শিরোনাম

শুক্রবার, জুলাই 28, 2017 - ভিসি ও ডিন্স সার্টিফিকেট পেলেন গ্রিন ইউনিভার্সিটির ২৪০শিক্ষার্থী | শুক্রবার, জুলাই 28, 2017 - দারাজের গ্রোসারি পণ্যে ৩৫% পর্যন্ত ছাড়! | শুক্রবার, জুলাই 28, 2017 - মনিটর কিনলেই পাচ্ছেন আর্কষনীয় টি-শার্ট  | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - রবি ও ট্রমা ইনস্টিটিউটের মধ্যে কর্পোরেট চুক্তি সই | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - দেশের বাজারে হুইনের তারবিহীন কিউ১১কে গ্রাফিক্স ট্যাবলেট উন্মোচন | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটির তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কিত ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষর | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - যুক্তরাষ্ট্রে বিনিয়োগ করতে যাচ্ছে ফক্সকন | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - স্মার্ট টেকনোলজি ও সিভিল এভিয়েশনের চুক্তি সই | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - ফিরে আসছে সিটিসেল | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - আসছে স্মার্ট রিং |
প্রথম পাতা / ইন্টারভিউ / ‘আইটি ট্রেনিং নিন, জীবনে পরিবর্তন আনুন’
‘আইটি ট্রেনিং নিন, জীবনে পরিবর্তন আনুন’

‘আইটি ট্রেনিং নিন, জীবনে পরিবর্তন আনুন’

jakirউন্নত ও স্বাচ্ছন্দ্য জীবন যাপনের জন্য ভাল রোজগার তথা ভাল জব অত্যন্ত জরুরি। কিন্তু চাইলেই তো আর ভাল জব পাওয়া যায় না। এর জন্য অনেক কাঠ-খড় পোড়াতে হয়। তারপরও অনেকে একটা ভাল জব জোগাড় করতে পারেন না। আর প্রবাসে বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে হলেতো কথাই নেই। সেখানে একটা ভাল কাজ পাওয়া যে কতটা কষ্টসাধ্য তা শুধু ভুক্তভোগীরাই জানেন।

যুক্তরাষ্ট্রে অনেকেই উন্নত ভবিষ্যতের জন্য একরাশ রঙিন স্বপ্ন নিয়ে যান। কিন্তু সেখানকার বাস্তবতার মুখোমুখি হয়ে তারা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েন। উচ্চ শিক্ষা অর্জন করে গিয়েও সেখানে তারা ‘অডজব’ করতে বাধ্য হন।অথচ একটু প্রশিক্ষণ ও দক্ষতা থাকলে ভাল জব পেতে কোন বেগ পেতে হয় না। অনেক ক্ষেত্রে চাকরিদাতারাই তাদের খুজেঁ নেন।বর্তমানে বিশ্বজুড়ে আইটি (ইনফরমেশন টেকনোলজি) সংক্রান্ত জবগুলোই সবচেয়ে ভাল জব হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। আইটি সেক্টরে দক্ষদের যুক্তরাষ্ট্রেসহ সমগ্র বিশ্বেই রয়েছে প্রচুর ডিমান্ড।

তাই এই ক্ষেত্রে যারা এগিয়ে ভাল জব পাওয়ার ক্ষেত্রে তারাই এগিয়ে আছেন। আর এজন্য দরকার আইটির কোন না কোন বিষয়ে উপযুক্ত প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেকে যোগ্য করে তোলা।অনেক ট্রেনিং প্রতিষ্ঠান ইনফরমেশন টেকনোলজির বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। তবে আইটি বিষয়টি আনেকের কাছে বেশ জটিল। তাই প্রশিক্ষণ নেয়ার পরও অনেকেরেই তা কাজে আসে না।

তবে এই জটিল বিষয়টি অত্যন্ত সহজ ও নিবিড়ভাবে প্রশিক্ষণ দিয়ে শিক্ষার্থীদের উন্নত জবের জন্য উপযুক্ত করার কাজটিই গত ৮ বছর ধরে সফলতার সাথে করে যাচ্ছে ‘ডাটা গ্রুপ’ নামক একটি আইটি প্রশিক্ষণদানকারী প্রতিষ্ঠান।

আমেরিকায় পাড়ি জমানো তরুণদের স্বপ্নময় জীবনের ‘ভাগ্য বিধাতা’ হিসেবে পরিচিতি পাওয়া বাংলাদেশী তরুণ জাকির হোসাইন এই ‘ডাটা গ্রুপে’র প্রতিষ্ঠাতা।‘ডাটা গ্রুপ’২০০৮ সালে আমেরিকায় যাত্রা শুরু করে। এর প্রধান লক্ষ্য ছিল আমেরিকায় পাড়ি জমানো তরুণ-তরুণীদের প্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তোলা এবং চাকরির বাজারে তাদের উপযোগিতা তৈরি করা।প্রতিষ্ঠানটির সিইও ইঞ্জিনিয়ার জাকির হোসেন জানান, আমেরিকার আইটি পেশার ক্ষেত্রে চাহিদা অনুযায়ী নেই দক্ষ জনবল। তাই মাত্র ৬ মাসের কোর্স সম্পন্ন করে এই সেক্টরের জন্য নিজেকে যোগ্য করে তোলা অনন্য সুযোগ রয়েছে।

