ঢাকা | শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ |
২৭ °সে
|
বাংলা কনভার্টার
walton

৪জি গতির পরীক্ষায় ফেল রবি, জিপি ও টেলিটক !

৪জি গতির পরীক্ষায় ফেল রবি, জিপি ও টেলিটক !
ফোরজি গতির পরীক্ষায় ফেল রবি, জিপি ও টেলিটক

সিলেটে চতুর্থ প্রজন্মের টেলিকমিউনিকেশন সেবা ফোর-জিতে গ্রাহকদের নির্ধারিত গতিতে ইন্টারনেট সেবা দিচ্ছে না রবি, গ্রামীণফোন এবং টেলিটক। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) জরিপেই ধরা পড়েছে ফাঁকিবাজির এই চিত্র। তবে নির্ধারিত গতিতে ইন্টারনেট সেবা দিচ্ছে বেসরকারি অপারেটর বাংলালিংক।

সিলেট বিভাগের চার জেলার ২২ উপজেলায় ১৭ জুন থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত একটি জরিপ চালিয়েছিল বিটিআরসি। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) এ জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রকাশিত জরিপ প্রতিবেদনে দেখা গেছে, সিলেটে বাংলালিংক ছাড়া বাকি তিন মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রাহকদের ফোর-জি সেবায় ৩ থেকে ৪ দশমিক ৪৩ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট সেবা দিচ্ছে। অথচ বিটিআরসির মান অনুযায়ী, ফোরজি সেবায় গ্রাহকদের ইন্টারনেটের গতি সেকেন্ডে সর্বনিম্ন ৭ এমবিপিএস রাখতে হবে।

এ জরিপে দেখা গেছে, ফোর-জিতে ডাউনলোডে প্রতি সেকেন্ডে গ্রামীণফোন ও রবির গতি ছিল যথাক্রমে ৪ দশমিক ৪২ এমবিপিএস এবং ৪ দশমিক ৪৩ এমবিপিএস। এদিকে রাষ্ট্রীয় অপারেটর টেলিটকের গতি ছিল ৩ দশমিক ৩৯ এমবিপিএস। তবে ফোরজি সেবার শর্ত পূরণ করেছে বাংলালিংক। বাংলালিংকের গতি ছিল সেকেন্ডে ৮ দশমিক ৯৩ এমবিপিএস।

কিন্তু ডাউনলোডে পিছিয়ে থাকলেও ফোর-জিতে আপলোডের ক্ষেত্রে এগিয়ে অপারেটররা। বিটিআরসির নীতিমালা অনুযায়ী, ফোরজিতে সেকেন্ডে ১ এমবিপিএসের চেয়ে বেশি গতি থাকতে হবে। তবে জরিপের তথ্য বলছে, গ্রামীণফোন ৯ দশমিক ৪৭, রবি ৯ দশমিক ৬৬, বাংলালিংক ১৩ দশমিক ২৭ এবং টেলিটক ৫ দশমিক ২৯ এমবিপিএস গতিতে সেবা দিচ্ছে।

এদিকে থ্রিজি সেবার ক্ষেত্রে ভাল করছে চার অপারেটরই। থ্রিজির ক্ষেত্রে নীতিমালা অনুযায়ী, সর্বনিম্ন গতি দুই এমবিপিএস রাখতে হয়। এ ক্ষেত্রে থ্রি-জি সেবায় গ্রামীণফোনের ইন্টারনেট গতি ছিল সেকেন্ড ৪ দশমিক ১৫ এমবিপিএস, রবির ৪ দশমিক ২২ এমবিপিএস, বাংলালিংকের ৮ দশমিক ২৯ এমবিপিএস এবং থ্রি-জিতে টেলিটকের ইন্টারনেটের গতি সেকেন্ডে ২ দশমিক ৯৮ এমবিপিএস।

থ্রি-জিতে আপলোডের ক্ষেত্রে গ্রামীণফোনে গতি ৮ দশমিক ৬২ এমবিপিএস, রবিতে ৯ দশমিক ০২ এমবিপিএস, বাংলালিংকে ১১ দশমিক ৯৯ এমবিপিএস এবং টেলিটকে ৪ দশমিক ০৯ এমবিপিএস।

তবে চার মুঠোফোন অপারেটরের কলড্রপ হার রয়েছে নির্ধারিত সীমার মধ্যেই। নীতিমালা অনুযায়ী কলড্রপ হার দুই শতাংশের নিচে রাখতে হয় অপারেটরদের।

প্রতিবেদনের প্রকাশিত তথ্য মতে, গ্রামীণফোনের কলড্রপের হার শূন্য দশমিক ২৬ শতাংশ, বাংলালিংকের শূন্য দশমিক ৭৪ শতাংশ, রবির শূন্য দশমিক ৫৫ শতাংশ এবং টেলিটকের ১ দশমিক ১৪ শতাংশ।

যদিও কল সংযোগ সময়ের ক্ষেত্রে ভালো অবস্থানে রয়েছে চার মুঠোফোন অপারেটর, তবে কল সংযোগ সফলতা হারে পিছিয়ে রয়েছে রবি ও টেলিটক। গ্রামীণফোনের কল সংযোগ সফলতা হার ৯৯ দশমিক ৭০ শতাংশ, বাংলালিংকের ৯৮ দশমিক ৪২ শতাংশ, রবির ৯৫ দশমিক ০৪ শতাংশ। টেলিটকের ৯৫ দশমিক ০৩ শতাংশ। নীতিমালা অনুযায়ী কল সংযোগ সফলতা হার ৯৭ শতাংশ রাখতে হবে অপারেটরদের।

রবি,জিপি,টেলিটক,গতির পরীক্ষায় ফেল,৪জি
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়