শিরোনাম

রবিবার, জানুয়ারী 21, 2018 - আকর্ষণীয় ফিচার নিয়ে বাজারে আসছে স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৯ | রবিবার, জানুয়ারী 21, 2018 - বাংলালিংকের ‘হেলথলিংক ৭৮৯’ সার্ভিসে যুক্ত হল ‘ডক্টরস অ্যাপয়েন্টমেন্ট’ সুবিধা | রবিবার, জানুয়ারী 21, 2018 - গ্লোবাল ব্র্যান্ড নিয়ে এসেছে লেনোভো আউডিয়াপ্যাড ৩২০ ল্যাপটপ | রবিবার, জানুয়ারী 21, 2018 - ব্যবসায়ীদের জন্য হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস | রবিবার, জানুয়ারী 21, 2018 - হ্যাকিংয়ের কাবলে ওয়ানপ্লাস | রবিবার, জানুয়ারী 21, 2018 - আসছে ইন্টেল কোর আই৯ প্রসেসর এর ল্যাপটপ | রবিবার, জানুয়ারী 21, 2018 - বাণিজ্য মেলায় অপো এফ৫ বিজয়ীদের নাম ঘোষণা | শনিবার, জানুয়ারী 20, 2018 - আরও কঠিন হচ্ছে ইউটিউব থেকে উপার্জন | শনিবার, জানুয়ারী 20, 2018 - ফেসবুক হ্যাকড হলে করনীয় | শনিবার, জানুয়ারী 20, 2018 - কর্মজীবি নারীদের মানহানি বন্ধে আহব্বান |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / ফিচার পোস্ট / বিটি‌‌‌আরসি অনিয়মের শীর্ষে নয়:সুনীল কান্তি বোস
বিটি‌‌‌আরসি অনিয়মের শীর্ষে নয়:সুনীল কান্তি বোস

বিটি‌‌‌আরসি অনিয়মের শীর্ষে নয়:সুনীল কান্তি বোস

মহাহিসাব নিরীক্ষক (সিএজি) বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) আর্থিক ব্যবস্থাপনায় শীর্ষ অনিয়মকারী সংস্থা হিসাবে অভিহিত করলেও তা মানছেন না সংস্থাটির চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোস। তিনি বলেন, তথ্য গ্যাপের কারণে সঠিক চিত্র আসেনি। তবে এখন আর সংসদীয় পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটি ছাড়া এটির সংশোধনের আর কোনও সুযোগ নেই।

সোমবার মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয় থেকে বিটিআরসিকে শীর্ষ অনিয়মকারী সংস্থা হিসেবে উল্লেখ করা হয়। ১৭টি সংস্থার আর্থিক প্রতিবেদনের ওপর মন্তব্য করতে গিয়ে সিএজি এমন কথা বলেছেন।

সিএজির হিসাবে ৬ হাজার ১৯২ কোটি টাকার অনিয়মের কথা বলা হচ্ছে। যার মধ্যে বিটিআরসির অংশ রয়েছে ২ হাজার ২৬২ কোটি টাকার।

BTRC

সিএজির দাবি করা এসব অনিয়ম প্রসঙ্গে বিটিআরসির চেয়ারম্যান আরও বলেন, প্রতিবেদনে সঠিক চিত্র আসেনি। অডিট প্রতিষ্ঠানের কাছে সেই সময় দেরি করে তথ্য পাঠানোর কারণে এমনটা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। মঙ্গলবার বিটিআরসির কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

সুনীল কান্তি বলেন, সিএজি অফিস যা করেছে তা ভালো, কিন্তু যেভাবে সংবাদটি গণমাধ্যমে ফোকাস করা হয়েছে তা ঠিক হয়নি। সংবাদপত্রের রিপোর্ট দেখে মনে হচ্ছে যেন, বিটিআরসির সবটায় কেবল দুর্নীতি ও দুর্নীতি। কিন্তু পরিস্থিতি মোটেই তেমন নয়।

আর্থিক অনিয়মে তৎকালীন ওয়ারিদের শেয়ার হস্তান্তর নিয়ে যে দুর্নীতি হয়েছিল সে সম্পর্কে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, আপাতত দৃষ্টিতে অপারেটরটির শেয়ার হস্তান্তরে কোনো অনিয়ম হয়নি। কিন্তু পরে এটার কাগজপত্র বের হলে হয়তো বোঝা যাবে আসলে কি হয়েছিল। যারা বিশেষজ্ঞ তারা এটা বিশ্লেষণ করে বের করলে জানা যাবে আদৌ সেখানে কোনো অনিয়ম হয়েছিল কিনা।

২০১০ সালে ওয়ারিদের ৭০ শতাংশ শেয়ার এয়ারটেলের কাছে হস্তান্তর বিষয়ে সিএজির দাবি অনুসারে সরকারের ৭৬ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। তখনকার নিয়মানুসারে শেয়ার হাস্তান্তরের মূল্যের ওপর সাড়ে ৫ শতাংশ অর্থ সরকারকে দিতে হতো।

কিন্তু শেয়ার হস্তান্তরের সময় ওয়ারিদ শেয়ারের মূল্য ৭৯ টাকা থেকে কমিয়ে মাত্র ৬ পয়সা নির্ধারণ করে। পরে আবার তা বাড়িয়ে ৯২ টাকায় নিয়ে যায়। এর মাধ্যমে সরকাকে রাজস্ব কম দেওয়া হয়েছে বলে সিএজির অভিযোগ।

তবে বিটিআরসির চেয়ারম্যান বলছেন, এক্ষেত্রে তৃতীয় কারও দ্বারা অডিট করলেই প্রকৃত চিত্র পাওয়া যেতে পারে।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top