ঢাকা | মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮ |
২৯ °সে
|
বাংলা কনভার্টার

এন্টারপ্রাইজ টেকনোলজি, রিটেইল এন্ড ই-কমার্স এবং সামাজিক প্রভাব- এ তিনটি শ্রেণিতে ৯ জন বাংলাদেশি উদ্যোক্তা স্থান করে নিয়েছেন।

ফোর্বসের ‘থার্টি আন্ডার থার্টি’ তালিকায় বাংলাদেশের ৯ উদ্যোক্তা

ফোর্বসের ‘থার্টি আন্ডার থার্টি’ তালিকায় বাংলাদেশের ৯ উদ্যোক্তা
‘ফোর্বস থার্টি আন্ডার থার্টি’ তালিকায় নয় তরুণ বাংলাদেশি। ছবি: সংগৃহীত

প্রথমবারের মতো এক সঙ্গে নয় বাংলাদেশি ‘ফোর্বস থার্টি আন্ডার থার্টি’ তালিকায় স্থান পেয়েছেন।

তারা হলেন— গেজ’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা শেহজাদ নুর তাউস প্রিয় (২৪) ও মোতাসিম বীর রহমান (২৬), ক্র্যামস্ট্যাক’র প্রতিষ্ঠাতা মীর সাকিব (২৮), অ্যাওয়্যারনেস ৩৬০ এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা শমী চৌধুরী (২৬) ও রিজভী আরেফিন (২৬), অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন’র প্রতিষ্ঠাতা আহমেদ ইমতিয়াজ জামি (২৭), হাইড্রোকিউও প্লাস’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা রিজওয়ানা হৃদিতা (২৮) ও মোহাম্মদ জাহিন রোহান রাজিন (২২), এবং পিকাবু’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা মরিন তালুকদার (২৭)।

২০১১ সালে ফোর্বস ম্যাগাজিন ‘থার্টি আন্ডার থার্টি’ তালিকা তৈরি করতে শুরু করে। এ তালিকায় ব্যবসা-বাণিজ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করা ৩০ বছরের কম বয়সী ৩০ জনকে স্থান দেওয়া হয়।

গত ২০১৬ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে নয় বাংলাদেশি তাদের অসাধারণ কাজের মাধ্যমে এ তালিকায় এসেছিলেন।

শুধুমাত্র এ বছরেই অনূর্ধ্ব-৩০ নয় উদ্যোক্তা এন্টারপ্রাইজ প্রযুক্তি, সামাজিক প্রভাব ও খুচরা বাজারে ই-কমার্সের ব্যবহার— এই তিন খাতে অসামান্য অবদান রাখার জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছেন।

এ বছরের তালিকাভুক্ত বাংলাদেশিদের বিবরণ

শেহজাদ নুর তাউস প্রিয় ও মোতাসিম বীর রহমান, সহ-প্রতিষ্ঠাতা, গেজ

শেহজাদ নুর তাউস প্রিয় ও মোতাসিম বীর রহমানের স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান গেজ গত কয়েক বছর ধরেই সংবাদ শিরোনাম হচ্ছে। গেইজ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন ভিজুয়াল রিকগনিশন এপিআই তৈরি করে, যাতে স্পুফ-প্রুফ ফেস রিকগনিশন, ওসিআর ও অবজেক্ট রিকগনিশনের মতো নানান ফিচার থাকে।

মীর সাকিব), প্রতিষ্ঠাতা, ক্র্যামস্ট্যাক

মীর সাকিব তার স্টার্টআপ ক্র্যামস্ট্যাকের জন্য এন্টারপ্রাইজ প্রযুক্তি বিভাগে তালিকাভুক্ত হয়েছেন। ক্র্যামস্ট্যাক বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে তথ্যের বিশ্লেষণ ও পরিবেশনার জন্য ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ চালিত সার্চ ইন্টারফেস বানিয়ে দিয়ে সহায়তা করে।

শমী চৌধুরী ও রিজভী আরেফিন, সহ-প্রতিষ্ঠাতা, অ্যাওয়্যারনেস ৩৬০

শমী চৌধুরী ও রিজভী আরেফিনের কুয়ালালামপুর-ভিত্তিক এনজিও ‘অ্যাওয়্যারনেস ৩৬০’র ২৩টি দেশে প্রায় দেড় হাজার স্বেচ্ছাসেবক রয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানটি হাত ধোয়া, পানি বিশুদ্ধিকরণ ও পয়ঃনিষ্কাশনের মতো প্রাথমিক স্বাস্থ্যবিধিগুলো নিয়ে প্রায় দেড় লাখ ক্যাম্পেইন করেছে।

আহমেদ ইমতিয়াজ জামি, প্রতিষ্ঠাতা, অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করার জন্য আহমেদ ইমতিয়াজ জামি অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। এটি এখন পর্যন্ত তিন হাজার ৫০০ স্বেচ্ছাসেবীর সহায়তায় দারিদ্র্য বিমোচন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও পুষ্টি ও মানবাধিকার সংক্রান্ত বিষয়ে দশ লাখ মানুষকে সহায়তা করেছে।

রিজওয়ানা হৃদিতা ও মোহাম্মদ জাহিন রোহান রাজিন, সহ-প্রতিষ্ঠাতা, হাইড্রোকিউও প্লাস

রিজওয়ানা হৃদিতা ও মোহাম্মদ জাহিন রোহান রাজিনের স্টার্টআপ হাইড্রোকিউও প্লাস কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাভিত্তিক পানি ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত সমাধান দিয়ে থাকে। তাদের সমাধানগুলো পানির গুণগত মান জানাতে পারে এবং কোথাও পানির প্রবাহে বিঘ্ন ঘটে লিকেজ হচ্ছে কি না তা খুঁজে বের করতে পারে। বর্তমান ব্যবহারের ওপর ভিত্তি করে ভবিষ্যৎ চাহিদা সম্পর্কে পূর্বাভাষ দিতেও পারে এটি।

মরিন তালুকদার, সহ-প্রতিষ্ঠাতা, পিকাবু

মরিন তালুকদার ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানটি পিকাবু’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। বাংলাদেশে পিকাবু তাদের ওয়েবসাইটে নানা পণ্য বিক্রি ও দ্রুত ডেলিভারি দেওয়ার জন্য সুপ্রসিদ্ধ। স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে মাসিক কিস্তি সুবিধা ও একই দিনে ডেলিভারি দেওয়ার ক্ষেত্রে পিকাবু অগ্রগামী ভূমিকা পালন করে চলেছে।

ফোর্বস,থার্টি আন্ডার থার্টি,বাংলাদেশি
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়