শিরোনাম

শুক্রবার, জুলাই 28, 2017 - ভিসি ও ডিন্স সার্টিফিকেট পেলেন গ্রিন ইউনিভার্সিটির ২৪০শিক্ষার্থী | শুক্রবার, জুলাই 28, 2017 - দারাজের গ্রোসারি পণ্যে ৩৫% পর্যন্ত ছাড়! | শুক্রবার, জুলাই 28, 2017 - মনিটর কিনলেই পাচ্ছেন আর্কষনীয় টি-শার্ট  | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - রবি ও ট্রমা ইনস্টিটিউটের মধ্যে কর্পোরেট চুক্তি সই | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - দেশের বাজারে হুইনের তারবিহীন কিউ১১কে গ্রাফিক্স ট্যাবলেট উন্মোচন | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটির তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কিত ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষর | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - যুক্তরাষ্ট্রে বিনিয়োগ করতে যাচ্ছে ফক্সকন | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - স্মার্ট টেকনোলজি ও সিভিল এভিয়েশনের চুক্তি সই | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - ফিরে আসছে সিটিসেল | বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - আসছে স্মার্ট রিং |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / ডাব্লিউএসআইএস অ্যাওয়ার্ডে সাত প্রকল্প, ভোট দেয়ার আহ্বান
ডাব্লিউএসআইএস অ্যাওয়ার্ডে সাত প্রকল্প, ভোট দেয়ার আহ্বান

ডাব্লিউএসআইএস অ্যাওয়ার্ডে সাত প্রকল্প, ভোট দেয়ার আহ্বান

বিশ্বে আইসিটি সেক্টরের সম্মাজনক ওয়ার্ল্ড সামিট অন দ্য ইনফরমেশন সোসাইটি (ডাব্লিউএসআইএস)পুরস্কার জিততে ভোটাভুটিতে লড়ছে বাংলাদেশের সরকারি-বেসরকারি সাত উদ্যোগ।

প্রাথমিক মনোনয়নের তালিকায় চারটি ক্যাটাগরিতে স্থান করে নেয়া উদ্যোগগুলো হলো অ্যাক্সেস টু ইনফরমেশনের(এটুআই) শিক্ষক বাতায়ন ও জাতীয় তথ্য বাতায়ন, সিনেসিস আইটির মোবাইল স্বাস্থ্যসেবা বিষয়ক প্রকল্প এমহেলথ।

রয়েছে প্রাকটিক্যাল অ্যাকশন বাংলাদেশের কৃষি তথ্যসেবা বিষয়ক প্রকল্প হেলো ১৬১২৩, এমপাওয়ার সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের আমাদের ডাক্তার ও ফার্মার কোয়ারি সিস্টেম এবং উইন মিয়াকি লিমিটেডের কৃষি তথ্য সার্ভিস ২৭৬৭৬।

ডাব্লিউএসআইএস অ্যাওয়ার্ড- ২০১৫ এর চূড়ান্ত বিজয়ের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শতাধিক প্রকল্পের সাথে বাংলাদেশের এই দুটি উদ্যোগও এখন ভোটাভুটিতে লড়ছে।

আগামী ১ মে তারিখ সময়ের মধ্যে যেকেউ একটি ইমেইল আইডি দিয়েই ভোট প্রক্রিয়ার অংশগ্রহণ করতে পারবে।

রোববার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল(বিসিসি) মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের এই উদ্যোগগুলোকে বিজয়ী করতে ভোট চেয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

এরআগে এটুআই ফেইসবুক প্রচারণায় নিজেদের প্রকল্পে সকলকে ভোট দেয়ার আহবান জানিয়ে আসছে। সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে সবগুলো প্রকল্পে ভোট চাইলেন প্রতিমন্ত্রী।

wsis-2015

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) সভাপতি শামীম আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইসিটি সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রোগ্রামের প্রকল্প পরিচালক ও মহাপরিচালক (প্রশাসন) কবির বিন আনোয়ার।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডাব্লিউএসআইএসের প্রকল্প পুরস্কার তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে উদ্যোগ ও বাস্তবায়নের বড় স্বীকৃতি। গত পাঁচ বছরের মধ্যে মানুষের জীবনমানের ইতিবাচক পরিবর্তনের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৪ সালে এটুআইকে এই পুরস্কার দেওয়া হয় ।এই অ্যাওয়ার্ডে সেটাই বাংলাদেশের প্রথম কোনো উদ্যোগ যা চূড়ান্ত পর্যায়ে পুরস্কৃত হয়।

