শিরোনাম

সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - গুগলের এই এয়ারপড হেডফোন যখন ট্রান্সলেটর | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - কম্পিউটার গেমের আসক্তিতে হতে পারে ভয়াবহ পরিণতি | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ওটিসি ড্রাগ বিষয়ে সচেতনতা জরুরি | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ইউরোপ ও আমেরিকায় মেডিক্যাল পড়াশোনা | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ইউরোপ সাইপ্রাসে পড়াশোনা ও কাজ | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - আসুসের নতুন অষ্টম প্রজন্মের মাদারর্বোড বাজারে | সোমবার, অক্টোবর 16, 2017 - ক্লাউড কম্পিউটিং মেলায় অংশ গ্রহন করছে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল | রবিবার, অক্টোবর 15, 2017 - পাতায়া ভ্রমনের স্বপ্ন পূরণ | রবিবার, অক্টোবর 15, 2017 - বৃৃটিশ কাউন্সিল আয়োজিত বই পড়া প্রতিযোগিতার চুড়ান্ত পরীক্ষা সম্পন্ন | রবিবার, অক্টোবর 15, 2017 - ঢাকায় অনুষ্ঠিত হলো ডিজিটাল মার্কেটিং সামিট ও অ্যাওয়ার্ড ২০১৭ |
প্রথম পাতা / ইন্টারভিউ / কঠিন উদ্যোগে সফল উদ্যোক্তা জিয়া আশরাফ
কঠিন উদ্যোগে সফল উদ্যোক্তা জিয়া আশরাফ

কঠিন উদ্যোগে সফল উদ্যোক্তা জিয়া আশরাফ

 

chaldalবর্তমান সময়ে সফল উদ্যোক্তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশী যাদের নাম উচ্চারিত হচ্ছে তাদের মধ্যে একজন জিয়া আশরাফ। জিয়া আশরাফ অনলাইন ই-কমার্স (গ্রোসারী শপ) ‘চালডাল ডট কম’ এর ফাউন্ডার ও সিওও (চিফ অপারেটিং অফিসার) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তার শৈশব কেটেছে ঢাকাতেই বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় নর্থসাউথ থেকে মার্কেটিংয়ে বিবিএ করেছেন।

লেখাপড়ার পাঠ চুকিয়ে তিনি প্রথমে যোগদেন এশটি বেসরকারী ব্যাংকে। এরপর তিনি একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে অফিসার ইনচার্জ হিসেবে প্রায় দুই বছর কাজ করেছেন। ২০১২ সালের শেষের দিকে নতুন কিছু করার জন্য চাকরি ছেড়ে দেন। ছোটবেলার বন্ধু ওয়াসিম আলীম ও তেজাস বিশ্বনাথের সাথে আলোচনা করে ঠিকরেন তারা ব্যবসা করবেন।
প্রথম দিকে গার্মেন্টস এর ব্যবসা করার চিন্তা থাকলেও নানা প্রতিকুলতার কারনে তা আর করা হয়নি। পরে মার্কেট রিসার্চ করে দেখা যায় অনলাইন ই-কমার্স সাইটগুলো নিয়ে বাংলাদেশের মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। তখন জিয়া আশরাফ আর তার দুইবন্ধু মিলে সিদ্ধান্ত নেন ই-কমার্স ব্যবসা করবেন। কিন্তু সমস্যার সৃষ্টি হয় তারা অনলাইনে ঠিক কি ধরনের পণ্য বিক্রি করবেন তা নিয়ে। অনেক চিন্তা ভাবনা ও মার্কেট রিসার্চ করার পর তিনবন্ধু মিলে সিদ্ধান্ত নেন নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য নিয়ে তারা অনলাইন ই-কমার্স সাইটে ব্যবসা করবেন। যে পণ্যগুলো সব মানুষের প্রতিদিনই প্রয়োজন হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৩ সালে শুরুর দিকে অনলাইন ই-কমার্স (গ্রোসারী শপ) সাইট ‘চালডাল ডট কম’ চালু হয়।

