শিরোনাম

বুধবার, মে 24, 2017 - ৩৩১০ সহ নকিয়ার তিনটি স্মার্টফোন জুন থেকে দেশের বাজারে পাওয়া যাবে | বুধবার, মে 24, 2017 - ফেইসবুকের দেখা, না দেখা | বুধবার, মে 24, 2017 - চলতি বসরে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া স্মার্টফোনসমূহ | বুধবার, মে 24, 2017 - জাতীয় ইন্টারনেট সপ্তাহ শুরু | বুধবার, মে 24, 2017 - ডাক্তারদের জন্য ই-প্রেসক্রিপশান সফটওয়্যার | মঙ্গলবার, মে 23, 2017 - বেসিস নির্বাচন :লটারিতে বাদ পড়েছেন মোস্তাফা জব্বার, রাসেল ও ফারহানা | মঙ্গলবার, মে 23, 2017 - গাজীপুরে স্যামসাং এর ৫০তম ব্র্যান্ড শপ উদ্বোধন | মঙ্গলবার, মে 23, 2017 - ঢাকা বিভাগে পুরোদমে চলছে রবি-এয়ারটেল নেটওয়ার্কের সমন্বয় | মঙ্গলবার, মে 23, 2017 - ঈদের আনন্দ দ্বিগুণ করতে হুয়াওয়ের আকর্ষণীয় অফার | মঙ্গলবার, মে 23, 2017 - আইসিটি স্কলার ফেলোশিপ |
প্রথম পাতা / ফ্রিল্যান্সিং / রবি-এয়ারটেল একীভূতকরণে ৭৭৩ কোটি টাকা ফি কেন?
রবি-এয়ারটেল একীভূতকরণে ৭৭৩ কোটি টাকা ফি কেন?

রবি-এয়ারটেল একীভূতকরণে ৭৭৩ কোটি টাকা ফি কেন?

robi-airtelবাংলাদেশের দুই মোবাইল ফোন অপারেটর রবি-এয়ারটেল একীভূত হওয়ার ক্ষেত্রে তরঙ্গ ও মার্জার ফি বাবদ ৭৭৩ কোটি টাকা ফি প্রস্তাবনা দিয়েছে বিটিআরসি। এর এরই প্রেক্ষিতে গত বুধবার টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়, বিটিআরসি’র কাছে মার্জার ফি বাবদ ৭৭৩ কোটি টাকা প্রস্তাবনার কারণ জানতে চেয়েছে। সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুমোদনের জন্য ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে পাঠানো এক প্রতিবেদনে বলা হয়, তরঙ্গ একীভূত ফি হিসেবে ৫৭৩ কোটি টাকা এবং মার্জার ফি হিসেবে ২০০ কোটি টাকা নির্ধারণ করে প্রস্তাবনা করা হয়।

বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে, ২০০৫ সালে ওয়ারিদ টেলিকম (পরবর্তী সময় এয়ারটেল) ১৮০০ মেগাহার্টজ অর্থাৎ টুজি ব্যান্ডে ১৫ মেগাহার্টজ তরঙ্গ কিনতে ব্যয় করেছিল ৩৪০ কোটি টাকা। ১৫ বছরের জন্য বরাদ্দ পাওয়া এ তরঙ্গের জন্য প্রতি মেগাহার্টজে ওয়ারিদের খরচ হয় ১ কোটি ৫১ লাখ টাকা। অন্যদিকে ২০১১ সালে রবি আজিয়াটা টুজি তরঙ্গের লাইসেন্স নবায়নের সময় প্রতি মেগাহার্টজ তরঙ্গের জন্য ব্যয় করেছিল ১০ কোটি টাকা। অর্থাৎ প্রতি মেগাহার্টজ টুজি তরঙ্গের জন্য রবিকে বেশি দিতে হয় ৮ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলেন, এয়ারটেল অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের তুলনায় কম মূল্যে টুজি স্পেকট্রাম পেয়েছে এবং একীভূতকরণের পর সরকার স্পেকট্রাম জন্য অতিরিক্ত ফি সংগ্রহ করার জন্য একটি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, দেশের তৃতীয় বড় মোবাইল অপারেটর মালয়শিয়া ভিত্তিক রবি এবং ভারতীয় এয়ারটেল বাংলাদেশে তাদের অপারেশন একীভূতভাবে পরিচালনা করার ঘোষণা দেয়। বর্তমানে এই একীভূতকরণের প্রস্তাবনাটি হাইকোর্টে বিচারাধীন রয়েছে। এর আগে গত এপ্রিল মাসে রবি-এয়ারটেল একীভূত হতে সরকার প্রায় ৫০০ কোটি টাকা ফি নেবে বলে গুঞ্জন উঠেছিল। তখন তারানা হালিম বলেছিলেন, রবি-এয়ারটেল একীভূত হতে ফিস প্রস্তাব করা হয়নি । এরপরেও বিটিআরসি ৭৭৩ কোটি টাকা ফি নেওয়ার জন্য প্রস্তাবনা দিলে এর ব্যাখ্যা চেয়ে বিটিআরসিকে চিঠি দিয়েছে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top