এই ট্রেনিং নেয়ার এক্ষেত্রে পূর্বের কোনো কোর আইটি ব্যাকগ্রাউন্ড না থাকলেও চলবে। আইটি প্রফেশনালস, নন আইটি প্রফেশনালস, ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টস, গ্রাজুয়েটসহ যেকোন ব্যক্তি যার ন্যূনতম এডুকেশনাল ব্যাকগ্রাউন্ড এসোসিয়েটস বা সমমর্যাদার যেকোন ফরেন ডিগ্রি তারা ট্রেনিং নিতে পারবেন।

যারা নূন্যতম উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেছেন এবং বেসিক কম্পিউটার জ্ঞান রয়েছে তারাই এখানে ভর্তি হতে পারেন। আগ্রহীরা সরাসরি অথবা অনলাইনে ভর্তি হতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে- ৭০৩-২০৩-২৩২৫ নম্বরে ডায়াল করতে পারেন কিংবা help@DataGroup.com ইমেইলে যোগাযোগ করতে পারেন। ভিজিট করতে পারেনwww.DataGroupUSA.com/portal ওয়েবসাইটে।শুধু ট্রেনিং নয়, ‘ডাটা গ্রুপ’ যোগ্য ও দক্ষ প্রার্থীদের উপযুক্ত চাকরির ব্যবস্থা করে। প্রতিষ্ঠানটি আমেরিকার অন্যতম বৃহৎ কয়েকটি রিক্রুটিং ফার্মের সাথে কাজ করে। ওই রিক্রুটিং ফার্মগুলোর মাধ্যমে তারা তাদের প্রশিক্ষণার্থীদের এই রিক্রুটিং করে থাকে। তাছাড়া ‘ডাটা গ্রুপে’র স্পেশাল জব রেডিনেস প্রোগ্রাম, ডেডিকেটেড মার্কেটিং টিম এবং ক্যারিয়ার হেল্প ডেস্ক প্রভৃতি সার্ভিসগুলোও রয়েছে।

জাকির হোসেন জানান, এরই মধ্যে প্রায় ৩ হাজার প্রশিক্ষণার্থী ‘ডাটা গ্রুপ’-এ ট্রেনিং নিয়ে তাদের জীবন বদলাতে সক্ষম হয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় সমস্ত প্রতিষ্ঠানেই যেমন- নাসা, পেন্টাগণ, হোয়াইট হাউজ, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি, লেবার ডিপার্টমেন্ট, DOT, DOH, CACI, CSC,HP, IBM, SRA, CSRA, GEICO, US CODE, USAID বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ আমেরিকার প্রায় সকল জায়াগাতেই রয়েছেন ‘ডাটা গ্রুপ’-এর শিক্ষার্থীরা। যারা বছরে ৯০ থেকে ১৩০ হাজার মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ৭০ লক্ষ থেকে ১ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা) বেতন পাচ্ছেন।শুধু বাংলাদেশিরাই নন; এখানে ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, শ্রীলংকা, আফগানিস্তান, তুরস্ক, স্পেন, মরক্কো, পোল্যান্ড, ঘানা, ইথিওপিয়া, সুদান, ইরাক, ইরান, লেবাননসহ প্রায় ১৭টি দেশের শিক্ষার্থীরা ট্রেনিং নিয়ে তাদের জীবন পরিবর্তন করেছেন।

তিনি আরো জানান, ‘ডাটা গ্রুপ’-এ ট্রেনিংয়ের জন্য প্রশিক্ষণার্থীদের কাছ থেকে অত্যন্ত যুক্তিসঙ্গত ফি নেয়া হয়। এছাড়া রয়েছে মাসিক কিস্তিতে ফি পরিশোধের ব্যবস্থা। অনলাইন স্টুডেন্টদের জন্য রয়েছে আমাদের বিশেষ ডিসকাউন্ট। আর অর্থিকভাবে অস্বচ্ছলদের ফ্রি ট্রেনিং করানো হয়।বাংলাদেশের গাজীপুরের সন্তান জাকির হোসাইন ১৯৯১-১৯৯২ সেশনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালে সয়েল সাইন্সে পরে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিজিক্সে ভর্তি হন। কিন্তু সেখানকার পাঠ শেষ না করেই আমেরিকায় পাড়ি জমান তিনি। সেখানে তিনি অরেগন স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে গ্রাজুয়েশন করেন।

প্রচারবিমুখ জাকির হোসাইন চাকরিজীবনে বিশ্ববিখ্যাত ও স্বনামধন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন। আইটি সেক্টর বিষয়ে তার রয়েছে গভীর জ্ঞান এবং রয়েছে প্রশিক্ষক হিসেবে যথেষ্ট দক্ষতা। বর্তমানে তিনি ম্যানেজমেন্ট লেভেল পজিশনে ইউএসএইড- এর আইটি বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন।আমেরিকায় আইটি সেক্টরের প্রবাদপুরুষ জাকির হোসাইন ইতোমধ্যে সেখানকার বাঙালি কমিউনিটির কাছে ‘জীবন বান্ধব আইটি বন্ধু’ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।তরুণদের জন্য তার একটাই বার্তা- ‘জীবনে পরিবর্তন আনুন’।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top