Digital Day 2021
ঢাকা | শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ |
২৬ °সে
|
বাংলা কনভার্টার
walton

কচ্ছপ গতির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট - ১৪০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩০তম

কচ্ছপ গতির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট -  ১৪০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩০তম
কচ্ছপ গতির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট - ১৪০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩০তম

বাংলাদেশে ইন্টারনেটের দাম তুলনামূলকভাবে কম হলেও এর মান ও গতির অবস্থা ভালো নয় বলে জানিয়েছে ইন্টারনেটের দাম ও গতি নিয়ে পর্যালোচনাকারী ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠান কেবলডটকোডটইউকে। ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের গতি ২২০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৯৫তম।

অন্যদিকে ইন্টারনেটের গতি পরীক্ষা ও বিশ্লেষণের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান ওকলার তথ্য অনুযায়ী, মোবাইল ইন্টারনেটের গতির দিক থেকেও বাংলাদেশ পিছিয়ে। ইন্টারনেটের গতির তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরে জুলাই মাসের তথ্য অনুযায়ী, ১৪০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩০তম। ওকলার হিসাবে বাংলাদেশে মোবাইল ইন্টারনেটের ডাউনলোড গতি ৯ দশমিক ৬৪ এমবিপিএস। আপলোডের গতি ৭ দশমিক ৭৫ এমবিপিএস। এক বছর আগে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৩১তম।

ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের সেবার মান দিন দিন বৃদ্ধি না পেয়ে কমে যাচ্ছে। আমাদের দাবি ছিল আইএসপিএবি প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স দেওয়ার প্রধান শর্ত থাকবে সরকার নির্ধারিত মূল্যে উন্নত এবং সর্বোচ্চ গতির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা দেওয়া। বর্তমানে প্রায় দুই হাজারের অধিক লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠান আছে। প্রায় দশ হাজার অবৈধ।

কেবলডটকোডটইউকে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে গড়ে ১ জিবি ডেটার দাম শূন্য দশমিক ৩২ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় গড়ে ১ জিবির জন্য খরচ হয় ৩০ টাকা ৪১ পয়সা। যদিও গত বছর এ দাম ছিল শূন্য দশমিক ৩৪ ডলার তথা ৩২ দশমিক ৩১ টাকা। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের চেয়ে কম দামে মোবাইল ইন্টারনেট পাওয়া যায় ভারতে (শূন্য দশমিক ১৭ ডলার), নেপাল ও শ্রীলঙ্কায় (শূন্য দশমিক ২৭ ডলার)।

তবে বিশ্বে মোবাইল ইন্টারনেটের দাম সবচেয়ে সস্তা ইসরায়েলে। মোবাইল ইন্টারনেটের কম দামের দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ১২তম। তবে এটি গতবার ছিল অষ্টম অবস্থানে। এতে ২৩৩টি দেশের ৫ হাজার মোবাইল ডেটা প্ল্যানের ১ জিবি খরচের তুলনামূলক পর্যালোচনা করা হয়েছে।

কেবলডটকোডটইউকে ২২০টি দেশের বৈশ্বিক ব্রডব্যান্ডের তুলনামূলক দামও পর্যালোচনা করেছে। সেপ্টেম্বরে দেওয়া বিশ্বের মোবাইল ডেটার দাম সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠানটির পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশের ব্রডব্যান্ড ও মোবাইল ডাটার মান দুটিই খারাপ। বাংলাদেশে ব্রডব্যান্ড ব্যবহারের জন্য মাসে গড়ে ১৭ দশমিক ৪০ ডলার অর্থাৎ দেড় হাজারের কিছু বেশি টাকা খরচ করতে হয়। বাংলাদেশে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা খরচ করলে ব্রডব্যান্ড সেবা পাওয়া যায়। দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের চেয়ে ব্রডব্যান্ডের দাম কম নেপাল (১১ দশমিক ৭০ ডলার), শ্রীলঙ্কা (১৪ দশমিক ৯৯ ডলার) ও ভারতে (১৫ দশমিক ৫৯ ডলার)।

যাদের লাইসেন্স আছে তাদের আমরা সতর্ক করতে পারি। কিন্তু যাদের লাইসেন্স নেই তাদের বিষয়ে অভিযোগগুলোর নাম-ঠিকানা বিটিআরসির কাছে দিচ্ছি। বিটিআরসি যদি অ্যাকশন না নেয় আমাদের তো করার কিছু থাকে না। তাদের যথেষ্ট লোকবল নেই। অফিস নেই।

কেবলডটকোডটইউকে তথ্য অনুযায়ী, ব্রডব্যান্ডে গতির দিক থেকে দক্ষিণ এশিয়ায় ভারতের অবস্থান ৭৭তম, মালদ্বীপ ১২৭তম, শ্রীলঙ্কা ১২৯তম, নেপাল ১৩৯তম এবং ভুটান ১৪৩তম। এর মধ্যে ভারত, শ্রীলঙ্কা ও নেপালে ইন্টারনেটের দাম বাংলাদেশের চেয়ে কম। বাংলাদেশের গড় ডাউনলোড গতি ৩ দশমিক ৭৪ এমবিপিএস। এখানে ৫ জিবির একটি সিনেমা নামাতে ৩ ঘণ্টা ২ মিনিট ৩২ সেকেন্ড সময় লাগে।

বাংলাদেশের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ব্রডব্যান্ডে ধীরগতির কারণ হলো নিয়মবহির্ভূতভাবে ব্যবসা চালানো, পেশিশক্তি ও বিটিআরসির নজরদারির অভাব। ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সদস্য নয় এমন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান দ্বারা সেবা পরিচালনা। আইনে না থাকলেও স্যাটেলাইট ক্যাবল অপারেটদের এই কাজ করতে দেওয়া।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের জুলাই মাসে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে। বিটিআরসির তথ্য অনুযায়ী, জুনের তুলনায় জুলাই মাসে প্রায় ১৪ লাখ নতুন ডেটা ব্যবহারকারী গ্রাহক বেড়েছে। জুলাই মাসের ৩ দশকিম ৮ শতাংশ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে। ফলে মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১২ দশমিক ৭৬ কোটিতে পৌঁছেছে।

কচ্ছপ গতি,ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট,বাংলাদেশের অবস্থান ১৩০তম
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়