শিরোনাম

বুধবার, ডিসেম্বর 13, 2017 - জেমসক্লিপ এবং অ্যাডকম লিমিটেড-এর সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর | বুধবার, ডিসেম্বর 13, 2017 - টানলেই ইলাস্টিকের মতো বাড়বে এই ব্যাটারি,দাবি গবেষকদের | বুধবার, ডিসেম্বর 13, 2017 - টাকার চিন্তায় ডুবে থাকা মানুষই ফেসবুকে বেশি অ্যাক্টিভ:গবেষণা | বুধবার, ডিসেম্বর 13, 2017 - হোয়াটস অ্যাপে নতুন ফিচার,গ্রুপ থেকেই ব্যক্তিগত মেসেজ | বুধবার, ডিসেম্বর 13, 2017 - পোক ফিচারটি ফিরিয়ে আনছে ফেসবুক | বুধবার, ডিসেম্বর 13, 2017 - গ্রামীণফোনের প্যানেল আলোচনায় ডিজিটাল চট্টগ্রামের রূপরেখা | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর 12, 2017 - দেশের সবচেয়ে বড় গেমিং প্লাটফর্ম ‘মাইপ্লে’ চালু করলো রবি | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর 12, 2017 - রাজধানীতে টেকনোর আরও নতুন দুইটি ব্র্যান্ড শপের শুভ উদ্বোধন | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর 12, 2017 - বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানীতে ল্যাপটপ মেলা | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর 12, 2017 - মোবাইল ইন্টারনেট গতিতে বাংলাদেশের অবস্থান ১২০তম |
প্রথম পাতা / ক্যারিয়ার / চাকরিপ্রার্থীদের ব্যক্তিগত তথ্য অনৈতিক ব্যবসা করছে বিডিজবস
চাকরিপ্রার্থীদের ব্যক্তিগত তথ্য অনৈতিক ব্যবসা করছে বিডিজবস

চাকরিপ্রার্থীদের ব্যক্তিগত তথ্য অনৈতিক ব্যবসা করছে বিডিজবস

কর্মকর্তা পদে নিয়োগের বিজ্ঞাপন ২০১১ সালে বিডিজবস ডটকমে পোস্ট করে ওসিবিসি নামে সিঙ্গাপুরভিত্তিক একটি ব্যাংক। আগ্রহী প্রার্থীরা আবেদনপত্রও জমা দিতে শুরু করেন উল্লিখিত ঠিকানায়। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে দেশে এ নামের কোনো ব্যাংকের অনুমতি দেয়া হয়নি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদনহীন ওই ব্যাংকের বিজ্ঞাপন সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয় বিডিজবস ডটকমকে। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে, যাচাই-বাছাই ছাড়াই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করছে তারা। আর সে সুবাদে চাকরিপ্রার্থীর অনুমতি না নিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে নিজেদের তথ্যভাণ্ডার ব্যবহারের সুযোগ দিচ্ছে।

অনলাইনভিত্তিক জব পোর্টালগুলো তাদের জীবনবৃত্তান্তের এ তথ্যভাণ্ডার অর্থের বিনিময়ে ব্যবহারের সুযোগ দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অথচ এ তথ্যগুলো শুধু চাকরির জন্য আবেদনের উদ্দেশ্যেই সরবরাহ করেন প্রার্থীরা। দেশে ব্যক্তিগত তথ্যের গোপনীয়তাসংশ্লিষ্ট সুনির্দিষ্ট নীতিমালা না থাকায় এ অনৈতিক বাণিজ্যের প্রসার ঘটছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। ফলে আর্থিক খাতের জালিয়াতির সুযোগ বাড়ার পাশাপাশি বিঘ্নিত হচ্ছে ব্যক্তিগত নিরাপত্তার বিষয়টিও।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, দেশে ই-মেইলভিত্তিক বিপণন সেবা দিচ্ছে বেশকিছু প্রতিষ্ঠান। এগুলোর মধ্যে একাধিক প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে, এসব ই-মেইল ঠিকানা তারা সংগ্রহ করেছেন বিডিজবসের কাছ থেকে। নির্দিষ্ট অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে বিডিজবস থেকে ই-মেইলের এ তালিকা সংগ্রহ করেছে তারা। তবে নিজেদের প্রতিষ্ঠানের নাম এবং অর্থের পরিমাণ কোনোটাই প্রকাশ করতে রাজি হয়নি বিপণন সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো।

120544bd2

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেন বিডিজবস ডটকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম ফাহিম মাশরুর। তিনি বলেন, চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান জীবনবৃত্তান্ত দেখবে এটা জেনেই চাকরিপ্রার্থীরা আমাদের সাইটে তাদের জীবনবৃত্তান্ত জমা দেন। নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে সীমিত সময়ের জন্য চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিডিজবসে থাকা জীবনবৃত্তান্তগুলো অনলাইনে দেখার সুবিধা দেয়া হয়। তবে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তিতে জীবনবৃত্তান্তগুলো শুধু চাকরি প্রদানের উদ্দেশ্যেই ব্যবহার করা হবে বলে উল্লেখ থাকে। আর এটি পর্যবেক্ষণের জন্য বিডিজবসের নির্দিষ্ট বিভাগ রয়েছে।

গত ১৩ বছরে বিডিজবসের মাধ্যমে প্রায় ৫ লাখ চাকরিপ্রার্থীর কর্মসংস্থান হয়েছে উল্লেখ করে ফাহিম মাশরুর বলেন, দেশে ব্যক্তিগত গোপনীয়তাবিষয়ক নীতিমালা না থাকায় জীবনবৃত্তান্তে তথ্য প্রদানের ক্ষেত্রে বিধিনিষেধও নেই।