chaldal-app
প্রথম দিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় এসব কাঁচা পণ্য সংগ্রহ করতে অনেক হিমশিম খেতে হয়েছে বলে জানালেন জিয়া আশরাফ। তিনি বলেন, শুরুতে নিজেরাই নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সংগ্রহ করে নিজেরাই তা ডেলিভারী করার সিদ্ধান্ত নেই। তখন গুলশান, বনানী ও বারিধারাতে সার্ভিস দেয়া শুরু করি। ফেসবুক ও ই-কমার্স সাইট থেকে প্রথম দিনে দুটি অর্ডার পেয়েছিলাম। এরপর থেকে ধীরে ধীরে তা বাড়তে থাকে। বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে ৬০০টি অর্ডার পাচ্ছি এবং ক্রমান্বয়ে তা বাড়ছেই। ক্রেতার চাহিদার কারনে ধীরে ধীরে পণ্যের তালিকা বাড়তে থাকে। ‘চালডালডটকম’ ওয়েব সাইটটিকে এমনভাবে সাজানো হয়েছে যাতে যে কেউ খুব সহজেই তার কাংখিত পণ্য অর্ডার করতে পারেন।
জিয়া আশরাফ ‘চালডাল ডট কম’ এর সেবা সম্পর্কে বলেন, আমরা সব সময় সততার সাথে আমাদের ব্যবসা পরিচালনা করে থাকি। আমরা মার্কেটের তুলনায় কমদামে আমাদের পণ্য সরবরাহ করি। অর্ডার করার পর থেকে ১ ঘন্টার মধ্যে আমরা কাষ্টমারের কাছে পণ্য পৌঁছে দিয়ে থাকি। ২০০ টাকার বেশী পণ্য কিনলে সার্ভিস চার্জ ফ্রি আর ২০০টাকার কম পন্য কিনলে ৪০ টাকা সার্ভিস চার্জ নেয়া হয়। এছাড়া পণ্য সম্পর্কে কোন অভিযোগ থাকলে ৭ দিনের মধ্যে আমরা তা পরিবর্তন করে দেই। কোন কাষ্টমার পণ্য পরিবর্তন না করে টাকা চাইলে আমরা তাকে টাকা ফেরত দিয়ে থাকি। ঢাকার ৫টি স্থানে আমাদের ওয়ার হাউজ রয়েছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটিতে ৩৫০ জনের বেশী কর্মকর্তা কর্মচারী কাজ করছেন।

chaldal-founder
‘চালডাল ডট কম’ এর কাষ্টমার সিকিউরিটির কথা বিবেচনায় রেখে সমস্ত খোঁজ খবর নিয়ে ডেলিভারি ম্যান নিয়োগ করা হয়। নিয়োগের পর প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে উন্নত সেবা দানের লক্ষে তাদের ট্রেনিং প্রদান করা হয়। এছাড়া প্রতিটা ডেলিভারিম্যানকে ডেলিভারি করাকালীন সময়ে ট্রাকিং করা হয়। কোন কাষ্টমার ‘চালডালডটকম’ এর হটলাইন নাম্বারে ফোন করে অভিযোগ করলে দ্রুততার সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়। ‘চালডালডটকম’ ভবিষ্যতে অনলাইন ই-কমার্স সাইটগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের রোল মডেল হিসেবে দাড়াতে চায়। বর্তমানে শুধু ঢাকা নিয়ে কাজ করলেও ভবিষ্যতে পুরো বাংলাদেশে কভারেজ করার পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন কোম্পানীকে ডেলিভারি সাপোর্ট দেয়ার চিন্তাও করছে প্রতিষ্ঠানটি।

সরকার যদি কখনো অনুমতি দেয় তবে ড্রোন দিয়ে পন্য ডেলিভারি করার পরিকল্পনা রয়েছে এতে খুব কম সময়ে পণ্য ডেলিভারি দেয়া সম্ভব হবে।
ক্যারিয়ার বিল্ডিয়ের ক্ষেত্রে ই-কমার্স সাইটগুলোতে দারুন সম্ভাবনা হয়েছে বলে মনে করেন জিয়া আশরাফ। স্টুডেন্টদেরকে তিনি প্রোপার প্লানিং এবং সৎ থেকে কাজ করার পরামর্শ দেন। ই-কমার্স সাইটগুলোতে সরকার বাড়তি ভ্যাট আরোপ করলে এর বিরূপ প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া পণ্য ডেলিভারির ক্ষেত্রে মোটর সাইকেলের সাথে বক্স লাগানোর কোন বৈধ অনুমতি পাওয়ার ব্যবস্থা না থাকায় প্রতিদিনই নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখিন হতে হয়। সরকার পণ্য ডেলিভারি জন্য মোটর সাইকেলের সাথে বক্স লাগানোর অনুমতি প্রদান করলে সেবা প্রদান আরো সহজ হবে বলে মনে করেন তিনি।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top