শিরোনাম

শুক্রবার, জানুয়ারী 19, 2018 - মোবাইল সেবার মাধ্যমে বাংলাদেশ অর্জন করবে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা | শুক্রবার, জানুয়ারী 19, 2018 - ক্যাসপারস্কি ল্যাবের আয়োজনে নবনির্বাচিত কমিটির সদস্যদের সংবর্ধনা | শুক্রবার, জানুয়ারী 19, 2018 - হুয়াওয়ে নোভা টুআই এর সঙ্গে ২ বছরের ওয়ারেন্টি | শুক্রবার, জানুয়ারী 19, 2018 - এরা ইনফোটেক ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - ওয়ান প্লাসের নতুন পাওয়ার ব্যাংক | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - স্প্যাম মেসেজ ঠেকাতে হোয়াটসঅ্যাপের নতুন ফিচার | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - যাত্রা শুরু করলো ওয়ালটনের কম্পিউটার কারখানা | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - নতুন স্মার্টফোন আনল হুয়াওয়ে অনার | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 18, 2018 - স্বল্প মূল্যের গ্যালাক্সি সিরিজের ফোন ‘অন৭ প্রাইম’ | বুধবার, জানুয়ারী 17, 2018 - একত্রে কাজ করবে এটুআই এবং একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প |
প্রথম পাতা / অর্থনীতি / শেয়ার বাজার / তিন কোম্পানির প্রায় হাজার কোটি টাকার শেয়ার আসছে

তিন কোম্পানির প্রায় হাজার কোটি টাকার শেয়ার আসছে

পুঁজিবাজারে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে শেয়ার ছেড়ে মূলধন সংগ্রহের চূড়ান্ত অনুমোদন পেল আরও তিনটি নতুন কোম্পানি। কোম্পানিগুলো হলো: মবিল-যমুনা লুব্রিকেন্ট বাংলাদেশ লিমিটেড, এম আই সিমেন্ট (ক্রাউন সিমেন্ট) ফ্যাক্টরি লিমিটেড এবং স্যালভো কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।কোম্পানি তিনটি প্রায় এক হাজার কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। এর মধ্যে মবিল-যমুনা লুব্রিকেন্ট একাই সংগ্রহ করবে ৬০৯ কোটি টাকা। দেশের পুঁজিবাজারের ইতিহাসে টাকার অঙ্কে এটাই হবে সবচেয়ে বড় আইপিও। এর আগে টেলিযোগাযোগ খাতের কোম্পানি গ্রামীণফোন লিমিটেড আইপিওর মাধ্যমে বাজার থেকে ৪৮৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছিল। এত দিন এটিই ছিল সবচেয়ে বড় আইপিওর নজির।
এ ছাড়া এম আই সিমেন্ট ৩৩৪ কোটি এবং সালভো কেমিক্যাল ২৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। সব মিলিয়ে তিন কোম্পানি বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ৯৬৯ কোটি টাকা।
পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) সভায় গতকাল বৃহষ্পতিবার কোম্পানি তিনটির আইপিওর প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। সংস্থাটি এবারই প্রথম একসঙ্গে এতগুলো কোম্পানির আইপিওর অনুমোদন দিল।
সভা শেষে এসইসির নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘একসঙ্গে এতগুলো কোম্পানির আইপিওর অনুমোদন দিতে পেরে আমরা খুশি। কারণ বর্তমানে বাজারে শেয়ারের চাহিদার তুলনায় সরবরাহের যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে। আমাদের বিশ্বাস, এ ঘাটতি মেটাতে এসব আইপিও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’
এসইসি সূত্র জানায়, তিন কোম্পানির মধ্যে মবিল-যমুনা লুব্রিকেন্ট এবং এম আই সিমেন্ট বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে বাজারে শেয়ার ছাড়বে। আর স্যালভো কেমিক্যাল ছাড়বে ফিক্সড প্রাইস বা স্থির মূল্য পদ্ধতিতে।
মবিল-যমুনা লুব্রিকেন্ট বাজারে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের চার কোটি শেয়ার ছাড়বে। প্রতিটি শেয়ারের নির্দেশক দাম নির্ধারণ করা হয়েছিল ১২৭ টাকা। কিন্তু প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের চূড়ান্ত দরপ্রস্তাবের পর কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ারের প্রস্তাবিত মূল্য নির্ধারিত হয়েছে ১৫২ টাকা ৪০ পয়সা। এই দামেই কোম্পানিটি সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রি করবে। তার মানে কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি অভিহিত মূল্যের অতিরিক্ত বা প্রিমিয়াম পাবে ১৪২ টাকা ৪০ পয়সা।
এসইসি জানায়, মবিল-যমুনার প্রতিটি মার্কেট লট বা বাজারগুচ্ছ গঠিত হবে ১০০টি শেয়ার নিয়ে। সে হিসাবে প্রতি লট শেয়ার কিনতে একজন বিনিয়োগকারীকে গুণতে হবে ১৫ হাজার ২৪০ টাকা। কোম্পানিটির বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ১৪০ কোটি টাকা। আইপিওর পর এর পরিমাণ ১৮০ কোটি টাকা হবে। আর শেয়ারসংখ্যা হবে ১৮ কোটি।
সর্বশেষ নিরীক্ষিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস দেখানো হয়েছে তিন টাকা ৫৩ পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য বা এনএভি দেখানো হয়েছে ১১ টাকা ৭৩ পয়সা।
একই পদ্ধতিতে বাজারে তিন কোটি শেয়ার ছাড়বে এম আই সিমেন্ট। কোম্পানিটির ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের নির্দেশক মূল্য ছিল ৯৩ টাকা। কিন্তু চূড়ান্ত দরপত্রে কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ারের বিক্রয় মূল্য নির্ধারিত হয় ১১১ টাকা ৬০ পয়সা। অর্থাৎ কোম্পানিটি ১০১ টাকা ৬০ পয়সা শেয়ারপ্রতি প্রিমিয়াম পাবে।
এ কোম্পানিটিরও শেয়ারের প্রতিটি লটে ১০০টি শেয়ার থাকবে। সেই হিসাবে এম আই সিমেন্টের এক লট শেয়ারের জন্য বিনিয়োগকারীদের ১১ হাজার ১৬০ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে।
এম আই সিমেন্টের বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ৭০ কোটি টাকা, পরে যা বেড়ে ১০০ কোটি টাকায় উন্নীত হবে। তখন কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা হবে ১০ কোটি।
স্যালবো কেমিক্যাল ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের দুই কোটি ৬০ লাখ শেয়ার বাজারে ছাড়ছে। কোম্পানিটির শেয়ারের বিপরীতে কোনো প্রিমিয়াম চাওয়া হয়নি।
সালফিউরিক এসিড প্রস্তুতকারী এ প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান পরিশোধিত মূলধন প্রায় ১৪ কোটি টাকা। আইপিওর পর যা বেড়ে ৪০ কোটি টাকা হবে। কোম্পানিটির ইপিএস দেখানো হয়েছে ৯১ পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি এনএভি ১৮ টাকা ৮৯ পয়সা।
এ ছাড়া গতকালের কমিশন সভায় ইস্টার্ন ইনস্যুরেন্স কোম্পানির রাইট শেয়ার ছাড়ার প্রস্তাবও অনুমোদন দেওয়া হয়। কোম্পানিটি একটি শেয়ারের বিপরীতে একটি রাইট শেয়ার ঘোষণা করেছে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top