শিরোনাম

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 19, 2017 - বাংলাদেশেই তৈরি হবে সকল ডিজিটাল ডিভাইস : মোস্তাফা জব্বার | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 19, 2017 - যে কারণে অনলাইন অ্যাকাউন্টে কঠিন পাসওয়ার্ড দিবেন | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 19, 2017 - ফিশিং জালিয়াতির শিকার হচ্ছেন জিমেইল ব্যবহারকারীরা | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 19, 2017 - দেশের বাজারে লেনোভোর এইচডি ডিসপ্লের ল্যাপটপ | বুধবার, জানুয়ারী 18, 2017 - হিটাচি প্রজেক্টরে ম্যাজিক অফার | বুধবার, জানুয়ারী 18, 2017 - বাংলাদেশে ডি-লিংক কাস্টমার কেয়ার সেন্টারের অংশীদার কম্পিউটার সোর্স | বুধবার, জানুয়ারী 18, 2017 - অপ্পোর নতুন ২ স্মার্টফোনে গ্রামীণফোনের ফ্রি ইন্টারনেট | বুধবার, জানুয়ারী 18, 2017 - ওয়েস্টার্ন ডিজিটাল এর পার্টনার মিট | বুধবার, জানুয়ারী 18, 2017 - ইউটিউবের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে পর্নগ্রাফি ভিডিও | বুধবার, জানুয়ারী 18, 2017 - আসছে স্বল্প মূল্যের অ্যান্ড্রয়েড ওয়ান ফোন |
প্রথম পাতা / সাম্প্রতিক খবর / হ্যান্ডসেট আমদানিতে শুল্ক হ্রাসের আহ্বান আমদানিকারকদের
হ্যান্ডসেট আমদানিতে শুল্ক হ্রাসের আহ্বান আমদানিকারকদের

হ্যান্ডসেট আমদানিতে শুল্ক হ্রাসের আহ্বান আমদানিকারকদের

প্রস্তাবিত বাজেটে মোবাইল ফোনের ওপর থেকে শুল্ক হ্রাসের আহ্বান জানিয়েছে দেশের মোবাইল ফোন আমদানিকারকদের সংগঠন বিএমপিআইএ। সংগঠনটি দাবি করেছে, মোবাইল ফোনের ওপর ২১.৭৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করায় সীমিত আয়ের মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে মোবাইল ফোন। এতে করে ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্লবায়নের কাজটি বাধাগ্রস্ল হবে বলে মনে করছে তারা।

Mobile phone bills
বিএমপিআইএ সহৃত্র জানা গেছে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে সরকার প্রথমবারের মতো হ্যান্ডসেট আমদানিতে ১০ শতাংশের পরিবর্তে মোট ২১.৭৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে। এই বর্ধিত শুল্কের মধ্যে রয়েছে ৫ শতাংশ কর, ১৫ শতাংশ মহৃসক এবং এক শতাংশ সারচার্জ।  বর্ধিত কর আরোপের ফলে মোবাইল ফোন আমদানি উল্লেখযোগ্য হারে কমছে।  কর বৃদ্ধিতে মোবাইল ফোনের আমদানি গত নয় মাসে ৪০ ভাগ কমেছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। কর বৃদ্ধির আগে গত বছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রাšিøকে যেখানে ৮২ লাখ ১৮ হাজার ৫৪৩ ইউনিট সেলফোন আমদানি হয়েছিল সেখানে কর বৃদ্ধি পরবর্তী চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ প্রাšিøকে আমদানি ৫১ লাখ ১১ হাজার ৪২২ ইউনিটে নেমে এসেছে। এছাড়া  গত বছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রাšিøকে ১৭ লাখ ৩১ হাজার ৮৮৪ ইউনিট স্মার্টফোন আমদানি হলেও  চার মাসের ব্যবধানে তা নেমে এসেছে ৮ লাখ ৬৭ হাজার ৫৩৩ ইউনিটে।
মহৃলত বর্ধিত কর আরোপে অবৈধ পথে আমদানি এবং আন্ডার ইনভয়েসিং বাড়ছে বলে মনে করছে সংগঠনটি। এতে করে সরকার কাক্সিক্ষত রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এ সম্পর্কে বিএমপিআইএ’র  সাধারণ সম্পাদক রেজোয়ানুল হক জানান, মোবাইল ফোন আমদানির হ্রাসের দুটি কারণ থাকতে পারে। এর মধ্যে হয় অবৈধ পথে মোবাইল ফোনের আমদানি বাড়ছে অথবা সাধারণ মানুষ নতুন মোবাইল ফোন কিনতে পারছে না। দেশে বর্তমানে ১২ কোটির বেশি  মোবাইল ফোনের গ্রাহক রয়েছে। বর্তমানে ইন্টারনেট গ্রাহকের ৯৫ ভাগই সেলফোন থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন। ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্লবায়নের প্রেক্ষাপটে মোবাইল ফোন দারুণ ভহৃমিকা রাখছে। তবে কর বৃদ্ধিতে ইন্টারনেট এবং মোবাইলের মতো সেবা খাতটি হুমকির মুখে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। পাশাপাশি বর্তমানে দেশের অন্যতম একটি সম্ভাবনাময় শিল্প হচ্ছে সফটওয়ার ও  মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন।  দেশের অসংখ্য তরুণ এ কাজের সঙ্গে জড়িত। তবে স্মার্টফোন ব্যবহার না বাড়লে বিকাশমান এ শিল্পও বাধাগ্রস্ল হতে পারে।  অথচ শুল্ক ১০ শতাংশ হলে কিন্তু এমন চিত্র দেখতে হতো না। এতে করে সরকার বড় অংকের রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি সরকারের প্রতি  চলতি বাজেটেই বর্ধিত শুল্ক প্রত্যাহার করে মোবাইল ফোনের দাম সহনীয় রাখার আহ্বান জানান।

Comments

comments



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। Required fields are marked *

*

Scroll To Top