বেসরকারি খাতে একক প্রতিষ্ঠান হিসেবে জীবনবৃত্তান্তের সবচেয়ে বড় ভাণ্ডার রয়েছে বিডিজবস ডটকমের। দেশের শীর্ষস্থানীয় এ জব সাইটটি চালু হয় ২০০০ সালের জুলাইয়ে। প্রতিষ্ঠানটির ডাটাবেজে বর্তমানে প্রায় ১০ লাখ চাকরিপ্রার্থীর জীবনবৃত্তান্ত রয়েছে। ১৪ হাজারেরও বেশি নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান বিডিজবসের মাধ্যমে কর্মী নিয়োগ দিয়েছে। তাদের এ তথ্যভাণ্ডার ব্যবহারের জন্য চুক্তিবদ্ধ রয়েছে ছয় হাজারেরও বেশি প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন মেয়াদে প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে চুক্তি রয়েছে বিডিজবসের। ন্যূনতম মাসিক ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে তথ্যভাণ্ডার ব্যবহারের এ সুযোগ পাচ্ছে প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে তথ্যভাণ্ডার ব্যবহারের সুযোগ নিয়ে প্রতিষ্ঠানগুলো আসলে কী করছে তা যাচাই-বাছাই করে দেখা হয় না বলে অভিযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের সাবেক আইন পরামর্শক ব্যারিস্টার অনিক আর হক বলেন, ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তার বিষয়টি সাংবিধানিকভাবে মৌলিক অধিকার হিসেবে নিশ্চিত করা হয়েছে। এ ধরনের তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত না হলে পরিচয় চুরির মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের অপরাধের পাশাপাশি টেলিমার্কেটিংসহ অন্যান্য বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করার সুযোগ তৈরি হয়। এ বিষয়ে নীতিমালা প্রয়োজন।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চালু জনপ্রিয় জব সাইটগুলোর অনুকরণে দেশে চালু হওয়া সাইটগুলো এরই মধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এখানে চাকরির খবর ছাড়াও পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমও চালু করা হয়েছে। প্রতিদিনই অসংখ জীবনবৃত্তান্ত যোগ করছে এসব সাইটে। তবে উন্নত বিশ্বের দেশগুলোয় জীবনবৃত্তান্ত সংগ্রহের ক্ষেত্রে কঠোরভাবে তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষা করা হলেও দেশে সামান্য কিছু অর্থের বিনিময়েই এসব তথ্য পাওয়া সম্ভব।

বিগমাসটেকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও তথ্যপ্রযুক্তি নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ সাইদ ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন কম্পিউটারে তথ্য নিরাপত্তা নিয়ে কাজের অভিজ্ঞতায় দেখেছি কোনো গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য কম্পিউটার ছাড়া অন্য কারো জানার সুযোগ নেই। কিন্তু দেশে বিষয়টি অনুপস্থিত। এ কারণে নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করেন এমন কারো পক্ষে ইচ্ছা করলেই ব্যক্তিগত তথ্য হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে পাওয়া সম্ভব। আর এসব তথ্য ব্যবহার হতে পারে অনৈতিক নানা কর্মকাণ্ডে। তবে শেষ পর্যন্ত ভোগান্তিতে পড়তে হয় সাধারণ মানুষকে।

বিভিন্ন দেশে চাকরিপ্রার্থীদের জীবনবৃত্তান্তে জন্মতারিখ, বৈবাহিক অবস্থা, ঠিকানা ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বরসহ আরো বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উল্লেখ করার বিষয়ে বিধিনিষেধ রয়েছে। ওই দেশগুলোয় এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নীতিমালাও রয়েছে। এ ধরনের তথ্যভাণ্ডারের ক্ষেত্রে ওয়েবসাইটের নিরাপত্তার বিষয়টিও গুরুত্ব দেয়া হয়। যেমন— যেসব ওয়েবসাইটের নিরাপত্তাব্যবস্থা অটুট তাদের ঠিকানার শুরুতে এইচটিটিপির পরিবর্তে থাকে এইচটিটিপিএস। খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, সাধারণ ওয়েবসাইটের মতোই এইচটিটিপি উল্লেখ রয়েছে দেশের অধিকাংশ জব সাইটগুলোর ঠিকানায়।

ব্যাংক হিসাব খোলা কিংবা ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক শাখায় যে ধরনের বিশেষ তথ্য প্রয়োজন তা সাধারণ জীবনবৃত্তান্তে উল্লেখ করতে উন্নত বিশ্বের দেশগুলোয় নিরুত্সাহিত করা হয়। এ তথ্য ব্যবহার করে জালিয়াতির ঘটনাও ঘটেছে বিভিন্ন দেশে। সাম্প্রতিক সময়ে দেশেও ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির ঘটনা বাড়ছে। খাতসংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্যক্তিগত তথ্যের গোপনীয়তা নিশ্চিত করা সম্ভব না হলে এ ধরনের ঘটনা আরো বাড়বে।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা শাহেদ আহমেদ বলেন, চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে দেয়া জীবনবৃত্তান্ত শুধু চাকরির জন্যই দেয়া হয়। এর তথ্য অন্য কোনো উদ্দেশ্যে ব্যবহার অনৈতিক। জব সাইটগুলোর মাধ্যমে চাকরির আবেদন বেশ সহজতর হলেও তথ্য নিরাপত্তার বিষয়টিতে সংশ্লিষ্টদের গুরুত্ব দেয়া উচিত বলে মনে করেন তিনি।

সৌজন্যে: বণিক বার্তা

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top