শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - ওয়ান প্লাসের নতুন পাওয়ার ব্যাংক | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - স্প্যাম মেসেজ ঠেকাতে হোয়াটসঅ্যাপের নতুন ফিচার | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - যাত্রা শুরু করলো ওয়ালটনের কম্পিউটার কারখানা | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - নতুন স্মার্টফোন আনল হুয়াওয়ে অনার | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - স্বল্প মূল্যের গ্যালাক্সি সিরিজের ফোন ‘অন৭ প্রাইম’ | বুধবার, জানুয়ারী 17, 2018 - একত্রে কাজ করবে এটুআই এবং একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প | বুধবার, জানুয়ারী 17, 2018 - ল্যাপটপের সঙ্গে রাউটার ফ্রি! | বুধবার, জানুয়ারী 17, 2018 - ‘অপো এশিয়ায় সর্বাধিক বিক্রীত স্মার্টফোন’ | বুধবার, জানুয়ারী 17, 2018 - চীনে চালু হচ্ছে গুগলের এআই ল্যাব | বুধবার, জানুয়ারী 17, 2018 - বৈদ্যুতিক গাড়িতে ১১০০ কোটি ডলার বিনিয়োগে ফোর্ডের আগ্রহ প্রকাশ |
প্রথম পাতা / অফবিট / আইফোন ১০ ল্যাপটপের চেয়েও শক্তিশালী
আইফোন ১০ ল্যাপটপের চেয়েও শক্তিশালী

আইফোন ১০ ল্যাপটপের চেয়েও শক্তিশালী

i-phone-10অ্যাপলের সর্বশেষ আইফোন ৮, ৮ প্লাস এবং বিশেষ সংস্করণ আইফোন টেন সর্বশেষ বাজারে আসা ল্যাপটপের চেয়ে শক্তিশালী। খটকা লাগলেও বিষয়টি এমনই। কারণ প্রতিষ্ঠানটির ডিজাইন করা চিপ ডিভাইসগুলোকে বরাবরই অন্যান্য মোবাইলের পারফরমেন্সকে টেক্কা দিয়ে আসছে।

সেই ধারাবাহিকতায় আইফোন ৮, ৮+ ও ১০ এ থাকা এ১১ বায়নিক চিপটিও ব্যতিক্রম নয়। আর তাতেই বাজিমাত অ্যাপল। সর্বশেষ আইফোনে ব্যবহার করা তাদের প্রসেসরটি ইন্টেলের সর্বশেষ ৭ম জেনারেশনের ল্যাপটপ কোর আই৫ প্রসেসরকেও পারফরমেন্সে টেক্কা দিচ্ছে।

rankপ্রসেসরের পারফরমেন্স মাপার জনপ্রিয় সফটওয়্যার গিকবেঞ্চ চালানোর পর দেখা গেছে, এ১১ বায়নিক সমৃদ্ধ আইফোন ১০ এর সিঙ্গেল কোর পারফরমেন্স স্কোর এসেছে ৪০৬১, একই পরীক্ষায় কোর আই৫ সমৃদ্ধ ম্যাকবুক প্রোতে চালানোর পর স্কোর পাওয়া গিয়েছে ৪০৩৬।স্কোর দুটি নিয়ে চুল-চেরা বিশ্লেষণ প্রয়োজন নেই, সরাসরি দেখা যাচ্ছে প্রসেসর দুটির সিঙ্গেল কোর প্রায় সমান ক্ষমতাধর।

তবে মাল্টিকোর, অর্থাৎ সবগুলো কোর ব্যবহার করে পরীক্ষাটি চালানো হলে এ১১ স্কোর করে ৯৯৫৯, অথচ কোর আই৫ মাত্র ৮৮৬৯ স্কোর করতে সক্ষম। ফলে দেখা যাচ্ছে, সব মিলিয়ে অ্যাপল এ১১ বায়নিক ৭ম জেনারেশন কোর আই৫ এর চাইতে দ্রুত কাজ করতে সক্ষম।তাই বলে এমনটি ভাবার মানে নেই যে, আইফোন ১০ ম্যাকবুকের কাজ করতে পারবে, দুটির ডিজাইন ও কাজের পরিধি দুই ধরনের। তবে ভাবনার বিষয় হচ্ছে, অ্যাপল যদি ক্ষুদ্রাকৃতির প্রসেসর থেকে বড়সড় প্রসেসরের চাইতেও বেশি পারফরমেন্স বের করে নিতে পারে।

অ্যাপল ভবিষ্যতে ম্যাকবুকেও এমন প্রসেসর ব্যবহার করতে পারে। তখন কম্পিউটার দুনিয়ায় বড় ধরনের একটা ধাক্কা লাগবে এতে সন্দেহ নেই।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top