন্ট এবং শেষ এজেন্ট। স্বাধীন চেষ্টা করছে যাতে করে একটি গ্রামের যে পরিমাণ টাকা তারা ইন্টারনেটের পেছনে খরচ করে তার ৪০ থেকে ৫০% টাকা যেন ঐ গ্রামে থেকে যায় তাহলে গ্রামের অর্থনৈতিক উন্নতি আরো বেশি হবে। স্বাধীন প্রযুক্তি কাদের জন্য উপকারী হবে ? বাংলাদেশের যারা ইন্টারনেট ব্যবসা করছে সকল লাইসেন্সধারী আইএসপি তাদের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছে যেকোনো লাইসেন্স ধারী প্রতিষ্ঠান এই সফটওয়্যার ব্যবহার করে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করতে পারবেন। এছাড়া হসপিটাল গার্মেন্টস , এনজিও, স্কুল ইউনিভার্সিটি রেলওয়ে স্টেশন বাস স্টেশন লঞ্চ স্টেশন ইত্যাদি অনলাইন রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে সবাই ব্যবহার করতে পারবে।শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এই সফটওয়্যারটি আমরা বিনামূল্যে দিচ্ছি।

স্বাধীন ইন্টারনেট,স্মার্ট বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২,মোবারক হোসেন,প্লেক্সাস ক্লাউড লিমিটেড
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
Transcend