তিনি বলেন, এবার আমাদের সামনে রয়েছে সাতটি প্রকল্প। সাতটি প্রকল্পই আন্তর্জাতিকভাবে বিজয়ী হওয়ার যোগ্য। এজন্য প্রয়োজন সর্বাধিক সংখ্যক ভোট। তাই বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাত বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় দ্রুতগতিতে অনেকাংশে এগিয়ে গেছে এটির স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য সকলের উচিত ভোট দেওয়া।

শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষও সরকারি-বেসরকারি ই-সেবা পাচ্ছে।তেমনই সাতটি সেবা এবারের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করছে।আমাদের সবার উচিত প্রকল্পগুলোকে ভোট দেওয়া।

শামীম আহসান বলেন, গতবারের পুরস্কার জেতার পর কয়েকটি দেশ তাদের দেশেও ‘ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র’ প্রকল্প বাস্তবায়নের আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ইতিমধ্যেই মালদ্বীপ এ বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। এবারও যদি আমরা পুরস্কার জিততে পারি তাহলে এ ধরণের কাজের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

বেসিসের নির্বাহী পরিচালক সামি আহমেদের সঞ্চালনায় সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন সিনেসিস আইটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহরাব আহমেদ চৌধুরী, এমপাওয়ার সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের ই-এগ্রিকালচার বিশেষজ্ঞ মো. নজরুল ইসলাম।

ভোট প্রদান শেষে ২ মে থেকে ৫ মে পর্যন্ত চূড়ান্ত বাছাইয়ের পর সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ২৫ মে থেকে ২৯ মে পর্যন্ত পাঁচ দিনব্যাপী অনুষ্ঠিতব্য ডাব্লিউএসআইএস ফোরামে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা ও পুরস্কার প্রদান করা হবে।

ভোট দিতে এই ঠিকানায়  গিয়ে ই-মেইল ও পাসওয়ার্ড লিখে নাম নিবন্ধন করতে হবে। মেইলে ফিরতি বার্তার মাধ্যমে চূড়ান্ত নিবন্ধনের জন্য একটি লিংক আসবে।সেখানে ক্লিক করে নিবন্ধন শেষ করতে হবে।এরপর লগইন পেইজে ইউজার নাম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে ক্লিক করে ভোট দিতে হবে।

এক্ষেত্রে ভোটিং পেইজে এসে অর্গানাইজেশন নেইম অংশে অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন, টাইপ অংশে গভর্নমেন্ট এবং কান্ট্রি অংশে বাংলাদেশ লিখে সাবমিট ক্লিক করতে হবে।

এখন ভোট অপশনে ক্লিক করতে হবে। তারপর ১ থেকে ১৮ পর্যন্ত সিরিয়ালের পেজের ৩, ৪, ১০ ও ১৩ নম্বর ক্যাটাগরিতে থাকা বাংলাদেশি প্রকল্পগুলোকে ভোট দিতে হবে।

এই চারটি ক্যাটাগরি ছাড়াও বাকি ক্যাটাগরিতে ভোট প্রদান করতে হবে।একটি দেশ একবার শুধুমাত্র দুটি ক্যাটাগরিতে নির্বাচিত হতে পারবে।

উল্লেখ্য, এরআগে ২০১৪ সালে এটুআইয়ের ‘সার্ভিস অ্যাট সিটিজেন ডোরস্টেপস’ নামের প্রজেক্ট বাংলাদেশ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চূড়ান্ত মনোনয়ন পাওয়া প্রায় দেড়’শ প্রকল্পকে পেছনে ফেলে বিজয়ী হয়েছে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top